শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিশ্বজিৎ হত্যা : ৮ ছাত্রলীগ ক্যাডারের ফাঁসি, যাবজ্জীবন ১৩

ডেক্স নিউজ : বহুল আলোচিত বিশ্বজিৎ হত্যা মামলায় ৮ ছাত্রলীগ ক্যাডারকে ফাঁসি ও ১৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার দুপুরে ঢাকার দ্রুত বিচার টাইবুনাল-৪ এর বিচারক এবিএম নিজামুল হক এই রায় ঘোষনা করেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা সকলেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতা ও কর্মী।

যে ৮ জনকে ফাঁসি দেয়া হয়েছে তারা হলেন, ছাত্রলীগের ক্যাডার রফিকুল ইসলাম শাকিল ওরফে চাপাতি শাকিল, এমদাদুল হক এ1387348971bishwajitমদাদ, মাহফুজুর রহমান নাহিদ, কাইয়ুম মিয়া টিপু, সাইফুল ইসলাম, জিএম রাশেদুজ্জামান শাওন, রাজন তালুকদার ও মীর মোহাম্মদ নূরে আলম লিমন। অন্যদিকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডপ্রাপ্তরা হলেন, ইমরান হোসেন ইমরান, ওবায়দুল কাদের তাহসিন, আজিজুর রহমান আজিজ, আল আমিন শেখ, রফিকুল ইসলাম, গোলাম মোস্তফা, আলাউদ্দিন, মনিরুল হক পাভেল, মোশারফ হোসেন, কামরুল হাসান, এইচএম কিবরিয়া, তারিক বিন জোহর তমাল ও খন্দকার মো. ইউনুস আলী। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে।
হত্যার এক বছর ১০দিনের মাথায় এই রায় ঘোষনা করলেন আদালত।

বহুল আলোচিত এই হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ২১ জনের সবাইকে সাজা দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ১৩ জন পলাতক রয়েছেন। এদের বিরুদ্ধে আগেই গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। পলাতকদের অনুপস্থিতিতেই তাদের সাজা দেয়া হয়। রায় ঘোষনার সময় ৮জন আসামি কাঁঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

গতবছর ৮ ডিসেম্বর বিরোধী জোটের অবরোধ কর্মসূচী চলাকালে পুরানো ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্কের সামনে ছাত্রলীগের নেতা ও কর্মীরা টেইলার্স কর্মচারী বিশ্বজিৎ দাসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। ওইদিনই রাতে  অজ্ঞাতনামা ২৫ জনকে আসামি করে সুত্রাপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে পুলিশ। মামলাটি পরে গোয়েন্দা পুলিশে হস্তান্তর করা হয়। তদন্ত শেষে ৪ জনকে অব্যাহতি দিয়ে ২১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন গোয়েন্দা পুলিশের (দক্ষিণ) ইন্সপেক্টর তাজুল ইসলাম। ২৬ মে আসামিদের বিরুদ্ধে দ-বিধির ৩০২ ও ৩৪ ধারায় অভিযোগ গঠন করা হয়।
বিচার চলাকালে রাষ্ট্রপক্ষ বিশ্বজিতের বাবাসহ ৩৩ জনকে সাক্ষী হিসেবে উপস্থাপন করে। উভয় পক্ষের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রাষ্ট্রপক্ষ গত ২৭ নভেম্বর যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করে। এরপর কারাগারে আটক আট আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন তাঁদের আইজীবীরা। পলাতক ১৩ আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবীরা। রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষ সব মিলিয়ে পাঁচ দিন যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে।