শুক্রবার ২৭ এপ্রিল ২০১৮ ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিদায় ১৪২৪। আজ চৈত্রসংক্রান্তি

১৪২৪ বঙ্গাব্দের শেষ দিন ৩০ চৈত্র আজ। আজ বাঙালির বর্ষবিদায়ের দিন চৈত্রসংক্রান্তি। চৈত্রের শেষ দিন। ঋতুরাজ বসন্তেরও। অমোঘ সেই নিয়ম মেনে বিদায় নিচ্ছে আরো একটি বছর। বসন্তকে বিদায় জানিয়ে আসবে নতুন বছরের ১লা বৈশাখ

শেকড় সন্ধানী মানুষ বর্ণাঢ্য আয়োজনে আজ উদযাপন করবে চৈত্রসংক্রান্তির পার্বণ। একই সঙ্গে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর প্রস্তুতি সম্পন্ন করবে সারা দেশ। পহেলা বৈশাখকে বরণ করার জন্য চলছে দেশজুড়ে উৎসবের প্রস্তুতি। এখন শেষ পর্যায়ে। চৈত্রসংক্রান্তি উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে

চৈত্রসংক্রান্তির আরেকটি বড় উৎসবচড়ক চৈত্র মাসজুড়ে সন্ন্যাসীরা উপবাস, ভিক্ষান্নভোজন প্রভৃতি নিয়ম পালন করেন। সংক্রান্তির দিন তারা শূলফোঁড়া, বাণফোঁড়া বড়শিগাঁথা অবস্থায় চড়কগাছে ঝোলেন। আগুনের ওপর দিয়ে হাঁটেন। ভয়ংকর কষ্টসাধ্য শারীরিক কসরত দেখতে সকল ধর্ম বর্ণের মানুষ এসে জড়ো হন। আনন্দে মাতেন। আয়োজনের সঙ্গে আরো চলে গাজনের মেলা। এসব মেলার সঙ্গে বিভিন্ন পৌরাণিক লৌকিক দেবতার নাম সম্পৃক্ত। যেমনশিবের গাজন, ধর্মের গাজন, নীলের গাজন ইত্যাদি

গাজনের মেলা ছাড়াও হিন্দুপ্রধান অঞ্চলে যুগ যুগ ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে চৈত্রসংক্রান্তির মেলা। মেলায় মাটি, বাঁশ, বেত, প্লাস্টিক ধাতুর তৈরি বিভিন্ন ধরনের তৈজসপত্র খেলনা ইত্যাদি বিক্রি হয়। বিভিন্ন প্রকার খাবার, মিষ্টি, দই পাওয়া যায়। একসময় মেলার বিশেষ আকর্ষণ ছিল বায়স্কোপ, সার্কাস পুতুলনাচ

এসব আকর্ষণে দূর গ্রামের দূরন্ত ছেলেমেয়েরাও মেলায় যাওয়ার বায়না ধরত। মেলা উপলক্ষে গ্রামের গৃহস্থরা মেয়ে, মেয়ের জামাই নাতিনাতনিদের আমন্ত্রণ করে বাড়ি নিয়ে আসতেন। বর্তমানে এসব আচার অনুষ্ঠানের অনেক কিছুই হারিয়ে গেছে। বদলেছে। ধরন পাল্টিয়েছে। তবে চৈত্রসংক্রান্তি উদযাপন থেমে থাকেনি। বরং নতুন নতুন উপাদান এর সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে

প্রতিবারের ন্যায় এবারও নানা আয়োজনে চৈত্রসংক্রান্তি উৎসব উদযাপন করবে বাঙালি। দেশব্যাপী থাকবে উৎসব অনুষ্ঠান