রবিবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের প্রথম লাইব্রেরীতে বীরগঞ্জ হাসপাতালে পাঠ্য সংখ্যা বাড়ছে

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর থেকে বিকাশ ঘোষ ॥ বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসাধারণ একটি উদ্যোগে রোগিদের জন্য লাইব্রেরী। হাসপাতালে রোগী আসে সেবা নিতে। অনেক সময় বিভিন্ন কারণে তাদের অলস সময় কাটে। হাসপাতালে রোগী যখন নিঃসঙ্গতায় ভোগেন তখন তাদের অবসরকালে বই হতে পারে বিশেষ সঙ্গী। এমন ধরণায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চালু করা হয়েছে একটি অসাধারণ লাইব্রেরী। ওই লাইব্রেরীর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়ে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর। স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব মোঃ আনোয়ার হোসেন লাইব্রেরীটি উদ্বোধন করেন। স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা কক্ষের করিডোরে কাচে ঘেরা একটি ঘর। বেশ সাজানো ঘরের উপরে লেখা আছে লাইব্রেরী। লাইব্রেরীতে রয়েছে স্বাস্থ্য, পুষ্টি, নিরাপদ খাদ্যসহ স্বাস্থ্যবিষয়ক শতাধিক বই। বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কর্মকর্তা তার বারান্দার করিডোরটি লাইব্রেরী হিসেবে ব্যবহারের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করে এমন নজির স্থাপন করেছেন। হাসপাতালে লাইব্রেরি স্থাপনের মতো সৃজনশীল কার্যক্রম দেশের কোথাও নেই। তাই বলা যায়, বাংলাদেশে এই প্রথম এধরণের লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। রোগি ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে,লাইব্রেরিতে প্রতিদিন পাঠক সংখ্যা বেড়েই চলছে। লাইব্রেরিটি স্থাপন করে উদ্যোগক্তা হিসেবে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর কবির। হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা ৮নং ভোনগর ইউনিয়নের রহিম বখস উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র নিয়ন ইসলাম বলেন, আমার আম্মু বেশ কয়েকদিন ধরে জ্বরে ভোগছেন। তাকে নিয়ে চিকিৎসকের কাছে এসেছি। রক্ত পরীক্ষার রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে। করিডোর দেখতে পেয়ে আম্মুকে নিয়ে বই পড়ে সময় পার করছি। বীরগঞ্জ উপজেলার ৬নং নিজপাড়া ইউনিয়নের দামাইক্ষেত্র গ্রামের ব্যবসায়ী মোঃ শাহজাহান সিরাজ বুলবুল আজকের বিজনেস বাংলাদেশকে বলেন, আমার স্ত্রীকে নিয়ে এসেছি। পরীক্ষা -নিরাক্ষার জন্য কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। এখানের লাইব্রেরি থাকায় বই পড়ে সময় পার করছি। এখানের বইগুলো সব স্বাস্থ্য সেবামূলক লেখা। অল্প সময়ে বেশ কিছু জানতে পারলাম এতে বেশ উপকৃত হবেন বলে জানান তিনি। এ প্রশংসানীয় কাজের মূল উদ্যোক্তা বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর কবির সাংবাদিকদের বলেন,অল্পসময়ে লাইব্রেরিটিতে পাঠকের বেশ সাড়া পড়েছে। প্রতিদিন রোগী এবং রোগীর সঙ্গে আসা তাদের স্বজন এখন বসে বই পড়েন। আমাদের চিকিৎসক হতে শুরু করে সাধারণ মানুষ সবাই যেন উপকৃত হয় এমন চিন্তা থেকে এ লাইব্রেরি স্থাপন করা হয়েছে। তিনি জানান, এখানে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সমস্যা, শিশুদের নিরাপদ এবং পুষ্টিকর খাদ্য,শিশুর স্বাস্থ্য সেবা, বার্ডফ্লু, বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের জরুরি স্বাস্থ্য তথ্যসহ বাংলায় লেখা স্বাস্থ্য সেবামূলক নানা ধরণের বই রয়েছে যা খুব প্রয়োজনীয়। কেউ চাইলে অনুমিত সাপেক্ষে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে পড়তে পারেন। পাঠকের সংখ্যা বাড়লে লাইব্রেরির পরিধি বৃদ্ধি করার পরিকল্পনা রয়েছে।