শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় রিট

01552601805_20131003003604দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই ১৫৪টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ায় গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১৯ ধারার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় একটি রিট করা হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার আবদুস সালাম সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি করেন।

১৫৪টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ার খবরের সূত্র ধরে এ রিটটি করা হয়।

আবেদনকারী খন্দকার আবদুস সালাম জানান, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১৯ ধারার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটটি করা হয়। সংবিধানে আছে, জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হবেন। এভাবে প্রার্থী নির্বাচিত করার কারণে জনগণের সম্পৃক্ততা থাকছে না।

আবেদনকারীর আইনজীবী হাসান এম এস আজিম জানান, অবকাশের পর রিট আবেদনটির শুনানি হতে পারে। ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া এ অবকাশ ১ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১৯ ধারা অনুসারে, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর বা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর একক প্রার্থী থাকলে তাঁকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা যায়। এটি সংবিধানের ৭, ১১, ২৭, ৩১, ৬৫ (২), ১২১ ও ১২২ (২) অনুচ্ছেদের পরিপন্থী। রিট আবেদনে ১৯ ধারাকে কেন এসব অনুচ্ছেদের পরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না—এ মর্মে রুল চাওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে দশম জাতীয় সংসদের নির্বাচনে ওই সব আসনে হ্যাঁ-না ভোট আয়োজনের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না—এ মর্মে রুল চাওয়া হয়। এ ছাড়া রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এসব আসনে প্রার্থীদের নির্বাচিত ঘোষণা ও গেজেট প্রকাশের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়েছে।

রিট আবেদনে মন্ত্রিপরিষদসচিব, আইনসচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশন সচিবকে বিবাদী করা হয়েছে।