রবিবার ১৯ অগাস্ট ২০১৮ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিরলের সিটি মরিচ এ বছরেও বাম্পার ফলন

সুবল রায়, বিরল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ঃমরিচ মানে ঝাল, তা কাঁচা হোক আর শুকনা হোক। কিন্তু সব মরিচেই ঝাঁলের মাত্রা বেশি থাকেনা। তাহলে কোন মরিচে বেশি ঝাল? এক কথায় বলতে হবে বিরলের সিটি মরিচের কথা। প্রায় শত বছর ধরে বিরলের সবর্ত্র সিটি মরিচের আবাদ হলেও সময়ের বির্বতনে এ মরিচের চাষ বিলুপ্ত হতে চলেছে। কিন্তু প্রায় শতবর্ষী এ সিটি মরিচের চাষ অব্যাহত রেখে মরিচের জাতকে ক্ষুন্ন রেখেছে, বিরলের রাণীপুকুর ইউপির জগৎপুর গ্রামের কৃষকরা।
শীতকাল মানে সিটি মরিচের মৌসুম। এখন মাঠে মাঠে মরিচের ক্ষেতগুলো থোকা থোকা কাঁচা মরিচে ভরে গেছে। দিনাজপুরের বিরল উপজেলা উর্বর (এঁটেল-দোআঁশ) মৃত্তিকা সমৃদ্ধ উপজেলা। এ উপজেলার প্রায় শত বছর থেকে আবাদ হয়ে আসা বিরলের সিটি মরিচের আবাদ এ উপজেলা থেকে এখনো পুরোপুরি বিলুপ্ত হয়নি। প্রায় ১যুগ আগে বিরলের ১০টি উপজেলায় ব্যাপকভাবে এ মরিচের চাষ হত। ছড়িয়ে-ছিটিয়ে এখানে সিটি মরিচের চাষ হলেও তার সাথে সাথী ফসল হিসেবে মরিচের পাশাপাশী মুলা, ডাটা, বেগুন, পিয়াজ, পালন শাক আবাদ করছেন। বিরলের রানীপুকুর ইউপির জগতপুর গ্রামে এ মরিচের আবাদ চোখে পড়ার মত। এ গ্রামের প্রায় ৬০-৬৫ বিঘা জমিতে এবার সিটি মরিচের আবাদ হয়েছে।
জগতপুর গ্রামের মরিচ চাষী হাবিবুর রহমান জানান, আমার (বাপÑদাদা) আমল থেকে এ গ্রামে সিটি মরিচের আবাদ হয়ে আসছে। গত বছর ৫০ শতক জমিতে মরিচের আবাদ করেছিলাম। মরিচ বীজ তলা থেকে বাজারে বিক্রি পর্যন্ত উৎপাদন খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ৩০ হাজার টাকা লাভ করেছি।
মরিচ ব্যবসায়ী শাহিনুর ইসলাম জানান, শুধু দিনাজপুর জেলায় নয়, পার্শ্ববতী ঠাকুরগাঁও জেলা, রংপুর জেলা সহ বেশ কয়েকটি জেলায় এ মরিচের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সিটি মরিচ শীতকালে রবি ফসল হিসেবে উৎপাদন হওয়ার কারনে, শীত কালের তরিতরকারি রান্নায় এ মরিচ ব্যবহার করলে, তরকারিতে ভিন্ন মাত্রার স্বাদ পরিলক্ষিত হয় বলে এ মরিচের কদরও বেশি।
বিরল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, সিটি মরিচে রোগ-বালাই তেমন একটা না হলেও প্রচন্ড শীতের কারণে গোঁড়া পঁচা রোগ হয়। শীতের প্রভাব কম হলে এবার ও কৃষকরা বাম্পার ফলন পাবে বলে তারা মনে করেন।
প্রতি মৌসুমে ফলন্ত মরিচের ক্ষেত থেকে ৩ বার মরিচ সংগ্রহ করা যায়। শতক প্রতি ১ মণেরও অধিক মরিচ পাওয়া যায়। পাকা মরিচ শুকিয়ে সংরক্ষণ করে সারা বছর তরকারিতে বিশেষ করে যে কোন মাছ, মাংস রান্ন্ায় ব্যবহার করা হয়।