সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের কারখানা নিরাপদ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়াতে জার্মানির উদ্যোক্তাদেরকে আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের কারখানা নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও পরিবেশবান্ধব।

জার্মানির স্থানীয় সময় শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) বার্লিনে অনুষ্ঠিত দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে এসব কথা জানান আবদুল মোমেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের জনতাত্ত্বিক সুবিধা এবং সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের (এফডিআই) জন্য আকর্ষণীয় বিনিয়োগ সুবিধা গ্রহণের জন্য জার্মান উদ্যোক্তাদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, দেশের তৈরি পোশাক শিল্পের কারখানা নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও পরিবেশবান্ধব। বাংলাদেশ শ্রমিকদের নিরাপত্তা ও অধিকার ইস্যুতে অসামান্য উন্নয়ন অর্জন করেছে।

বৈঠককালে মোমেন গ্রামীণ উন্নয়ন, প্রাথমিক শিক্ষা, বেসরকারি খাতের উন্নয়ন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলার মতো খাতে বাংলাদেশকে জার্মানির উন্নয়ন সহযোগিতার প্রশংসা করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জার্মান বিভিএমডব্লিউ এর প্রেসিডেন্ট এবং ওয়ার্ল্ড এসএমই এর ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রফেসর মারিও ওহোভেন এবং জার্মান সরকারের গবেষণা ইনস্টিটিউট ফ্রেডরিক এভার্ট- স্টিফটাং (এফইএস) এর মহাসচিব ড. রোল্যান্ড স্মিডটের সঙ্গে একই দিনে বৈঠকে মিলিত হন।
 
এসময় বৈঠকে বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক উপস্থিত ছিলেন এবং তিনি টেক্সটাইল পণ্যের ব্যাপারে পরিবেশ ও সামাজিক সচেতনতা উদ্যোগ হিসেবে জার্মানির ‘সবুজ বোতাম’ উদ্যোগে বিজিএমইএ যোগদানের আগ্রহের কথা জানান। 

জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশের অর্জনের প্রশংসা করেন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। 

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের বিপুল পরিমাণ জনগোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে জার্মান সরকারের সহযোগীতা চান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। 

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে রাজি হলেও তারা একজন রোহিঙ্গাও এখন পর্যন্ত ফেরত নেয়নি। তাই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ করতে জার্মান সরকারের প্রতি আহ্বান জানান আবদুল মোমেন। 

ড. মোমেন জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাবিত চারটি বিষয়ও বৈঠকে উল্লেখ করেন। একই সঙ্গে রোহিঙ্গাদের প্রতি সংঘটিত নৃশংসতার জন্য মিয়ানমারের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে জার্মানির সমর্থনও চান। 

এসময় জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের মানবিক অবস্থানের গভীর প্রশংসা করেন।