রবিবার ৩১ মে ২০২০ ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিয়ের প্রলোভন দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে বিয়ের প্রলোভনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ডা. নরদেব রায় নামে এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।

ডা. নরদেব রায় পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার প্রেমবাজার এলাকার মনোরঞ্জন রায়ের ছেলে। বর্তমানে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টায় ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ওসি (তদন্ত) বজলুর রশিদ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুরের বিরল উপজেলার কাশিডাঙ্গা এলাকার ওই ভুক্তভোগী দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার সময় চিকিৎসক ডা. নরদেব রায়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। দীর্ঘ দুই বছর প্রেমের সম্পর্কের কারণে ওই চিকিৎসক একাধিকবার বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে হাসপাতালের আবাসিক কোয়ার্টারে নিয়ে গিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করেন।

ওই ছাত্রী এজাহারে উল্লেখ করেন, প্রেমের সম্পর্কের কারণে এবং বিয়ে করবে এমন প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে একাধিকবার ডা. নরদেব রায় তার নিজস্ব কোয়ার্টারে নিয়ে গিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। বিয়ের করার কথা বললে আজকাল করে কালক্ষেপণ করেন। 

সর্বশেষ গত রোববার তাকে ডা. নরদেব রায় মোবাইল ফোনে কল করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের আবাসিক এলাকার একটি কোয়ার্টারের ৪র্থ তলায় আসতে বলে। সরকারি কোয়ার্টারে দুপুর ২টার সময় ওই ছাত্রী ডা. নরদেব রায়ের কাছে যান। সেখানে গিয়ে কিছুটা সময় কাটানোর পর ডা. নরদেব রায়কে বিয়ের কথা বললে বিভিন্ন কারণে বিয়ে করতে অনীহা প্রকাশ করেন। একপর্যায়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে কোয়ার্টারের রুম থেকে ওই ছাত্রীকে বের করে দিতে চাইলে তিনি বের হননি। পরে ডা. নরদেব রায় তাকে কিল-ঘুষি মেরে কোয়ার্টার থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করে। ওই ছাত্রী ঘর থেকে বের না হতে চাইলে নিজেই ঘরে তালা লাগিয়ে পালিয়ে যান ডা. নরদেব রায়।

ওইদিন রাত ১২টার দিকে কোনো উপায় না পেয়ে ওই ছাত্রী সরকারি সেবার ৯৯৯ কল করে পুলিশের সহযোগিতা চান। পরে পুলিশ এসে রাতেই তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

ধর্ষণের বিষয়টি জানার জন্য ডা. নরদেব রায়কে ফোন করা হলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

ওই চিকিৎসকের বড় ভাই পঞ্চগড় মহিলা কলেজের প্রভাষক জয়দেব বর্মন বলেন, এটা একটা সাজানো ফাঁদ। আমার ভাই একটা চক্রান্তের মধ্যে পড়ছে। ধর্ষণের বিষয়টি ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। ওই মেয়ের সঙ্গে আমার ভাইয়ের কোনো সম্পর্ক নেই।

এ বিষয়ে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) বজলুর রশিদ জানান, একজন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা হয়েছে। বর্তমানে তিনি পলাতক আছেন। মেয়েটিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. নির্মল চন্দ্র দাস বলেন, মামলার বিষয়টি জেনেছি। তবে পুলিশ অথবা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যদি আমাদের কাছে লিখিতভাবে কিছু জানতে চায় তাহলে আমরা জানাবো।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email