বৃহস্পতিবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাধবে কে?

ঈদের ছুটি শেষ তাই ছুটিতে গ্রামে কাটানো দিনগুলিন স্মৃতি পিছনে ফেলে গতকাল ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ থেকে ঢাকায় এসেছি কিছু নতুন স্মৃতি নিয়ে।

রোজিনা এসি কোচ ন্যাশনাল ট্রাভেলস এর গাড়ি।রোজিনার ব্যানারে শুধুমাত্র ঈদের জন্য ঢাকা পীরগঞ্জ ঢাকা চলাচল করছে পীরগঞ্জ রানিশৈংকইলবাসীর সুবিধার জন্য।এতে আমরাও খুশি।যেখানে টিকেট মহামুল্যবান, সেখানে আমরা স্থানীয় এজেন্ট মিজান অথবা পলাশকে বলে রাখলেই টিকেট পেয়ে যাচ্ছি।কিন্তু আমরা গাড়ির ভিতরের অবস্হা কেউ জানিনা। জানিনা ড্রাইভার কেমন।

২২ তারিখে রাত আটটায় গাড়িতে উঠে বসলাম। আটটায় গাড়ি ছাড়ার কথা।কিছুক্ষন পর পানির বোতল দিয়ে গেল, তখনও জানতাম না ইনিই ১৮ বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন চালক। যাহোক গাড়ি চলতে শুরু করল নয়টার পর। আলি ভাইর পাম্পে এসে আমরা সবাই নেমে গেলাম। কারন গাড়িতে চালক ছাড়া কোন হেলপার, সুপারভাইজার নাই। চালক মহাশয়ের কাউকেই লাগবে না।উনি একাই নিয়ে যাবেন।

সবাই কাউন্টার থেকে হেলপার সুপারভাইজার নিয়ে এসে আমরা ফাইনাল রওয়ানা হলাম প্রায় ১১:৩০ টায়। তারপরে রাস্তায় এসির পানি পড়া থেকে শুরু করে। গাড়ি বারবার নষ্ট হওয়া, ৫/৭কি,মি স্পিডে যাওয়া, এসি বন্ধ এমন আরও অনেক কিছু আমাদের সাথে না ঘটা কোন বাদ নাই।শেষে আমাদের সাথে যা ঘটল তা আরও দুঃখজনক। হেমায়েতপুর আর আমিন বাজারের মাঝামাঝি এক থৈথৈ কাদাওয়ালা পেট্রল পাম্পে গাড়ি দাঁড় করল চালক। জানান দিল মিস্তিরি এসে স্পীড বাড়ালে তারপর যাব। তখন বাজে ৩:৩০টা।

এরমাঝে আরও অনেক ঘটনা আছে যারা আমরা ভুক্তভোগিরাই বুঝেছি। ঐতিহাসিক জার্নি করেছি আমরা প্রায় কুড়ি ঘন্টা। আমরা দেখেছি ড্রাইভার যে কত প্রকার খারাপ হতে পারে,সবগুনই বিদ্যমান ছিল।রাতের খাওয়া রাত ৩:৩০টা।সকাল আর দুপুরের কথা বাদ দিলাম। বাচ্চাদের নিয়ে কি যে এক অবস্হা। আমি আসলে এতকিছু লিখতাম না। আমি আসার সময় সুপারভাইজারকে অনুরোধ করেছি রোজিনা থেকে এসি গাড়ির টিকিটগুলো ফেরত দিতে। এই গাড়ি আবার নাইট হয়ে পীরগঞ্জ যাবে। ২০/২১ঘন্টা না খেয়ে ওইরকম লক্কর ঝক্কর গাড়ীতে জার্নি করা যে কি ভয়াবহ তা আমরা গতকাল হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছি।

আমি অবাক হচ্ছি পীরগঞ্জের মানুষ এইরকম একটা অন্যরুটের গাড়ী রোজিনার ব্যানারে চালাতে দিল। মনে হয় মিজান আর পলাশকে আর বাড়তে না দেয়া। কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা দরকার।

কিন্ত বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাধবে কে?

 

লেখক- মোছা. লিনুফার রিক্তা

ঢাকা, বাংলাদেশ।