বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলায় হাসি, বাংলায় কাঁদি-প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষ একসঙ্গে এ উৎসব উদযাপন করে। বিদেশে এ উৎসব করা হয়। এমনকি গ্রামপর্যায়েও এ উৎসব উদযাপন করা হয় এখন। সবাই মন খুলে একাত্ম হয়ে যাতে এ উৎসব পালন করতে পারে আমরা সে ব্যবস্থা করেছি। গত বছর থেকে আমরা নববর্ষে ভাতার ব্যবস্থা করেছি।

শনিবার গণভবনে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, পৃথিবীতে অনেক দেশ আছে। সব দেশেই নববর্ষের অনুষ্ঠান হয়। কিন্তু ভাষাভিত্তিক রাষ্ট্র এ উপমহাদেশে শুধু বাংলাদেশ। আমরা বাংলা ভাষায় কথা বলি, বাংলায় হাসি, বাংলায় কাঁদি, বাংলায় জীবন চর্চা করি।

তিনি বলেন, আমাদের সজাগ থাকতে হবে যাতে দেশে এমন কোনো অশুভ শক্তি না আসে যারা সমাজ, ধর্ম ও সংস্কৃতির ওপর আঘাত করতে পারে। এমন কোনো শক্তিকে বাংলাদেশের ক্ষমতায় আসতে দেওয়া যাবে না। কারণ বাংলা আমাদের দেশ, এখানে কোনো অপশক্তি থাকতে পারে না।

বর্ষবরণে বিএনপি সরকারের বাধার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯২ সালে আমরা ১৪০০ বঙ্গাব্দকে বরণ করতে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলাম। কিন্তু সেখানে তৎকালীন খালেদা জিয়া সরকার বাধা দেয়। আমরা কবি সুফিয়া কামালকে নিয়ে সেসব বাধা উপেক্ষা করে রমনা পার্কে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নতুন শতাব্দীকে স্মরণ করি।

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলব। সব বাঙালি ঐক্যবদ্ধভাবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবে।

এ সময় ভবিষ্যতে যাতে কোনো অশুভ শক্তি ক্ষমতায় আসতে না পারে সে জন্য সবাইকে সজাগ থাকতে আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।