বুধবার ২১ অগাস্ট ২০১৯ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

‘বারী আম-৪’ জাতে আম চাষ করে ব্যাপক লাভবান কৃষক একরামুল

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর থেকে ॥ উৎপাদন খরচ কম এবং মুনাফা বেশি আবার উৎপাদনে সময় লাগে কম, ফলন হয় ভালো এবং স্বাদে খুব ভাল “বারি আম-৪”। এই জাতের আম চাষের ফলন দেখে অনেকে বাগান করতে আগ্রহী হচ্ছেন।

“বারি আম-৪” জাতের আম চাষ করে সবার দৃষ্টি কেড়েছেন দিনাজপুরের বীরগঞ্জের উদ্যোক্তা কৃষক মোঃ একরামুল হোসেন।

“বারি আম-৪” জাতের গাছের আকার ছোট কিন্তু ফলন অনেক বেশী এবং বড়। আমের ভারে গাছের ডাল ন্যুয়ে পড়ছে। আমের সাইজ অনেক বড় (৬শ গ্রাম) এবং দেখতে বেশ সুন্দর ও স্বাদের। আমের মওসুম শেষের দিকে এই আম পাকায় বিক্রি করে ব্যাপক লাভবান হওয়া যায় বলে জানান কৃষক মোঃ একরামুল হোসেন।

বীরগঞ্জ কৃষি অফিস জানায়, রাজস্বখাতের অর্থায়নে প্রযুক্তি প্রবর্তন ও সম্প্রসারণ কার্যক্রম এর আওয়াতায় ২০১৬-১৭সালের অর্থবছরে উপজেলা কৃষি অফিস হতে উদ্যোক্তা কৃষক মোঃ একরামুল হোসেনকে ৫০শতক জমির জন্য প্রদর্শী প্লট হিসেবে ৬০টি বারী আম-৪ জাতের চারা প্রদান করা হয়।

উদ্যোক্তা কৃষক মোঃ একরামুল হোসেন জানান, আমার ৫০শতক জমিতে ৬০টি “বারি আম-৪” জাতের গাছ লাগিয়েছি। ২০১৭ সালে এ গাছের চারা রোপন করা হয়। গত বছর আমের ফলন এলেও নিয়ম অনুযায়ী আমের মুকুল ভেঙ্গে দেয়া হয়। এবং এ বছর থেকে প্রথম বারের মতো ফলন তোলা হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে এ জাতের আম বিক্রি করতে পারবো। ফলনও বেশি হয়েছে। আশা করা হচ্ছে ৬০-৭০হাজার টাকা লাভ করতে পারবো। আগামীতে এসব গাছে আরও ফলন বাড়বে বলে জানায় কৃষি অফিস। এসব বাগানে অন্যান্য চাষও করা করা যায়। স্ববজী চাষও করেছি।

তিনি আরও জানান, এই জাতের আম কাঁচাতেও অনেক সুস্বাদু। পাকলে এই আমের সাথে অন্য আমের স্বাদের তুলনা হয়না। পোকা মুক্ত থাকায় বারি আম-৪ এর প্রতি সবার আগ্রহ জন্মেছে।

তবে এই আমের বৈশিষ্ট্য হলো এটি পাকতে একটু সময় লাগে। বাজারে যখন আমের যোগান আর থাকেনা অর্থাৎ আমের মওসুম যখন প্রায় শেষ তখন ‘বারি আম-৪’ পরিপক্ক হয়। তাই এই আমের বিক্রয় মূল্যও বেশি পাওয়া যায়। সাধারণ আমের চেয়ে ‘বারি আম-৪’ এর বাগান করে যে কেউ লাভবান হতে পারবেন বলে তিনি জানান। বীরগঞ্জ কৃষি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘বারি আম-৪ (হাইব্রিড)’ নিয়মিত ফলদানকারী উচ্চ ফলনশীল নাবী জাত। গাছ বড়। ফাল্গুন মাসে গাছে মুকুল আসে এবং আষাঢ় মাসের শেষের দিকে ফল আহরণ উপযোগী হয়। ফল আকারে বেশ বড়, প্রায় গোলাকার ও লাল আভাসহ সবুজ বর্ণের। ফলের শাঁস গাঢ় হলদে বর্ণের, আঁশহীন, রসালো, খেতে খুব মিষ্টি। জ্যৈষ্ঠ-আষাঢ় মাসে গাছ রোপণের উপযুক্ত সময়। ভাদ্র-আশ্বিন মাসেও গাছ লাগানো যায়। আষাঢ় মাসের শেষের দিকে এসব ফল আহরণ উপযোগী হয়। এতে দামও ভাল পাওয়া যায়।