রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে জামায়াত প্রার্থীর নেতৃত্বে মহাজোটের নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী জনসভা স্থলে হামলা

এমদাদুল হক মিলন ॥ দিনাজপুর-১ আসনের বীরগঞ্জে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী জামায়াত নেতা মোহাম্মদ হানিফের নেতৃত্বে  মহাজোটের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভা স্থলে শসস্ত্র হামলা জালিয়েছে জামায়াত শিবির এ ঘটনায়  এলাকার জনগন গণ পিটুনি দিয়ে ৩ জন শিবির কর্মীকে  আটকসহ ৩টি মটর সাইকেল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। একটি কার ভাংচুর করেছে। জামায়াত শিবিরের হামলায়  কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪ টার সময় বীরগঞ্জ উপজেলার ১১ নং মরিচা  ইউনিয়নের চৌদ্দহাত কালীর বাজার এলাকার সাত খামার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টার সময় বীরগঞ্জ উপজেলার ১১ নং মরিচা  ইউনিয়নের চৌদ্দহাত কালীর বাজার এলাকার সাত খামার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মহাজোটের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মনোরঞ্জন শীল গোপালের নির্বাচনী জনসভার আয়োজন করা হয়। বিকাল সাড়ে ৪ টার সময় জামায়াতের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফ ও বীরগঞ্জ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান কেএম কাওসারের নেতৃতে জামায়াত শিবিরের একটি শসস্ত্র মিছিল ঐদিক দিয়ে যাচ্ছিল। এ সময় তারা জনসভা স্থলে উপস্থিত মহাজোটের নেতা কর্মীদের উপর হামলা চালায় । এলাকার লোকজন দেখতে পেয়ে  প্রতিরোধ গড়ে তুলে। অবস্থা বেগতিক দেখে তারা অস্ত্র প্রদর্শন করে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় স্থানীয় জনগণ ৩ শিবির কর্মীক আটক করে ও তাদের কাছে থাকা মটর সাইকেলে আগুন লাগিয়ে জ¦ালিয়ে দেয়। জামায়াত শিবিরের হামলায় মহাজোটের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়।

আহতরা হলেন- ১১ নং মরিচা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মামুন, ৪ নং ওয়ার্ড সভাপতি রেন্টু  সরকার, সদস্য সহিদুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা আজম ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলালের রাইস মিলের কর্মচারী জিয়ারুল ও সাদ্দামের নাম জানা গেছে।

এ ব্যাপরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলাল জানান, সাত খামার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মহাজোটের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মনোরঞ্জন শীল গোপালের নির্বাচনী জনসভার আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যা ৬ টায় নির্বাচনী জনসভা হওয়ার কথা। তার আগেই বিকাল সাড়ে ৪ টার সময় জামায়াতের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফ ও বীরগঞ্জ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান কেএম কাওসারের নেতৃতে জামায়াত শিবির হামলা চালায়। এ সময় তারা আমার মাথায় আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে ধরে। আমাবে বাঁচাতে এসে আমার দুই কর্মচারীসহ কমপক্ষে ১০ জন নেতা কর্মী আহত হয়।

এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ থানার ওসি(তদন্ত) বিশ^নাথ দাস গুপ্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনা স্থলে স্থানীয় জনগণ ৩ জনকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে তারা শিবিরে কর্মী। পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

এ ব্যাপরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পুলিশের নির্বাচনী মূখপত্র মতিয়ার রহমান জানান, বীরগঞ্জে সাত খামার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মহাজোটের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী পথ সভার প্রস্তুতি চলছিল। এ সময় বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে ২০/২৫ টি মটর সাইকেল যোগে গিয়ে কে বা কারা হামলা চালায় । অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করে। তদন্ত চলছে। এ ব্যাপারে কোন ছাড় দেয়া হবেনা। আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এখনো বিস্তারিত কিছু জানিনা। তবে মহাজোটের প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভা স্থলে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এ ব্যাপারে মহাজোটের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি জানান, ধানের শীষের প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফের নেতৃত্বেই হামলা করা হয়েছে। তিনি ঘটনার সময় উপস্থিত ছিলেন। অবস্থা বেগতিক দেখে কার নিয়ে পালিয়ে যান।