বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাবান্ধায় সকলপ্রকার বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ: এখনো ফিরেনি সুষ্ঠ পরিবেশ

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি : বাংলাদেশের একমাত্র চর্তুদেশীয় স্থলবন্দর পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর।  এই বন্দরে বাণিজ্যের পাশাপাশি পর্যটন খাতেও বিপুল রাজস্ব আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ভারত, নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক যোগাযোগের এই স্থলবন্দরটি বর্তমানে সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এতে বন্ধ রয়েছে বন্দরের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম। তবে ইমিগ্রেসন ব্যবস্থা খোলা আছে বলে জানায় বন্দর কর্তৃপক্ষ।

১৯৯৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর নেপালের সঙ্গে এই বন্দর দিয়ে প্রথম বাণিজ্য কার্যক্রম শুরু হয়। এর পর ২০১১ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয় ভারতের সঙ্গে আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম । ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারী থেকে শুরু হয়েছে ভূটানের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম।

পরবর্তীতে লেবার হ্যান্ডেলিং ঠিকাদার, বাংলাবান্ধা ল্যান্ড পোর্ট লিমিটেড এবং আমদানি রফতানিকারকদের দ্বন্দের কারণে গত বৃৃহস্পতিবার (৩০ আগষ্ট) থেকে সকল প্রকার পণ্য আমদানি রফতানি বন্ধ হয়ে গেছে। এর আগে এই বন্দর দিয়ে সরকার লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে বেশি রাজস্ব আয় করলেও এখন বন্ধের কারণে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। সংকট নিরসনে গত বৃহষ্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জেলা প্রশাসনের আহ্বানে জরুরি বৈঠক করা হলেও চালু হয়নি বন্দরটি।

জানা যায়, গত সোমবার (১৪ মে) ‘এটিআই লিমিটেট’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে আমদানিকৃত পণ্য উঠানামার জন্য লেবার হ্যান্ডেলিংয়ের ইজারা দেয়া হয়। এরপর থেকে লেবার হেন্ডেলিং ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এটিআই, বন্দর পরিচালনা কোম্পানি বাংলাবান্ধা ল্যান্ড পোর্ট লিমিটেড এবং আমদানি রফতানিকারকদের সঙ্গে বন্দরের কুলি শ্রমিকদের শুরু হয় পণ্য উঠানামার দর নিয়ে দ্বন্দ।

সর্বশেষ একাধিক সিএন্ডএফ এজেন্ট এর কাছে বকেয়া পোর্ট চার্জসহ রাজস্ব আদায় এবং কুলি শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা আদায় নিয়ে দ্বন্দ এবং ভুটান থেকে আমদানি করা পাথর বোঝাই ১০৩টি ট্রাক বন্দরের সকারি চার্জ (ট্যারিফ) পরিশোধ না করে গেট ভেঙ্গে পণ্য খালাস করায় গত বৃৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) বন্দর কর্তৃপক্ষ অনিদৃষ্ট কালের জন্য বন্দরে সকল প্রকার আমদানি রফতানি কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে। জানা যায়, ভুটানের চালকদের কার পাশ আটকিয়ে রাখার কারণে ভুটানের চালকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে এবং বন্দর সংরক্ষীত এলাকায় তান্দব সৃষ্টি করে। পরবর্তী এই কার পাশের জন্য চালকরা বন্দর কর্তৃপক্ষদের হুমকি ও হামলার চেষ্টা চালায়। ভুটানের ট্রাক চালকরা পরবর্তী জানতে পারে যে কার পাশ সিএন্ডএফদের কাছে রয়েছে। পরে সিএন্ডএফদের সহযোগীতায় বন্দরের মূল ফটক ভেঙে তারা গাড়ি নিয়ে বন্দর এরিয়া থেকে বের হয়ে যায়।

এ ঘটনায় বৃহষ্পতিবার বিকেলে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে জরুরি বৈঠক আহ্বান করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ গোলাম আজম। জেলা প্রশাসক মোহম্মদ জহিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আমদানি রফতানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্টরা উপস্থিত না থাকায় বন্দরটি চালুর সিদ্ধান্ত ছাড়াই রাতে বৈঠকটি মূলতবি করা হয়। পরে ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

আমদানিকারকরা জানান, কয়েক মাস ধরে আমদানি রফতানি কার্যক্রম বারবার ব্যহত হচ্ছে। ইজারাদার প্রতিষ্ঠান এবং কুলি শ্রমিকদের দ্বন্দের কারণে বারবার ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। মূলত সিএন্ডএফদের একাংশ বন্দরটি অচল করার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

বন্দরের সৃষ্ট সমস্যাদি বিষয়ে স্থলবন্দরের উপ-কমিশনার হাফিজুল ইসলাম জানান, সকল সমস্যা নিরসনে আমদানিকারকদের নিয়ে গত বুধবার (২৯ আগস্ট) এক আলোচনা সভা করা হয়েছিল। আশা করেছিলাম সমস্যা নিরসনে সবাই এগিয়ে আসবে।

আমদানি রফতানিকারক এসোসিয়েশেনের সভাপতি মেহেদী হাসান খান বাবলা জানান, এটিআই লিমিটেড লেবার হ্যান্ডেলিং চুক্তি মোতাবেক কাজ করছে। সরকারি নিয়মনীতি ও সৃঙ্খলার মাধ্যমে বাংলাবান্ধা ল্যান্ড পোর্টের পরিবেশ ফিরিয়ে আনলে কুলি ও সিএন্ডএফের একাংশ এই পরিবশেটিকে নষ্ট করার জন্য নানান স্বরযন্ত্র করে। বন্দরে সৃষ্টি হয় ত্রীমূখী দ্বন্দ। এতে জেলা প্রশাসনের আহ্বানে একাধিক বৈঠকে কুলি শ্রমিকের বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এর পর কয়েকজন এজেন্ট ও সিএন্ডএফ এর কাছে বন্দরের বকেয়া পাওনা থাকায় গত বৃহস্পতিবার নতুন আমদানি করা গাড়ি গুলো থেকে নগদ টাকায় পণ্য খালাসের কথা বললে সিএন্ডএফ ও এজেন্টরা গাড়ি গুলো খালাস না করে কার পাশ আটকিয়ে রেখে বন্দরের বকেয়া বিল পরিশোধ না করে মূল ফটক ভাঙা সহ নানা সড়যন্ত্র করে।

বাংলাবান্ধা ল্যান্ড পোর্ট লিঃ এর সহকারী ম্যানেজার কাজী আল তারিফ জানান, বন্দরের সকল সমস্যা সৃষ্টি করেছে সিএন্ডএফরা। বন্দরের আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গ, বন্দর কেপিআই এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, বন্দরের গেট ভাঙচুর, অফিস ভাঙচুর, বন্দরের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের উপর হামলা ঘটনা ঘটেছে।

জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম জানান, সংকট সমাধানে বৃহস্পতিবার বিকেলে জরুরী বৈঠক ডাকার পর বন্দর কর্তৃপক্ষ, এটিআই লিমিটেড উপস্থিত থাকলেও ব্যবসায়ী প্রতিনিধি, সিএন্ডএফ এজেন্ট ও শ্রমিকরা কেউ উপস্থিত ছিল না। তিনি আরো জানান, আগে লেবার হ্যান্ডেলিং ইজারা না থাকায় সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়েছে। বন্দরে হামলা, অফিস ভাঙচুরের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে সব পক্ষকে নিয়ে নিয়মনীতি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বন্দরটি দ্রুত সচল করা সম্ভব হবে।