শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে ভারত

রমেন বসাক: বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। ফলে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে নতুন করে আর কোন এলসির বিপরিতে ভারত থেকে কোন পেঁয়াজ আমদানি করা যাবেনা বলে জানিয়েছেন হিলি স্থল বন্দরের পেঁয়াজ আমদানি কারকরা।

এদিকে ভারত সরকারের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের হঠকারি সিদ্ধান্তে ক্ষতির মুখে পড়েছে দেশের পেঁয়াজ আমদানি করাকরা।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানি কারকরা ভারতীয় ব্যবসায়ীদের বরাত দিয়ে জানান, পেঁয়াজ সংকটের অজুহাতে ভারত সরকার বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে পেঁয়াজ রফতানি পুরপুরি বন্ধ করে দিয়েছে।

এসংক্রান্ত নির্দেশনা পাওয়ার পর ভারতের কাষ্টমস কর্মকর্তারা বেলা ৪টা থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ রফতানি পুরপুরি বন্ধ করে দিয়েছে। পূর্বের টেন্ডার হওয়া এলসির বিপরিতেও কোন পেঁয়াজ রফতানিতে অনুমতি দিচ্ছেনা ভারতের কাষ্টমস কর্তৃপক্ষ। যদিও আজ রোববার দিনের প্রথম দিকে এবন্দর দিয়ে ১৫ টি ট্রাকে প্রায় সাড়ে তিনশ মেট্রিক টন পেঁয়াজ ভারত থেকে আমদানি হয়েছে।

এদিকে ভারত সরকারের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের ঘোষনায় বন্দরে পেঁয়াজের দাম এক লাফে ১৫ থেক ২০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল হিলি স্থলবন্দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৪৮ থেকে ৫২ টাকায় বিক্রি হলেও আজ রোববার তা বেড়ে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বন্দরের পেঁয়াজ পাইকার সাইফুল ইসলাম জানান, শনিবার আমরা ৪৮ টাকা থেকে ৫০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনেছি, কিন্ত আজ শুনাতেছি ভারত সরকার পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় পেঁয়াজের দাম হাকাচ্ছেন আমদানিকারকরা।

আমদানিকারক নাজমুল হোসেন জানান, আজ দুপুর ২ টায় ওপারের এক্সপোর্টাররা (ভারত হিলি) জানান, তারা আর পেঁয়াজ রফতানি করবেনা জানিয়ে দেন। এ ছাড়াও পাইপলাইনে পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাকগুলো বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

হিলি স্থলবন্দরের কাঁচামাল আমাদনিকারক গ্রুপের সভাপতি মো. হারুন উর রশিদ হারুন জানান, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি অব্যহত ছিল। আমারা প্রচুর পরিমাণে এলসি জমাদিয়ে এক্সপোর্টারদের চাপ সৃষ্টি করে প্রচুর পেঁয়াজ আমদানি করছিলাম। ফলে দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছিল। আজ হঠাতকরে ভারত সরকার সীদ্ধান্ত নিয়েছে তারা আর কোন দেশে পেঁয়াজ রফতানি করবেনা।