বুধবার ২৪ অক্টোবর ২০১৮ ৯ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের এশিয়া কাপের শিরোপা জয়

এশিয়া কাপে তীরের কাছে গিয়েও কূলের দেখা পায়নি ছেলেরা। প্রথমবারই ফাইনালে গিয়ে অবিশ্বাস্য এক অর্জন করে দেখাল মেয়েরা। অসাধারণ এক জয়ে এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছে বাংলাদেশ। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছে ৩ উইকেটে।

রবিবার (১০ জুন) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টায় মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে শুরু হওয়া ম্যাচে বাংলাদেশের দুর্দান্ত বোলিংয়ে পাত্তাই পায়নি ভারতের ব্যাটসম্যানরা। তারা তুলতে পেরেছিল ৯ উইকেটে ১১২ রান। জবাবে শেষ বলে প্রয়োজনীয় ২ রান তুলে জয় নিশ্চিত করে বাঘিনীরা।

১১৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে সাবধানে খেলেন শামিমা সুলতানা ও আয়েশা রহমান। তবে শিখা পান্ডের শুরু করা দ্বিতীয় ওভারে তাঁর ওপর চড়াও হন আয়েশা রহমান। টানা দুই চার মারেন আয়েশা। পায়ে ব্যাথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন ৪ বলে ১০ রান হজম করা শিখা পান্ডে। বাকি থাকা দুই বল করেন দিপ্তী শর্মা।

কোনো উইকেটের পতন ছাড়াই পাওয়ার প্লে পার করে বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশ দল বিপাকে পড়ে ৭ম ওভারে পুনম যাদব আক্রমণে আসলে। দলকে ৩৫ রানে রেখে টানা দুই বলে আউট হন দুই ওপেনার আয়েশা রহমান ও শামিমা সুলতানা। ২৩ বলে ৩ চারে ১৭ রান করেন আয়েশা, ১৯ বলে ২ চারে ১৬ রান করেন শামিমা।

উইকেটে এসে দিপ্তী শর্মার বলে ফারজানা হক এগিয়ে এসে মারেন দারুণ এক চার। তবে পুনম যাদবের লেগ স্পিন ভেল্কিতে ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ হন ফারজানা হক। ১৭ বলে ১১ রান করে উইকেটের পেছনে তানিয়া ভাটিয়াকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ফারজানা।

ফারজানার বিদায়ের পর দেখেশুনে খেলতে থাকেন রুমানা আহমেদ ও নিগার সুলতানা। স্পিনারদের সমীহ দেখিয়ে খেলতে থাকা নিগার সুলতানা ঝুলন গোস্বামীর করা দ্বিতীয় ওভারে হাঁকান টানা তিনটি চার। ১৫তম ওভারে আসে ১৬ রান। পরের ওভারেই অবশ্য পুনম যাদবের চতুর্থ শিকারে পরিণত হন নিগার সুলতানা। আউট হন ২৪ বলে ৪ চারে ২৭ রান করে।

এরপর রুমানা আহমেদ একপ্রান্ত ধরে রাখেন। শেষ ওভারে ৫ উইকেট হাতে থাকা বাংলাদেশের দরকার ছিল ৯ রান। হারমানপ্রীতের দ্বিতীয় বলে চার মারেন রুমানা। প্রথম তিন বলে আসে ৬ রান। চতুর্থ বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে আউট হন সানজিদা। ২ বলে দরকার ছিল ৩ রান। ৫ম বলে ১ রান সম্পন্ন করে রান আউট হন রুমানা। শেষ বলে দুই রান নিয়ে বাংলাদেশকে জেতান জাহানারা।

এর আগে কুয়ালালামপুরের কিনরারা অ্যাকাডেমি ওভাল মাঠে টসে জিতে আগে বল করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ নারী দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন। শুরুতেই স্পিনার নাহিদা আকতারকে আক্রমণে আনেন সালমা খাতুন। প্রথম ওভার থেকে ২ রান দেন নাহিদা। অফস্পিনার সালমা অপর প্রান্ত থেকে বোলিংয়ে আসেন। সালমা ১ম ওভার থেকে হজম করেন ৬ রান।

