সোমবার ৩০ মার্চ ২০২০ ১৬ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাসদের ১৬ নেতার বহিষ্কারাদেশ দিনাজপুর জেলা শাখার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

অজয় রায়॥১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১ টায় বাসদ(মার্কসবাদী) দিনাজপুর জেলার সমন্বয়ক কমরেড রেজাউল ইসলাম(সবুজ) ,সদস্য কৈলাস চন্দ্র রায় , মাসুমা আকতার,এ,এস,এম,মনিরুজ্জামান এক যুক্ত বিবৃতিতে বাসদ(মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির একাংশ কতৃক  কমিটির সদস্য কমরেড শুভ্রংশু চক্রবর্তীকে তথাকথিত শৃংখলা ভংগের অযুহাতে কারণ দর্শনোর অযৗক্তিক নোটিশ প্রদান এবং কেন্দ্রীয় নির্ধারিত ফোরামের ১৬ জন নেতার নামে যে বহিষ্কারাদেশ প্রদান করা হয়েছে তা প্রত্যাখান করেন এবং কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির এই অযৌক্তিক সীদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন ২০১৩ সালে বাসদ নেতৃত্বের অ-মার্কসবাদী চিন্তা পদ্ধতি ও আমলাতান্ত্রিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সারাদেশে বিরাট সংখ্যক নেতা কর্মী দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশের মাটিতে সর্বহারা শ্রেণীর একটি যথার্থ বিপ্লবী দল গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে । সেই লক্ষ্যে বাসদ(মার্কসবাদী ) গঠনের শুরু থেকে নেতা-কর্মীদের পক্ষ থেকে অতীত দিনের ভুলের পর্যালোচনা ও মূল্যায়নের ভিত্তিতে পার্টি প্রক্রিয়া শুরু করার আহ্বান জানানো হয় । দীর্ঘ সময় পর অতীত কর্মকান্ডের মূল্যায়ন করার সময় ২০১৮ সালে  বাসদ(মার্কসবদী) কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির নেতৃত্বের একাংশ সারাদেশের নেতাকর্মীদের মতামত উপেক্ষা করে কেন্দ্রীয় ক্ষমতাবলে  বাসদ দলের অভ্যন্তরে “ দুই লাইনের ”  কল্পিত সংগ্রামের কথা উল্লেখ করেন । এর মধ্য দিয়ে অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে  সর্বহারা শ্রেণরি সঠিক রাজনৈতিক দল গড়ে তোলার সম্ভাবনাকে বাধগ্রস্থ করা হয় ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, দেশের শ্রমজীবী সাধারন মানুষ যখন তীব্র শোষণ-লুটপাট ও ফ্যাসীবাদী দুঃশাসনে জর্জরিত এর বিরুদ্ধে সংগ্রাম গড়ে তোলার ব্যর্থতার কার্য-কারণ চিহ্নিত করে শেষণমুক্তির সংগ্রাম এগিয়ে নেয়া দরকার । কিন্তু দলের অভ্যন্তরে নেতৃতে¦র একক ও গোষ্ঠীগত সিদ্ধান্তমাফিক দল পরিচালনা, গনআন্দোলন ও শ্রেণী আন্দোলন গড়ে তোলার উদ্যোগের অনুপস্থিতি , গণতান্ত্রিক কেন্দ্রীকতার নীতি অনুসরন না করা , অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা না নেয়া । ব্যক্তিগত পছন্দের ভিত্তিতে গণসংগঠনের নেতৃত্ব নির্বাচন,ভিন্নমতকে কোনঠাসা করা , এবং সর্বশেষ কথিত শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে অব্যাহতি ও বহিষ্কারের পথেই নেতৃত্বের একাংশ দল পরিচালনা করেছেন । এর প্রেক্ষিতে কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্তী ও ১৬ জন নেতা অতীতের ভুলের পর্যালোচনা করে তাদের মতামত তুলে ধরেছিলেন। এবং বর্তমান কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে অতীত দিনের ভুলের পর্যালচনা ও মূল্যায়নের ভিত্তিতে নতুন পার্টি প্রক্রিয় শুরু করার  আহ্বান জানিয়েছিলেন।   যা অত্যান্ত যৌক্তিক । কিন্তু কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটি এ মতামত গ্রহণ না করে তাদের বহিষ্কার ও শোকজের যে স্বীদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে তা অযৌক্তিক ও স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাবের বহিপ্রকাশ ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ এ বহিষ্কারাদেশ ও শোকজ প্রত্যাখান করে সারাদেশের   কর্মী-সমর্থক-শুভানুধ্যায়ীদের  মার্কসবাদ-লেনীনবাদ-শিবদাস ঘোষের চিন্তাধারার ভিত্তিতে দল গড়ার সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email