রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে প্রখ্যাত নাট্যকার গনেশ দাসের দুর্দিনে পাশে নেই কেউ

বিকাশ ঘোষ, বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের দাসপাড়া এলাকার মৃত তেজু রাম দাসের ছেলে একসময়ের জনপ্রিয় থিয়েটার ও মঞ্চ নাট্যকার গণেশ চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, বর্তমানে তিনি সংকটময় পরিস্থিতি পার করছেন। তিনি ২০০১ -থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত বেশ সুনামের সাথে বীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বীরগঞ্জ থিয়েটারের ব্যানারে মঞ্চ নাটকে খুব জনপ্রিয় মুখ হিসেবে পরিচিতি পায় । গণেশ দাস মুক্তিযুদ্ধের নাটকে খাঁনের অভিনয় করে জনসাধারণের কাছে বেশ খ্যাতি ও সুনাম অর্জন করেছিলেন। বর্তমানে হাতে হাতে মোবাইল, ঘরে -ঘরে টেলিভিশন এবং ডিজিটাল যুগে নাটক -থিয়েটারের কদর নেই বললেই চলে। তাই বাধ্য হয়ে গণেশ দাস দিনাজপুর মটর শ্রমিক ইউনিয়ন বীরগঞ্জ শাখার সাধারণ সদস্য হিসেবে বীরগঞ্জ থানা মার্কেট এর সামনে স্ট্যান্ডে টিকিট কাউন্টারে নিয়োজিত থেকে দিনে ২০০-২৫০ টাকা আয়ের রোজগার দিয়ে স্ত্রী ও তিন কন্যা সন্তানের সংসার নিয়ে অনাহার – অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন। প্রথম মেয়ে দিনাজপুর সরকারি কলেজে ডিগ্রীতে পড়েন, মেজো মেয়ে দিনাজপুর মহিলা কলেজে অর্নাস এবং ছোটো মেয়ে বীরগঞ্জ ইব্রাহিম মেমোরিয়াল শিক্ষা নিকেতনে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী হিসেবে অধ্যায়নরত রয়েছে। এমতাবস্থায় করোনাকালীন মহামারী দূর্যোগের কারণে বিগত প্রায় ২ বছর থেকে থেমেথেমে যানবাহন চলাচল করার কারণে অভাব আরো বেড়ে যায়। এতে করে ধারদেনায় জর্জরিত হয়ে তিন মেয়ের পড়ালেখার খরচ ও সংসারের দ্বায়িত্বভার চালাতে হিমসিম খাচ্ছেন নাট্যকার গনেশ চন্দ্র দাস। বর্তমানে বড় মেয়ের বিয়ে ঠিকঠাক হলেও আর্থিক অভাবি কন্যাদায়গ্রস্ত পিতা গনেশ চন্দ্র দাস দিশেহারা হয়ে সমাজের বিত্তশালী দানশীল মানুষ সহ বাংলাদেশের নাট্যব্যক্তিত্ব ও নাট্যকারদের কাছে বিনীতভাবে সাহায্যের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। এব্যাপারে নাট্যকার গণেশ চন্দ্র দাস জানান,একসময়ে নাটকের মাধ্যমে মানুষকে আনন্দ দিয়েছি। এখন দুঃসময়ে কেউ পাশে নেই। কেউ খোঁজও রাখেন না।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email