শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিয়ের প্রলোভনে ৮ মাস ধরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ

মাহাবুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বিরামপুরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৮ মাস ধরে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া (১২) ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে একই এলাকার মহন্ত হাসদা (২৩) নামের এক যুবক।

এ ঘটনায় ওই যুবককে অভিযুক্ত করে মেয়েটির মা রবিবার (১১ আগস্ট) বিরামপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই যুবককে গ্রেফতার করে সোমবার (১২ আগস্ট) তাকে দিনাজপুর জেল হাজতে প্রেরণ করে।

বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান মনির যুবককে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বরাত দিয়ে বিরামপুর থানর ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা জানান, দীর্ঘ ৮ মাস ধরে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই স্কুল ছাত্রীটিকে ধর্ষণ করেছে মহন্ত হাসদা (২৩) নামের একই এলকার এক যুবক। পরে, মেয়েটি শনিবার (১০ আগস্ট) বিয়ের দাবি নিয়ে ওই যুবকের বাসায় গেলে তার বাবা মা মেয়েটিকে বাসা থেকে বের করে দেয়।

এ ঘটনায় রবিরার মেয়ের মা বাদি হয়ে ওই যুবককে অভিযুক্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

ধর্ষণের শিকার ওই স্কুল ছাত্রীর মা জানান,বেশ কিছু দিন ধরে ওই যুবক তার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। গত কয়েক দিন ধরে মেয়েটির শারিরিক পরিবর্তন ঘটলে তখন সে বিষয়টি পরিবারের লোকদের কাছ খুলে বলে।

মেয়েটির মা বলেন, বিষয়টি যাচায় করার জন্য শহরের একটি বে-সরকারী ক্লিনিকে আল্ট্রাস্নোগ্রাম করানো হয়। পরে রিপোর্টে মেয়েটি ৬ মাসের অন্তঃসত্তা বলে সেখানকার ডাক্তার নিশ্চিত করে।

এ ঘটনায় ওই ছেলেকে অভিযুক্ত করে বিরামপুর থানায় মামলা করলে পুলিশ ওই রাতেই তাকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।

বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন,মেয়েটির মায়ের মামলার পর ওই যুবককে গ্রেফতার করে সোমবার সকালে দিনাজপুর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ওই যুবক মেয়েটিকে ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করেছে।