রবিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে নৈশ্যপ্রহরী খুন ও সন্দেহভাজনকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে নৈশপ্রহরীকে খুন এবং জড়িত সন্দেহে একজনকে গনপিটুনি দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার গনপিটুনিতে নিহত রবিউল ইসলামের মা রওশনারা বেগম(৫২) ও তার বোন সুলতানা বেগম (৩২)কে নৈশ্যপ্রহরী হত্যা মামলায় আটক দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বীরগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়। নৈশপ্রহরী সুরুজ আলী খুনের ঘটনায় তার বোন তারা বানু বাদী হয়ে ৫জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং-১১।
অপরটি গনপিটুনি দিয়ে পুড়িয়ে রবিউল হত্যার ঘটনায় ৫নং সুজালপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম্যপুলিশ অতুল দেবনাথ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ২০০/৩০০জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং-১২।

এ ঘটনায় নিহত দুইজনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে কড়া পুলিশি পাহাড়ায় বৃহস্পতিবার রাতেই স্থানীয় কবরাস্থানে তাদের দাফন করা হয়েছে।
শুক্রবার পরিস্থিতি শান্ত থাকলেও ওই এলাকায় যে কোন পরিস্থিতির মোকাবেলায় পুলিশ মোতায়েন ছিল।

তবে রবিউল কেন ওই তিনজনকে কুপিয়েছিল তার সঠিক কারণ জানা যায়নি। এব্যাপারে পুলিশ বলছে ঘটনার তদন্ত চলছে। রবিউল ইসলাম মাদকাসক্ত ছিল বলে পুলিশ স্বীকার করেছেন।
এলাকাবাসীর দাবি, রবিউল একজন সন্ত্রাসী ও মাদকাসক্ত ছিল। এর আগেও সে কয়েকজনকে কুপিয়েছে।

বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাকিলা পারভীন বলেন, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কোন মহল যেন কোন প্রকার চক্রান্ত করতে না পারে এবং এলাকায় শান্তিশৃংখলা বিঘ্ন না করতে পারে এ ক্ষেত্রে গনমাধ্যমকর্মী ও স্থানীয় লোকজনকে সজাগ থাকার অনুরোধ করেছেন। অযথা কাউকে হয়রানী করা হবে না বলে সকলকে তিনি আশ্বস্থ করেন।

বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের বীরগঞ্জের সুরুজ আলী নামে এক নৈশপ্রহরীকে কুপিয়ে হত্যা এবং দুইজনকে ছুরিকাঘাতে আহত করে দুর্বৃত্তরা। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে রবিউল ইসলাম নামে একজনকে বিক্ষুব্ধ জনতা গনপিটুনি দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করে।
উল্লেখ্য, এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার ভোরে বীরগঞ্জ পৌরসভার শালবাগান মোড়ে নৈশ প্রহরী সুরুজ আলীকে কতিপয় দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করে। এরপরই বীরগঞ্জ হাটখোলা মোড়ে অপর আরেক নৈশপ্রহরী শহীদকে ছুরিকাঘাত করে দুর্বৃত্তরা। এসময় শহীদ এর তিন বছরের ছেলে একরামুলও আহত হয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বিক্ষুব্ধ জনতা জেলখানা মোড় এলাকায় রবিউল ইসলামকে খুঁজতে থাকেন। সকাল ৮টায় রবিউলকে কাহারোলের ১৩ মাইল গড়েয়া নামক স্থানে পেয়ে বিক্ষুব্ধ জনতা তাকে ধরে নিয়ে বীরগঞ্জ শালবাগান মোড়ে এনে গণপিটুনি দেয়। এক পর্যায়ে বিটুমিন গায়ে ঢেলে তাকে পুড়িয়ে হত্যা করে। উভয় ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনার ছড়িয়ে পড়ে। ভোর সাড়ে ৫টা থেকে তারা দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও মহাসড়ক অবরোধ করে স্থানীয়রা। এতে মহাসড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পর সকাল ১০টা থেকে যান চলাচল শুরু হয়। ঘটনার পরপরই পুলিশ সুপার হামিদুল আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
আহত আরেক নৈশপ্রহরী বীরগঞ্জ হাটখোলা এলাকার মৃত: মধুমিয়ার ছেলে শহীদ (৩৮) ও তার তিন বছরের ছেলে একরামুল। গুরুতর আহত শহীদকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও একরামুলকে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।