বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে বৈধতা থেকেও “বন্ধন” এর কার্যক্রম বন্ধের উপক্রম

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির কার্যক্রম সকল বৈধতা থাকার পরেও একটি কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্রের কারণে তা বন্ধের উপক্রমের হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কো-অর্ডিনেটর মোঃ বেলাল হোসেন ।

তিনি জানান, গত ১৯ সেপ্টেম্বর দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির সুত্রে আবেদনের পর দিনাজপুর জেলা কো-অর্ডিনেটর হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে বীরগঞ্জের কবিরাজ হাটে বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির অফিস উদ্বোধন করা হয়। প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম গতিশীল করার লক্ষ্যে ঝরে পড়া শিশু ও বয়স্কদের জন্য  কিছু স্কুল স্থাপন করে শিক্ষক ও সুপারভাইজার নিয়োগ করা হয়। ঝরে পরা শিক্ষার্থীদের বইপত্র, বসার যায়গা সহ বিভিন্ন উপকরণ সামগ্রী বিনামুল্যে প্রদান করে তারা শিক্ষা কার্যক্রম  শুরু করে। কিন্তু দিনাজপুর জেলায় বন্ধনের কো-অর্ডিনেটর পদে প্রার্থীতা হিেেসবে অনেকে আবেদন করেন। কিন্তু বেশ কিছু নিয়োগ প্রত্যাশী নিয়োগ না পেয়ে ষড়যন্ত্রমুলক বিভিন্ন কুৎসা রটিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ায়। ফলে নিয়োগ প্রাপ্ত কর্মকর্তা  কর্মচারিরা জনগনের রোষানলে আতংকিত হয়ে অফিসে তালা দিয়ে নিরাপদে অবস্থান নেন। এদিকে ষড়যন্ত্রকারীগণ কো-অর্ডিনেটর হিসেবে তার বিরুদ্ধে নিয়োগ কার্যক্রমে লক্ষ লক্ষ টাকা আতœসাতের অভিযোগ আনলে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মোঃ আলম হোসেন প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টদের ডেকে বৈধ কাগজ পত্র দেখতে চান এবং টাকা লেনদেনের কথা জিজ্ঞেস করলে। এ সময় আমি ঢাকায় অবস্থান করায় প্রতিষ্ঠানের পক্ষে কর্মকর্তারা তাৎক্ষনিক ভাবে কাগজ পত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়।

এদিকে উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে অফিস খোলা  এবং কার্যক্রম চালনা করা সম্ভব হচ্ছেনা। এই সুযোগ নিয়ে বিপক্ষ গ্রুপ শতগ্রাম, সুজালপুর, পাল্টাপুর ও পৌরসভা সহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির নাম ভাঙ্গিয়ে শিক্ষক ও সুপারভাইজার নিয়োগের কথা বলে শতাধিক লোকের কাছে শিক্ষকদের কাছে চার থেকে দশ হাজার এবং ছাত্র প্রতি দুইশত পঞ্চাশ টাকা করে নিলেও এখনো নিয়োগপত্র দেন নি।

এ ব্যাপারে তিনি আরো জানান, আমাকে হেয় প্রতিপন্য করার লক্ষে কয়েকজন ব্যক্তি এই পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছেন। তার কাছে প্রতিষ্ঠানের বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি তার নিয়োগ পত্র, বিধিমালা, বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের নিবন্ধনের কপি যার নম্বর-৪৯৯৮/৯৯, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কতৃক প্রদান কৃত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয় পরিচালনা ও স্থাপনের সনদ, নভেম্বর/১৭ মাসের শিক্ষকদের বেতন ভাতা প্রদানের শিক্ষকদের সবাক্ষরিত বিলসিট সহ বিভিন্ন কাগজপত্র প্রদর্শন করেন। স্থাপিত স্কুল থেকে টাকা গ্রহনের কথা জিজ্ঞেস করলে বেলাল হোসেন বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির হেড অফিস ভুলতা,গাউসিয়া, রুপগঞ্জ, নারায়নগঞ্জের, ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল-রাফি, প্রকল্প পরিচালক ও আইন উপদেষ্টা, বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটি সবাক্ষরিত একটি চিঠি প্রদর্শন করেন যেখানে একটি বাক্য এমন “প্রস্তুতি মুলক স্কুল গুলোতে ছেলে-মেয়েদের পুষ্টি ও সুস্বাস্থ্যের জন্য বিশুদ্ধ পানির প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে ন্যায্যমুল্যে পানির ফিল্টার ক্রয়ে আগ্রহ সৃষ্টি করার মাদ্ধ্যমে আর্ষেনিক মুক্ত ও রোগ মুক্ত থাকার সকল প্রচেস্টাই আপনার অব্যাহত রাখতে হবে।” এই নির্দেশনায় স্ব ইচ্ছায় যারা টাকা দিয়েছে শুধু তাদের কাছে পানি ফিল্টার ক্রয়ের উদ্যেশে ৩৬০০/- টাকা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু টাকা দিতে কোন শিক্ষক কেই বাধ্য করা হয়নি।

এ দিকে সরেজমিনে শতগ্রাম ইউনিয়নে গিয়ে জানা যায়, ইউনিয়নের দক্ষিণ ফরিদপুর, করিমপুর, তেলিপাড়া গ্রামের আদুরি, রোমেনা, মিজানুর,ফজিলা,আরজিনা, গ্রসাদপাড়া গ্রামের জাফরুল চৌধুরীর স্ত্রী, রাঙ্গালীপাড়া গ্রামের জুলি, রোমেনা সহ অসংখ্য শিক্ষক নিয়োগের কথা বলে টাকা গ্রহন করলেও নিয়োগপত্র প্রদান করেনি।

এই ব্যাপারে প্রসাদপাড়া গ্রামের জাফরুল চৌধুরীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমার স্ত্রী কে শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য ঝাড়বাড়ী মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক মোঃ আকিম উদ্দিন ও মোঃ আনারুল ইসলাম কে  ৪০০০/-এবং ছাত্র প্রতি ২৫০/- টাকা দেই কিন্তু এখনো নিয়োগপত্র দেয়নাই এবং কোন কার্যক্রম চালু করেন নাই।

এ ব্যাপারে ঝাড়বাড়ী মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক মোঃ আকিম উদ্দিনের সাথে ফোনে কথা বললে তিনি প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করলেও পরে স্বীকার বলেন, প্রতিষ্ঠানটি তার বোনের। সে শুধু দেখাশুনা করেন। তবে টাকা বৈধ অনুমতি আছে কি না  এবং গ্রহণের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি।

এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ দুলাল হোসেন জানান, বীরগঞ্জে বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষে মোঃ বেলাল হোসেন প্রতিষ্ঠানটির বৈধতার পক্ষে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিয়েছেন। কাগজ-পত্র যাচাই করে আমার দৃষ্টিতে এখন পর্যন্ত অবৈধ প্রতিষ্ঠান বলে প্রতিয়মান হয়নি। তবে উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নসহ বেশ কিছু স্থানে বন্ধন ওয়েলফেয়ার সোসাইটির নামে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে। আমরা সরেজমিনে বিদ্যালয়গুলি পরিদর্শন করে অর্থ গ্রহণের অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে তাদেরকে বৈধ কাগজপত্র প্রদর্শের করতে বলা হলে তারা তা উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হয়েছে।