বৃহস্পতিবার ২ এপ্রিল ২০২০ ১৯শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বন্ধ করে দেয়া হল বিশ্বের প্রথম সংবাদ জাদুঘর

নতুন বছরকে সামনে রেখেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম সংবাদপত্রের যাদুঘর ‘দ্য নিউজিয়াম’ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। প্রায় ১২ বছর ধরে সাংবাদিকদের উন্নয়ন, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম সংশোধনী প্রচারের জন্য নিবেদিত একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করেছে এই নিউজিয়ামটি। এই জাদুঘরে ছিল সংবাদপত্র সম্পর্কিত হাজারো তথ্য। সংবাদ কিভাবে এবং কেন তৈরি করা হয় এসব তথ্যের ভান্ডার ছিল এই জাদুঘর।

বিশ্ব জুড়ে আলোচিত এই নিউজিয়ামটির অবস্থান ছিল যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অ্যাভিনিউ আর কনস্টিটিউশন অ্যাভিনিউয়ের সংযোগস্থলে। ভার্জিনিয়ার আরলিংটনে ১৯৯৭ সালের ১৮ এপ্রিল প্রতিষ্ঠিত হয় এই সংবাদ জাদুঘর। ফ্রিডম ফোরাম নামক একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এটি পরিচালনার দ্বায়িত্ব পালন করে আসছিল। 

২০০০ সালে ফ্রিডম ফোরাম এই জাদুঘরটি ওয়াশিংটন ডিসি’র পোটোম্যাক নদীর তীরে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর ২০০২ সালের ৩ মার্চ মূল জাদুঘর বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে ওয়াশিংটন ডিসি-তে ৪৫০ মিলিয়ন ডলার খরচ করে আরো বড় করে  গড়ে তোলা হয় এই নিউজিয়াম। 

২০০৮ সালের ১১ এপ্রিল জমকালোভাবে দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেয়া হয় এই জাদুঘর। গত ৫ বছরে প্রায় ৩ মিলিয়ন দর্শনার্থী এই জাদুঘরটি পরিদর্শন করেছে। 

বিভিন্ন ধরনের তথ্য জমা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানীর একেবারে কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত ডিসি’র এই জাদুঘরে। তাদের মধ্যে অন্যতম ছিল, এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বার্লিন ওয়াল, ৯/১১ হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারের টুকরা, ইউগোস্লাভিয়ায় কর্মরত একটি টিভি ক্রুর বিচ্ছিন্ন গাড়ি, প্রথম সংশোধনী সহ নানাবিধ নিদর্শন। 

জাদুঘরে বিশ্বজুড়ে সংবাদপত্রগুলোর প্রথম পৃষ্ঠাগুলোর প্রদর্শন ছিল মানুষের আগ্রহের অন্যতম প্রধান বিষয়। নিউজিয়ামের গ্যালারিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় ছিল, গ্রেট হল অব নিউজ, নিউজ হিস্ট্রি, গ্যালারি, ইন্টারঅ্যাক্টিভ নিউজরুম, গ্লোবাল নিউজ থিয়েটার, রাইজ অব ইলেক্ট্রনিক নিউজ গ্যালারি, ফার্স্ট অ্যামেন্ডমেন্ট গ্যালারি এবং জার্নালিস্টস মেমোরিয়াল। 

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের প্রথম সংশোধনীতে বলা হয়েছিল, বাক-স্বাধীনতা অর্থাৎ সংবাদপত্রের স্বাধীনতার কথা। অ্যামেন্ডমেন্ট গ্যালারিতে যেকোন সাধারণ দর্শক হিসেবে ঢুকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় স্বাধীন সংবাদপত্রের সমর্থক হয়ে যেত। সংবাদ সংগ্রহশালার আরেকটি আকর্ষণীয় দিক ছিল জার্নালিস্টস মেমোরিয়াল সংগ্রহশালার তথ্যাদি। সংবাদ সংগ্রহ করার ঝুঁকি নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেসব সাংবাদিক মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের নাম খোদাই করা লেখা হয়েছে এই শ্রদ্ধালিপিতে। সেখানে বিশ্বের ১৫২৮ জন সাংবাদিকের নাম তাদের সংবাদপত্র ও মৃত্যু তারিখসহ লেখা হয়েছে। 

এই তালিকায় আজারবাইজান, বাংলাদেশ, কলোম্বিয়া, হাইতি, ইরাক ও পাকিস্তান সহ আরও অনেক দেশের সাংবাদিকদের নাম রয়েছে। গত ১৫ বছরে প্রায় ২০০০ মার্কিন সংবাদপত্র বন্ধ হয়ে গেছে এবং গ্যালাপের একটি অনুসন্ধানে দেখা গেছে যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যার অর্ধেকেরও কম লোক বলেছে যে তারা গণমাধ্যমের উপর বিশ্বাস রাখে। 

নিউজিয়ামটি বন্ধ হয়ে গেলেও তাদের একটি অনলাইন ফোরামে মুক্ত সাংবাদিকতার গুরুত্বের উপর জোর দেওয়ার জন্য তার মিশন চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছে নিউজিয়াম কর্তৃপক্ষ।

-ভয়েস অব আমেরিকা

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email