শুক্রবার ২০ জুলাই ২০১৮ ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিরলে আমের বাম্পার ফলন ॥ ব্যাগিং পদ্ধতিতে আমচাষে উদ্ধুত করছে কৃষি বিভাগ

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর) ॥বিরলে এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষে কৃষকদের উদ্ধুত করছে কৃষি বিভাগ। ফলন বেশী হওয়ায় বাজারে প্রচুর আম উঠতে শুরু করেছে। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে আমচাষী, খুচরা বিক্রতা ও পাইকারী বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে এধরনের তথ্য মিলেছে। তবে প্রশাসনিক নজরদারীতে এবার আমে ভেজাল কেমিক্যাল বা রাসায়নিক পদার্থ প্রয়োগের কোন সুযোগ মিলেনি অসাধূ ব্যবসায়ীদের।
আমচাষী বিরল (সদর) ইউপি’র পুরিয়া গ্রামের কৃষক মতিউর রহমান, রাণীপুকুর গ্রামের আকবর আলী, ধামইর ইউপি’র সাবেক ইউপি সদস্য লাইছুর রহমানসহ অনেকে জানান, আম গাছে মুকুল আসার সময়ই বেশিরভাগ বাগান ক্রয় করে থাকেন বিভিন্ন জেলার আম ব্যবসায়ীরা। উনারা আমের ফলন বৃদ্ধির লক্ষ্যে পরিচর্যা শুরু করেন। পর্যাপ্ত পরিচর্যায় আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে বাম্পার ফলন হয়।
উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ মাহবুবুর রহমান জানান, বিরল উপজেলায় প্রায় ৫ শত হেক্টর জমিতে ছোট-বড় শতাধিক আম বাগান রয়েছে। এ উপজেলায় বারি-৪, সূর্যকুড়ি, মিশ্রিভোগ, আ¤্রপালি, গুটি ও হাড়িভাঙ্গা জাতের আম চাষ হয়েছে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে। এছাড়াও ফজলি, লেংড়া, গোপালভোগসহ অন্যান্য জাতের আম খুবই কম পরিমাণে চাষাবাদ হয়।
এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বাসা-বাড়ীসহ বাগানগুলোতে পর্যাপ্ত ফলন হয়েছে। রোগবালাই না থাকায় অধিক ফলন সম্ভব হয়েছে। পারিবারিক চাহিদা পূরণ হওয়ায় স্থানীয়ভাবে আমের চাহিদা কমে গেছে। দেশের যে সকল অঞ্চলে আম উৎপাদন কম, সে সকল অঞ্চলে আম বাজারজাত করে কাঙ্খিত মূল্য পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এ বছর প্রায় ৮ বিঘা জমিতে ৮ টি পৃথক পৃথক বাগানে ব্যাগিং পদ্ধতিতে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদের সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে আম উদপাদন করা হয়েছে। ব্যাগিং পদ্ধতি অনুসরণ করায় আমের আকার এবং রং খুবই সুন্দর হয়েছে। আগামী বছর বিষমুক্ত আম উৎপাদনে আরো বেশি আমচাষীকে উৎসাহ প্রদান করা হবে।
বিরল উপজেলায় কোন হিমাগার না থাকায় সরকারী ও বে-সরকারীভাবে হিমাগার স্থাপনে ব্যবস্থা গ্রহণে তিনি সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।
ৃৃৃ