মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে কবি বাবুল চৌধুরীর স্বরচিত “পিপাসিত চৈত্রের গান” কবিতার বই এর মোরক উন্মুচন ও আনুষ্ঠানিক প্রকাশ

মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ বীরগঞ্জে ২৫ সেপ্টেম্বর সকালে সভাব-কবি বাবুল চৌধুরীর স্বরচিত “পিপাসিত চৈত্রের গান” কবিতার বই এর মোরক উন্মুচন ও আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকাশ করা হয়েছে।

উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের সাতখামার গ্রাম নিজস্ব বাসভবন সংলগ্ন পুকুরপাড়েরর বাগান বাড়ীতে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান কবি বাবুল চৌধুরীর কবিতার বই “পিপাসিত চৈত্রের গান” মোরক উন্মুচন ও আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকাশ করা হয়। গোলাপগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ খলিলুর রহমান অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে সভাব-কবি বাবুল চৌধুরীর স্বরচিত কবিতার বই “পিপাসিত চৈত্রের গান” মোরক উন্মুচন করেন ও আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকাশ করা হয়। মরিচা মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রোকুনুজ্জমান চৌধুরীর মিঠুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- বীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি মোঃ আবেদ আলী, সহ-সভাপতি নাজমুল ইসলাম মিলন, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও কলামিষ্ট মোঃ মোশাররফ হোসেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক, রবিউল ইসলাম, মোঃ আব্দুল কাদের, আমিনা করিম মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কৃঞ্চ চন্দ্র সরকার, একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র দেব নাথ, পাথরঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থানেশ্বর রায়,সাতখামার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিত্যানন্দ রায়, একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফনিন্দ্র নাথ রায়, মরিচা মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ ইউসুফ আলী, সাতখামার উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মানিক চন্দ্র সরকার, ব্রজেশ্বর রায়, জাহিরুল ইসলাম ও নাগরগঞ্জ দাখিল মাদ্রাসার সহ সুপার মোঃ রশিদুল ইসলাম ও অন্যরা।

বক্তাগন উদয়মান সভাব-কবি সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করাকে ওমর (মরন উত্তর জীবিত থাকা) আখ্যা দিয়ে বলেন, এই প্রকৃতিকে খ্যাতনামা কবি-সাহিতিকের ভাবনার সাথে শতভাগ মিল রেখে পল্লী থেকে গ্রামীন বৈচিত্রকে প্রতিটি কবিতার ছন্দে ছন্দে মিল রেখে প্রেম ও ভালবাসা তথা দেশ ও জাতীকে তুলে ধরা হয়েছে। অসাধারন কবিতার বই প্রতি মাসে প্রতি বছরে রচনা করে খ্যাতনামা কবি সাহিত্যিকদের ছুয়ে দেবার আহবান জানান।

উদয়মান সভাব-কবি তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় জানান, মুলত ১৯৭১ সালে শোওয়ার ঘরে, বাগান বাড়ীতে, পুকুরপাড়ে ও নদীর ধারে বসে বসে কবিতা লিখেছি। কর্ম জীবনে শহরে বসবাস ও গ্রামে ফিরে আসা-যাওয়ার কারনে শতশত কবিতার দলিল হারিয়ে ফেলেছি। ২ বছর আগে আবার নুতন করে অবসর সময়ে কবিতা লিখা শুরু করে শতাধিক কবিতার একটি পান্ডুলিপি ঢাকার সুনামধন্য সময় প্রিন্টাস ২২৬/১ ফকিরাপুল মতিঝিল পরিচালক ফরিদ আহমেদ এর কাছে জমা দিয়েছিলাম। জমা দেয়া পান্ডুলিপি থেকে ৯৬টি কবিতা “পিপাসিত চৈত্রের গান” কবিতার বই-এ স্থান পেয়েছে।