রবিবার ২৫ অগাস্ট ২০১৯ ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরে গ্রাম বিকাশের কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের বিরামপুরে জোতবানি ইউনিয়নের ধনসা এলাকায় গ্রাম বিকাশের পেইস প্রকল্পের আওতায় ” সুগন্ধী ব্রি-ধান ৫০ জাতের উৎপাদন বৃদ্ধি ও উৎপাদন ব্যয়হ্রাসের মাধ্যমে উদ্যোক্তাদের আয়বৃদ্ধি ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন ” শীর্ষক ভ্যালুচেইন প্রকল্পের সদস্যদের নিয়ে কৃষক মাঠদিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ সময় কৃষক জাহাঙ্গীর আলমের জমিতে সুগন্ধী ব্রি- ৫০ ধান জাত চাষে গ্রাম বিকাশ প্রকল্পের প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রতি ১ শতাংশ জমির ধান কেটে মাড়াইকরে ২৮ কেজি হারে পাওয়া গেছে। অন্যান্য জাতের ধানের তুলনায় ফলন ও বিক্রয়মুল্য বেশী হওয়ায় কৃষকরা আনন্দিত।

১৫ মে বুধবার বিকেলে ইউপি সদস্য আব্দুর রহমান মন্জুরুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র্র (জিবিকে), হলদীবাড়ী, পার্বতীপুর এর বাস্তবায়নে ও পল্লীকর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএস এফ) ঢাকা এর সহযোগিতায় উক্ত মাঠ দিবসে ব্রি-ধান ৫০ জাত উৎপাদনে উন্নত কলাকৌশল প্রদর্শণীপ্লট এর মাঠ দিবসের অনু্ষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গ্রাম বিকাশ খাবার এভিসিএফ শাহ্জাহান সরদার, সমিতির সদস্য মিয়ার রহমান, তৈমুর রহমান, আনিসুর রহমান, ফাহমিদা আকতার, মৌসুমী বেগম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ব্রি-ধান ৫০ সুগন্ধী জাত চাষে ফলন বেশী হয়। বাজারে এ ধানের চাহিদা ও বিক্রয়মুল্য অনেক রয়েছে। একটি করে চারা সারিতে রোপন পদ্ধতিতে চারা কমলাগে। এ ছাড়া ফসলের জমিতে এ পদ্ধতিতে চারা রোপনে পোকামাকড়ের উপদ্রব কমহয়, রোগ বালাইমুক্ত থাকে ও ফসলের জমিতে আলোবাতাস বেশী পায়। ধানের বাজারমুল্য চাঙ্গা থাকলে আগামীতে এই জাতের ধান চাষ বেড়ে যাবে বলে তাঁরা জানিয়েছেন।