বুধবার ৮ জুলাই ২০২০ ২৪শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিপিএলের নয়া চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী রয়্যালস

মিরপুরের মাঠে টি-টুয়েন্টিতে ১৭১ রান বেশ চ্যালেঞ্জিং; রাজশাহী রয়্যালসের দেওয়া সে কঠিন চ্যালেঞ্জটা নিতে পারল না খুলনা টাইগার্স। এতে জিতে যায় রয়্যালস; রাজশাহী রয়্যালস। সে সঙ্গে বনে যায় বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের নতুন চ্যাম্পিয়ন। খুলনা টাইগার্সকে ২১ রানে হারিয়ে চতুর্থ দল হিসেবে শিরোপা ঘরে তুলেছে আমের স্বর্গ রাজশাহী। ঢাকা, কুমিল্লা ও রংপুরের পর চতুর্থ দল হিসেবে বিপিএলের নয়া চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী রয়্যালস। দ্বিতীয়বার ফাইনালে ওঠে শিরোপার স্বাদ পেল দলটি। 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বিশেষ আসর ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনালে মুখোমুখি হয়’ খুলনা টাইগার্স এবং রাজশাহী রয়্যালস। টস হেরে আগে ব্যাট করা রাজশাহীর সংগ্রহটা ছিল বেশ চ্যালেঞ্জিং। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৭০ রান করে আন্দ্রে রাসেলের দলটি। 

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি খুলনার। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে স্কোর বোর্ডে কোনো রান যুক্ত করার আগেই বিদায় নেন খুলনার ওপেনার ও আসরের একমাত্র বাংলাদেশি সেঞ্চুরিয়ান নাজমুল হোসেন শান্ত। 

পাকিস্তানি পেসার মোহাম্মদ ইরফানের বলে অফ সাইডে খেলতে গিয়ে ধরা পড়েন লিটন দাসের হাতে, শূন্য রানে ফিরতে হয় শান্তকে। ওপেনিং পার্টনারকে হারিয়ে এদিন আর ছন্দে থাকতে পারেননি দলটির অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। পরের ওভারেই মাত্র ২ রান করে আবু জায়েদ রাহীর বলে শোয়েব মালিকের তালু বন্দি হন এই তরুণ অলরাউন্ডার। মাত্র ১১ রানে দুই ওপেনার হারিয়ে হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে খুলনা। তবে চতুর্থ উইকেটের জুটিতে খাদের কিনারায় থাকা দলটিকে টেনে তুলেন সামসুর রহমান এবং রাইলি রুশো। এ জুটিতে আসে ৭৪ রান। 

ষষ্ঠ ওভারের চতুর্থ বলে মালিকের বলে সহজ ক্যাচ পেয়েও তা লুফে নিতে পারেননি রাহী। এতে নতুন জীবন পেয়ে হাত খুলে খেলতে থাকে রুশো। তবে এবার আর সুযোগ দেয়ননি রাজশাহীর কাপ্তান রাসেল। মোহাম্মদ নেওয়াজের বলে লং অনে খেলতে গিয়ে রাসের হাতে ধরা পড়েন রুশো। ফিরে যান ব্যক্তিগত ৩৭ রানে। রুশোর সঙ্গে লম্বা জুটি গড়া সামসুর তুলে নেন আসরে নিজের দ্বিতীয় অর্ধশতক। তবে সেটা আর লম্বা করা হলো না তার। ব্যাক্তিগত ৫২ রানে কামরুল ইসলাম রাব্বির প্রথম শিকার হিসেবে আফিফের তালু বন্দি হন। ৪৩ বলে খেলেন ৪ চার ও ২ ছক্কার ইনিংস। 

ইনিংসের ১৪তম ওভারটি ছিল খুলনার পরাজয়ের ওভার। এই ওভারের পঞ্চম বলে রাব্বির দ্বিতীয় শিকার হন নাজিবউল্লা জাদরান। তারপর মুশফিক ও ফ্রাইলিংক জুটি গড়েন ২৭ রানের। ষষ্ঠ উইকেটের জুটিটি জয়ের স্বপ্ন দেখালেও অধিনায়ক মুশফিকের বিদায়ের পর কাজটি হয়ে উঠে মহা কঠিন। রাজশাহীর অধিনায়ক রাসেলের বলে সরাসরি বোল্ড হন মুশফিক (২১)।  মুশফিকের বিদায়ের পর পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যায় তার দলের। ইরফানের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরেন ফ্রাইলিংক (১২)। 

রাজশাহীর পক্ষে মোহাম্মদ ইরফান ও কামরুল ইসলাম রাব্বি নেন দুইটি করে উইকেট। এছাড়াও রাহী, রাসেল ও নেওয়াজ নেন একটি করে উইকেট।

এর আগে টস জিতে রাজশাহীকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান খুলনার অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। ব্যাটিংয়ে নেমে রাজশাহীকে ভালো শুরু এনে দিতে ব্যর্থ হয় ওপেনিং জুটি। স্কোরবোর্ডে মাত্র ১৪ রান ওঠতেই সাজঘরে ফেরেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। ফেরার আগে তিনি করেন ৮ বলে ১০ রান। খুলনাকে প্রথম সাফল্য এনে দেন কোয়ালিফায়ারে দলটির জয়ের নায়ক মোহাম্মদ আমির। 

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে বিপর্যয় সামাল দেন লিটন দাস ও ইরফান শুক্কুর। এ জুটিতে আসে ৪৯ রান। তাদের জুটি ভেঙে খুলনাকে আবারও ম্যাচে ফেরান শহিদুল ইসলাম। বিপর্যয় সামাল দিলেও লিটনের ধীরগতির ব্যাটিংয়ে ৬৪ রান তুলতেই ৯ ওভারের বেশি খেলতে হয় রাজশাহীকে। ২৮ বলে ১ চার ও ১ ছয়ে ২৫ রান করেন লিটন।

শোয়েব মালিক ক্রিজে এলে হাত খুলে খেলতে শুরু করেন শুক্কুর। মালিক ও শুক্কুরের জুটিতে স্কোরবোর্ডে জমা হয় আরও ৩১ রান যেখানে মালিকের অবদান ১৩ বলে মাত্র ৯ রান। মালিক আউট হওয়ার পর তার পথ ধরেন শুক্কুরও। তবে আউট হওয়ার আগে তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি। দলীয় ৯৯ রানে ক্রমশ ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা শুক্কুরকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন আমির। আউট হওয়ার আগে এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান করেন ৩৫ বলে ৫২ রান। তিনি হাঁকান ৬ চার ও ২ ছক্কা।

৪ উইকেট হারানোর পরই বিধ্বংসী ব্যাটিং শুরু করে রাজশাহী। ক্রিজে এসেই হাত খুলে খেলতে থাকেন মোহাম্মদ নেওয়াজ ও আন্দ্রে রাসেল। দুইজনই খুলনার বোলারদের ওপর তাণ্ডব চালিয়ে চার-ছক্কার বন্যা বইয়ে দেন। এ জুটিতে ৩৪ বলে আসে ৭১ রান। দুইজন মিলে হাঁকান ৫টি ছয় ও ৬টি চার। নেওয়াজ ২০ বলে ৪১ ও রাসেল ১৬ বলে ২৭ রান করে অপরাজিত থাকেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email