বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে জামায়াতি ভূমি দস্যু কর্তৃক সংখ্যালঘুর জমি দখল করে ঘর-বাড়ি নির্মাণ, প্রাননাশের হুমকি

দশরথ রায় বাবুল, ষ্টাফ রিপোর্টার ॥  বীরগঞ্জে জামায়েতি ভূমি দস্যু কর্তৃক ভূয়া দলিল সৃষ্টি করে জোর পূর্বক সংখ্যালঘুর জমি দখল করে ঘরবাড়ী নির্মান। বাধা দিতে গেলে প্রাননাশের হুমকি। ইউপি পরিষদে অভিযোগ। অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের বোয়ালমারী গ্রামের বিনয় চন্দ্র রায়ের পুত্র পদ্ম চন্দ্র রায় লিখিত অভিযোগে জানান, জাল বা ভূয়া দলিল সৃষ্টি করে একই গ্রামের জামায়াতের ভূমিদস্যু, জুলুমবাজ, অত্যাচারী ও স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের মৃত মজির উদ্দিনের পুত্র মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, মোঃ মাসুদ রানা, মোঃ মকবুল হোসেন, খতিব উদ্দিনের পুত্র জাহাঙ্গীর আলম, তমিজ উদ্দিনের পুত্র আজাহার আলী ও আফছার আলী বোয়ালমারী মৌজার ৩১০ দাগে ৫ শতাংশ, ৩১১ দাগে ৫ শতাংশ, ৩৪১ দাগে ৮ শতাংশ এবং ৩১৭ দাগে সাড়ে ৭ শতাংশ জমি সহ মোট সাড়ে ২৫ শতাংশ জমি সম্প্রতি জোরপূর্বক দখল করে ঘর-বাড়ী নির্মাণ ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করে। এব্যাপারে এস,এ দাদুর রেকর্ডীয় এবং পৈত্রিক ভাবে মালিক সূত্রে  পদ্ম চন্দ্র রায় গত ১১/০১/২০২০ইং তারিখে সুজালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। ইউপি চেয়ারম্যান জাল দলিল তৈরিকারী জামায়াতের অভিযুক্ত ভূমি দখলদারদের গত ১২/০১/২০২০ইং তারিখ সালিশে ডাকলে তারা সালিশে বসে এবং সালিশের মাধ্যমে লিখিত ভাবে অভিযুক্ত ভূমি দস্যুরা মুচলেখা দিয়ে বলে যে তারা আর কখনও জমির মালিকানা দাবি করবে না এবং জমিতে অবৈধভাবে পুনরায় জবরদখলে যাবে না। কিন্তু তারপরও ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে রাতের অন্ধকারে আবারও উক্ত জমির উপর অবৈধভাবে জবরদখল করে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে। ইউপি চেয়ারম্যান মহেশ চন্দ্র রায় ঘটনা জানতে পেরে গ্রাম পুলিশকে উক্ত ঘটনাস্থলে পাঠান এবং নতুন করে যেন অবৈধ স্থাপনা তৈরী করতে না পারে তার জন্য ঘটনাস্থলে গ্রাম পুলিশদের পাহারায় রাখেন। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত ঘটনাস্থলে গ্রাম্য পুলিশ অবস্থান করছেন। গত২৫ জানুয়ারী ২০২০ ইং উক্ত ঘটনা নিরশনে ইউপি চেয়ারম্যান উভয় পক্ষকে বেলা ১২ টায় ইউনিয়ন পরিষদে ডাকলেও মামলার বাদী আসলেও বিবাদিগন চেয়ারম্যানের আদেশকে কর্নপাত করেনি বা সালিশে উপস্থিত হয়নি। তারা অদৃশ্য শক্তির বলে বীরদর্পে হুমকি ধামকি দিয়ে বেড়াচ্ছে যে জমির উপরে গেলে রক্তের গঙ্গা বয়ে দেবে। এঘটনায় উক্ত গ্রামের সংখ্যালঘু পরিবার বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এব্যাপারে ভুক্তভোগী সংখ্যালঘু পরিবারগন জেলা পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email