নিজের দ্বিতীয় ওভারেই উইকেটের সুযোগ সৃষ্টি করেন নাহিদা আকতার। ভারতীয় নারী দলের ওপেনার স্মৃতি মান্দানার ক্যাচ ও স্টাম্পিংয়ের সুযোগ মিস করেন উইকেটের পেছনে থাকা শামিমা সুলতানা। তবে সেই আক্ষেপ বেশীক্ষণ পোড়ায় নি বাংলাদেশ দলকে। পরের ওভারেই তিন রান নিতে যেয়ে রান আউটের শিকার হন মান্দানা।

ইনিংসের সপ্তম ওভারে নিজের প্রথম ওভারে বল করতে আসা জাহানারা আলম বোল্ড করে ফেরান দিপ্তী শর্মাকে। ১১ বলে ৪ রান করে ফেরেন দিপ্তী। দিপ্তীর ফিরে যাবার পর উইকেটে থাকতে পারেননি মিতালী রাজও। খাদিজাতুল কুবরার করা পরের ওভারেই ক্যাচ দিয়ে ফেরেন নারীদের এশিয়া কাপে সর্বোচ্চ রানের মালিক।

পরের ওভারেই পতন হয় ভারতীয় নারীদের চতুর্থ উইকেট। অবস্ট্রাকটিং দ্যা ফিল্ড হয়ে আউট হন আনুজা পাতিল। রান নেবার সময় থ্রো দেখে নিজের দৌড়ানোর দিক পরিবর্তন করেন আনুজা পাতিল, বল লাগে তার শরীরে। পরে তৃতীয় আম্পায়ার তাকে আউট ঘোষণা করেন।

প্রথম দশ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ৪২ রান তুলতে পারে ভারতীয় নারীরা। এরপর হাত খুলে খেলার সিদ্ধান্ত নেন হারমানপ্রীত কর। জাহানারার করা ১১তম ওভার থেকে দুইটি চারে আসে ১১ রান। রুমানা আহমেদের করা পরের ওভারে কোন বাউন্ডারি ছাড়া আসে ৬ রান।

তবে ১৩তম ওভারে বল করতে এসে ভেদা কৃষ্ণমূর্তিকে বোল্ড করে ফেরান বাঘিনীদের অধিনায়ক সালমা খাতুন। ১০ বলে ১১ রান করে আউট হন ভেদা কৃষ্ণমূর্তি। নতুন উইকেটে আসা তানিয়া ভাটিয়া দারুণ কিছু করতে পারেননি। ৬ বলে ৩ রান করে রুমানার বলে স্টাম্পিংয়ের শিকার হন তানিয়া। রুমানার ঐ ওভারেই শিখা পান্ডে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। দলীয় ৭৪ রানে ভারত হারায় ৭ম উইকেট।

একপ্রান্ত আগলে রেখে রানের চাকা সচল রেখেছিলেন ভারতীয় নারী দলের অধিনায়ক হারমানপ্রীত কর। সালমা খাতুনকে ১৯ তম ওভারে টানা দুই চার মেরে ৩৯ বলে পঞ্চাশ পূর্ণ করেন হারমানপ্রীত। ঝুলন গোস্বামীকে নিয়ে ৮ম উইকেটে যোগ করেন ৩৩ রান। ১০ রান করে শেষ ওভারে আউট হন ঝুলন।

শেষ বলে ৪২ বলে ৫৬ রান করে আউট হন হারমানপ্রীত কর। ভারত থামে ৯ উইকেটে ১১২ রান করে।

আজকেও অলরাউন্ড পারফরমেন্সের জন্য প্লেয়ার অফ দা ম্যাচ হয়েছেন রুমানা আহমেদ।