সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে বউ নিতে এসে ফেঁসে গেলেন এক পুলিশ সদস্য

Policeবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ বীরগঞ্জে বিয়ে করা বউ নিতে এসে ফেঁসে গেলেন এক পুলিশ সদস্য। তবে এটি তার পঞ্চম স্ত্রী। তার আরো চার জন স্ত্রী রয়েছে বলে চতুর্থ স্ত্রী নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলার দেউশপিনা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নজরুল ইসলামের কন্যা বিথী  আকতার জানান।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের পূর্ব বলরামপুর গ্রামের মোঃ নুরম্নজ্জামানের কন্যা মোছা. আয়শা আকতার (২০) এর সাথে নীলফামারী জেলার সদর উপজেলার রামকলা গ্রামের মোঃ আকবর আলীর পুত্র ঢাকা রাজারবাগ পুলিশ লাইনে কর্মরত (কনেষ্টবল নম্বর-১৯৮০৩) পুলিশ সদস্য মোঃ মসলেম উদ্দিন (৩৮) এর গত ১৩ মার্চ পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ে করে বউকে বাবার বাড়ীতে রেখে কর্মস্থলে চলে যান। এরপর গত বৃহস্পতিবার বউকে নিতে বীরগঞ্জে আসে। আবারও বিয়ের সংবাদ জেনে গোপনে খোজ খবর নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় চতুর্থ স্ত্রী বিথী আকতার বীরগঞ্জে এসে পঞ্চম স্ত্রীর পরিবারকে সবকিছু খুলে বলে। ঘটনাটি নতুন বউ আয়শা আকতারের পরিবার প্রতিবেশীদের জানালে এলাকাবাসী বিয়ে পাগল মসলেমকে আটক করে রাখে।

চতুর্থ স্ত্রী বিথী আকতার জানান, তার চাচাতো ভাই মোঃ ফারম্নক হোসেন এবং মসলেম একই সাথে পুলিশে চাকুরী করে। সে সুত্রে ধরে পরিচয় এবং প্রেম তারপর বিয়ে। ইতিপূর্বে সে রাজশাহীর বুলবুলী নামের এক জনকে বিয়ে করে। এরপর মোছাঃ শিউলি আকতার নামে আরেক জনকে বিয়ে করে। এরপর নিজ গ্রামের মোছাঃ জুলেখা বেগমকে বিয়ে করে। এরপর রাজশাহী বিথীকে নিয়ে এসে বিয়ে করে এবং চাকুরী বদলী নিয়ে দিনাজপুরে কর্মরত ছিলেন। সে সময় তৃতীয় স্ত্রী জুলেখা বেগম মামলা করে এবং মামলাটি এখনো চলমান রয়েছে।

তবে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য মসলেম উদ্দিন একাধিক বিয়ের কথা স্বীকার করলেও বিথীকে তাঁর স্ত্রী হিসেবে অস্বীকার করেন।

নিজপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল খালেক সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য পরিষদের সংশ্লিষ্ট ওর্য়াড সদস্য মোঃ আলিমুদ্দিনকে মৌখিক ভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।