মঙ্গলবার ১৩ নভেম্বর ২০১৮ ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে পারিজা জাতের আউশ ধান কর্তনের মাঠ দিবস

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে পারিজা জাতের আউশ ধান কর্তনের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ১০টায় উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের প্রাণ নগর গ্রামে মার্কুস মার্ডির ৫০শতক জমির পারিজা জাতের আউশ ধান কেটে উক্ত কর্মসুচীর উদ্বোধন করেন কৃষি মন্ত্রণালয় (সম্প্রসারণ) অতিরিক্ত সচিব সনৎ কুমার সাহা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহাপরিচালক ব্রি গাজীপুর ড. শাহজাহান কবীর, পরিচালক সরেজমিন উইং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ী ঢাকা ড. মোঃ আবদুল মুঈদ, প্রকল্প পরিচালক ন্যাশনাল এগিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম রতন কুমার দে, উপ-পরিচালক খামার বাড়ী দিনাজপুর মোঃ তৌহিদুল ইকবাল, জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, ভোগনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ বদিউজ্জামান পান্না, উপজেলা সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মনোরঞ্জন অধিকারীসহ উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও উপকারী ভোগী কৃষক-কৃষাণীগণ উপস্থিত ছিলেন প্রমুখ।

পরে ভোগনগর ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে সমমনা লাভ জনক কৃষক দলের আয়োজনে কৃষক-কৃষাণীদের সাথে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন অতিথিবৃন্দ।

উদ্যোক্তা কৃষক মার্কুস মার্ডি জানান, ৫০শতক জমিতে পারিজা জাতের আউশ ধান রোপন করা হয়েছে। এ পর্যন্ত খরচ হয়েছে ৬হাজার টাকা। ৫০শতক ধান হয়েছে ২০মন ফসল। যান আনুমানিক মুল্য ১৬হাজার টাকা। খরচ বাদ দিয়ে মোট লাভ হয়েছে ১০হাজার টাকা। আগাম ফলন হওয়ায় দাম বেশি পাওয়ায় যায়। এই ধান চাষে সময়ও কম লাগে। তাই ধান তুলে এই জমিতে ফুলকপি চাষ করা হবে। কপি তুলে আলু এবং আলু তুলে ভূট্টা চাষ করা হবে। অর্থাৎ এক বছরে ৪টি ফসল ঘরে তোলা যায়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পারিজা জাতের আউশ ধানের বীজ বপন করা হয় জুন মাসের ৩ তারিখে। চারা রোপন করা ২৩জুন। ধান কাটা হয় ১৪সেপ্টম্বর। অর্থাৎ বীজতলা হতে ফসলের জীবনকাল কমপক্ষে ১০৫দিন থাকে। এই ধানের রোগ-বালাই প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি। প্রতি হেক্টরে ৩.৮ মেট্রিক টন ফলন পাওয়া যায়। অধিক ফলন এবং কম সময়ে ঘরে তোলা ফসল যায়। একই জমিতে অধিক ফসল ফলানের সুযোগ থাকে।

কৃষি মন্ত্রণালয় (সম্প্রসারণ) অতিরিক্ত সচিব সনৎ কুমার সাহা বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে কৃষি খাতে অভূতপুর্ণ বিপ্লব সাধিত হয়েছে। বর্তমান সরকারেরর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষি এবং কৃষকদের উন্নয়নের কাজ করে যাচ্ছে। তিনি সার-বীজসহ প্রতিটি কৃষি পন্য কৃষকের দোড়-গোড়ায় পৌছে দিয়েছেন। কৃষি ক্ষেত্রে ডিজিটাল উন্নয়ের ছোয়া লেগেছে। ঘরে বসেই কৃষক তাদের সমস্যা সমাধানে সহায়তা পেতে পারে। আর এ কারণে দেশ আজ খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশের এই উন্নয়ে সবচেয়ে বেশি ভূমিকার রেখেছে আমাদের দেশের কৃষক। আমরা তাদের সুখ-দুঃখে পাশে থাকতে চাই।