বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মেধাবী বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “আমাদের ছেলেমেয়েরা এতো মেধাবী, আমি মনে করি বিশ্বে বাংলাদেশের ছেলেমেয়েরা সবচেয়ে বেশি মেধাবী।

রবিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে দেশব্যাপী সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ২০১৮ প্রতিযোগিতায় জাতীয় বিভাগীয় পর্যায়ের সেরা মেধাবীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি মন্তব্য করেন

অনুষ্ঠানে জাতীয় পর্যায়ের ১২ জন এবং বিভাগীয় পর্যায়ের ১০৬ জন সেরা মেধাবীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। জাতীয় পর্যায়ের সেরা ১২ মেধাবী শিক্ষার্থী জুলাই পাঁচদিনের শিক্ষা সফরে তুরস্ক যাবেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “আমাদের ছেলেমেয়েদের একটু সুযোগ করে দিলে তারা অত্যন্ত ভালো করে। আমাদের ছেলেমেয়েদের আমরা সেভাবেই গড়তে চাই যেন আগামী দিনে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিযোগিতায় তারা এগিয়ে থাকে।

তিনি আরও বলেন, “আমাদের উপযুক্ত জনবল দরকার। আজকের শিশুরাই একদিন সবকিছু পরিচালনা করবে। সেই সুযোগটাই আমরা সৃষ্টি করতে চাই। সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন, জ্ঞানবিজ্ঞানভিত্তিক একটি জাতি আমরা গড়ে তুলতে চাই। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করছি।

সবাইকে মন দিয়ে পড়াশোনা করার তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি বিশ্বাস করি শিক্ষাটাই সবচেয়ে বড় সম্পদ। আমি এবং রেহানা আমাদের ছেলেমেয়েদের একটা কথাই বলি, একটাই সম্পদ সেটা হচ্ছে শিক্ষা। তোমরা লেখাপড়া শিখবে, মানুষের মতো মানুষ হবে।

তিনি বলেন, “সবাইকে একটা কথাই বলবো শিক্ষাটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় সম্পদ। এর চেয়ে বড় সম্পদ আর কিছু না। এই সম্পদ কেউ কেড়ে নিতে পারবে না, ছিনতাই করতে পারবে না। শিক্ষাটা যদি থাকে জীবনটাকে সুন্দরভাবে পরিচালনা করা যায়। আমরা বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই। আর দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষাটাই হচ্ছে মূল হাতিয়ার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষার সামগ্রিক মানোন্নয়নে কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তিনি কুদরত-ই-খুদা কমিশন গঠন করেছিলেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। এরপর শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সবদিক থেকে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়। পঁচাত্তরের পর অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীরা শিক্ষার মানোন্নয়নে কোনো কাজ করেনি। তারা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয়।

আধুনিক বিজ্ঞান শিক্ষাকে গুরুত্ব দেয়ার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, সারাবিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের ছেলেমেয়েদের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য নতুন নতুন বিষয় সংযোগ করতে হবে।

দেশব্যাপী সুপ্ত প্রতিভার খোঁজে ষষ্ঠবারের মতো বিভিন্ন উপজেলা, জেলা ও বিভাগ পর্যায়ে অংশ নেয়ার পর জাতীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয় চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা।

এবারের প্রতিযোগিতায় ১০৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে সেরা ১২ জনকে বাছাই করা হয়েছে। এ প্রতিযোগিতায় ষষ্ঠ থেকে অষ্টম, নবম থেকে দশম এবং একাদশ থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে ভাগ হয়ে তিনটি গ্রুপের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়।