বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে প্রথম বানিজ্যিক ভাবে শিম চাষে সফলতা

মোঃ আব্দুল ওয়ারেছ, বীরগঞ্জ প্রতিনিধি:  বীরগঞ্জে কীট নাশক ব্যবহার ছাড়াই প্রথম বানিজ্যিক ভাবে শিম চাষ করে সফলতা পেয়েছেন মনির হোসেন। তিনি দুই একর জমিতে শিম আবাদ করেছেন।Pic-Birganj-18

বাংলাদেশ অবস্থিত থাইল্যান্ডের জৈব সার কোম্পানী সিপি লিমিটেডের জৈব সার দিয়ে জমি শিম চাষের উপযোগী করে বেড তৈরী করেন। চট্রগ্রাম থেকে বিশেষ জাতের শিম বীজ সংগ্রহ করে বপন করা হয়। কোন প্রকার কীটনাশক ব্যবহার করা হয়নি। পরীক্ষা মূলক বানিজ্যিক ভাবে শিম আবাদে ব্যয় হয়েছে মাত্র ৬০ হাজার টাকা।

উৎপাদিত শিম রাজধানী ঢাকায় পাইকারী বাজারে সরাসরি বিক্রয় করা হচ্ছে। তবে ফলন বেড়ে গেলে স্থানীয় বাজারে বিক্রয়ের করা হবে। তার এই সাফল্যে সংবাদে উপ-পরিচালক কৃষি সম্প্রসার অধিদপ্তর দিনাজপুর মোঃ আনোয়ারম্নল আলম, শস্য বিষেশজ্ঞ কৃষি সম্প্রসার অধিদপ্তর দিনাজপুর সুধেন চন্দ্র রায়, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস শিমক্ষেত পরিদর্শন করেন।

উদ্যোক্তা চাষী মনির হোসেন জানান, কৃষি বিষয়ে তেমন কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিলনা। অন্য ব্যবসার পাশাপাশি কৃষি বিষয়ে আগ্রহ থাকার কারণে বানিজ্যিক ভাবে শিম চাষ করি। ক্ষেত হতে দুই দিন পর পর শিম তোলা হয়। প্রাথমিক ভাবে প্রতিদিন ৮০ কেজি করে ফলন পাওয়া যায়। সব গাছে ফলন দেওয়া শুরু হলে প্রতিদিন দ্বিগুন ফলন পাওয়া যাবে। রাজধানীর বিভিন্ন পাইকারী বাজারে ৫০টাকা কেজি দরে ইতিমধ্যে প্রায় ৩০ হাজার টাকার শিম বিক্রয় করেছি। রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে পরিবহন সংকট। এ কারণে এই মুহুর্তে ঢাকায় পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই স্থানীয় বাজারে ১৫টাকা কেজি দরে বিক্রয় করতে হচ্ছে। এ পর্যন্ত ১ লক্ষ ১৩হাজার টাকার  শিম বিক্রয় করেছি। সংকট কেটে গেলে এই ক্ষেত হতে প্রায় ২ লক্ষ টাকার শিম বিক্রয়ে আশা করছি। আগামীতে আরো ব্যাপক পরিসরে শিম চাষের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি।

উপজেলা কৃষি অফিসার নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, উপজেলায় প্রথম এতো ব্যাপক এবং বানিজ্যিক ভাবে শিম চাষ করেছেন মোজাম্মেল হক। এই অঞ্চলে বানিজ্যিক ভাবে শিম চাষ বৃদ্ধি পেলে স্থানীয় কৃষকদের আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email