মঙ্গলবার ২২ মে ২০১৮ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাবার জন্য ছেলের দেয়া বাঁশের মাচায় ঝুপড়ি ঘর

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ সন্তান জন্মের পর প্রতিটি পরিবারে লোকজন আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে থাকে। সন্তান একদিন বড় হবে। বাবা-মায়ের সেবা করবে। দায়িত্ব নেবে বাবা-মায়ের। এমন নানান স্বপ্নের বীজ বুনতে থাকে অনেকে। এটি আমাদের সমাজ ব্যবস্থার প্রচলিত নিয়ম। কিন্তু প্রকৃত পক্ষে বাবা-মা কখনো প্রতিদানের জন্য বরং সন্তানদের জন্য কিছু বিলিন করে দেয়। ভবিষ্যতে সন্তানরা যেন সুখে থাকে। কোন কষ্ট যেন সন্তানদের স্পর্শ করতে না পারে। কিন্তু যে বাবা সন্তানদের জন্য এতো কষ্ট করে। নিজে অভূক্ত থেকে ছেলেকে খাওয়ায়। বয়সের ভারে নুইয়ে পড়া বয়সে সেই বাবার স্থান হয়েছে বাঁশবাগানের নীচে বাঁশের মাচার উপর ঝুপড়ি ঘরে। আর বৃদ্ধ পিতাকে ঝুপড়ি ঘরে রেখে স্ত্রী সন্তান নিয়ে নিজেরা থাকছেন টিনের ঘরে।

ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের রাজীবপুর গ্রামে। ক্ষোভে দুঃখে হতভাগা বাবা গাঠি মোহাম্মদ কাঁদলেও বাবার কষ্টে কাঁদছে না একমাত্র সন্তান মহির উদ্দিন।

জানা গেছে, স্ত্রী এবং দুই ছেলে এক মেয়ে নিয়ে মহির উদ্দিনের সংসারে বেশ সুখেই কাটছিল। গাঠি মোহাম্মদের স্ত্রী মারা যাওয়ার পর তার ঠাই হয় একমাত্র ছেলে মহির উদ্দিনের কাছে। কিন্তু স্ত্রী মৃত্যুর পর ধীরে ধীরে পৃথিবীটা রঙ্গিন হতে থাকে গাঠি মোহাম্মদের কাছে। শ্বশুরকে বাড়ী ছাড়া করার জন্য শুরু হয় ছেলের বৌয়ের নানা চক্রান্ত। এক সময় সেই চক্রান্তে যোগ দেয় একমাত্র সন্তান মহির উদ্দিন। নিরুপায় হয়ে ৬মাস আগে ছেলের দেওয়া বাড়ীর পাশে বাঁশবাগানের সাথে একটি বাঁশের মাচায় পলেথিন আর প্লাস্টিক বস্তার তৈরী ঝুপড়ি ঘরে শুরু করে। অথচ বাবার ঝুপড়ির পাশে টিনের ঘরে স্ত্রী সন্তান নিয়ে মনের সুখে দিন কাটাচ্ছেন একমাত্র মহির উদ্দিন ।

এ ব্যাপারে গাঠি মোহাম্মদ বলেন, বাবা মৃত্যু যেন আমাকে ভূলে গেছেন। তা হলে এই বয়সেও আমার মৃত্যু হয় না। ঝুপড়ি মধ্যে এতো কষ্ট যে এখানেই পায়খানা। আর পায়খানা জমা হয় মাচার নীচে। এই বয়সে এতো কষ্টে কি জীবন চলে। ছেলে এবং বৌমা দুর্ব্যবহারে ঘর ছেড়েছি। এতে কষ্টের ছেয়ে লজ্জাটাই বেশি। কথা বলতে বলতে তিনি কেঁদে ফেলে

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছেলে মহির উদ্দিন জানান, বাবাকে ঘরে রাখতে চেষ্টার কোন ক্রুটি করিনি। কিন্তু উনি স্বইচ্চায় ঘর ছেড়েছেন। তবে ছেলের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মহিরকে তার বাবার মুখোমুখী করা হলে তিনি দ্বীপ্ত কন্ঠে উচ্চারণ করেন, ছেলে এবং বৌমা দুর্ব্যবহারে ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছি।

এ ব্যাপারে কথা হয় পাল্টাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ কাঞ্চু জানান, গাঠি মোহাম্মদকে সমাজ সেবা কার্যালয় হতে বয়স্ক ভাতা প্রদান করা হয়। তবে বৃদ্ধ পিতাকে ঝুপড়ি ঘরে রেখে স্ত্রী সন্তান নিয়ে নিজেরা থাকছেন টিনের ঘরে থাকছেন বিষয়টি আমার বোধগম্য। এ ব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে গাঠু মোহাম্মদের জন্য যা করনীয় তাই করা হবে।

হতভাগা বাবার এই দুর্বস্থার কথা জানতে পেরে ছুটে যায় বীরমুক্তিযোদ্ধা কৃষিবিদ আব্দুল খালেক সরকার।

তিনি জানান, গাঠি মোহাম্মদের করুন অবস্থা এবং তার যে আকুতি আমাকে আবেগ তাড়িত করেছে। ১৯৭১সালে আমিও যুদ্ধে ছুটে গিয়েছিলাম আমাদের আগামী প্রজন্মের কথা ভেবে। আমাদের সন্তানদের কথা ভেবে। এখন দেখছি যে সন্তানদের কথা আমরা ভেবে জীবন বাজী রেখে যুদ্ধ করেছিলাম। আজ সেই সন্তানদের বিরুদ্ধে নতুন করে সামাজিক যুদ্ধ করতে হবে। এই ঘটনাটি আমাকে লজ্বা দিয়েছে। আমাকে ভাবিয়ে তুলেছে। কি চেয়েছিলাম আর কি পেলাম।

বীরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ দুলাল হক জানান, বিষয়টি আমরা বুধবার দুপুরে জেনেছি। এ ব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।