বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলায় সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবীতে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন ও স্বারকলিপি প্রদান

রফিক প্লাবন, দিনাজপুর : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু’র ডাকে সারা দিয়ে দেশকে পাকহানাদার বাহিনী মুক্ত করে স্বাধীন করার জন্য মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধ করে শত্রুদের পরাজিত করে দেশকে স্বাধীন করেছি। জীবনের মায়া করিনি। স্বাধীন দেশে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হচ্ছেন প্রতিনিয়ত মুক্তিযোদ্ধারা। স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীর সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে জমি জবর দখল, মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা ও শারীরিক নির্যাতনকারী সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃস্টান্ত শাস্তি প্রদানের দাবী জানাচ্ছি।
দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক ও তার পরিবারের সদস্যদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা এবং সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে গতকাল বৃহস্পতিবার বৈরী আবহাওয়া সত্বেও উপজেলার বিজয় চত্বর সম্মুখ সড়কে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে এমন বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধারা। মানববন্ধন শেষে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বরাররে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন তারা।
স্মারকলিপিতে বীরমুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক (৭০) উল্লেখ করেন, আমি দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ১০নং মোহন ইউনিয়নের মাটিয়াকুড়া লাটেরহাট গ্রামে স্থায়ী ভাবে বসবাস করে আসছি। ২০০১ সালে শেখ হাসিনা সরকার আমার নামে ৫৩ শতক জমি পত্তন দেন। যার কবুলিয়ত নং xii/৯৭৩/২০০০-২০০১ সন। এই জমির পশ্চিম পার্শ্বে বাস করেন মো. সাহাবুদ্দিনের ছেলে মো. উজ্জল ইসলাম (৪০)। সে কয়েক বছর ধরে আমার জমির সীমানা নিয়ে জবর দখলের চেষ্টা করে আসছে। স্থানীয় ভাবে কয়েকবার মাপামাপি করা সত্বেও সীমানা নির্ধারনের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহন করা সম্ভব হয়নি। বীরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি)’র নিকট আবেদন করলে তিনি গত ১৯-০৮-২০২০ তারিখে উভয় পক্ষকে নোটিশ প্রদান করেন এবং আমাকে ৫৩ শহক জমির সীমানা নির্ধারন করে দিলে আমি তারকাটার বেড়া দেই। গত ২৭-০৮-২০২০ তারিখ সকাল সাড়ে ৭ টায় মো. উজ্জল ইসলাম ও তার সঙ্গীয় ৪০-৪৫ জন বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র-লাঠিসোটা নিয়ে সংঘ্যবদ্ধভাবে আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের অপদস্থ করে সীমানা বেড়া ভেঙ্গে দেয় ও মেহগনি গাছ কেটে ফেলে। এতে আমার প্রায় ৫০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। সেসময় আমি ও আমার স্ত্রী তাদের বাধা দিতে গেলে হামলাকারীরা আমার মাথায় ও বুকের পাজড়ে জখম আঘাত করে। বীরগঞ্জ থানায় ওই দিনই একটি এজাহার দায়ের করি। যার নং-০৮, তারিখ-২৭/০৮/২০২০। বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে ৭ দিন চিকিৎসা গ্রহন করি। গত ৩১-০৮-২০২০ তারিখে বীরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি), থানা প্রশাসন ও বীরমুক্তিযোদ্ধাগনের সমন্বয়ে পুনরায় সীমানা নির্ধারণ করা হয় এবং ইট দিয়ে সীমানা প্রাচীর নির্মান করা হয়। এরপর গত ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে আনুমানিক ভোর ৫ টায় উক্ত মো. উজ্জল আরও শক্তিশালি সংঘবদ্ধ দল নিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পুনরায় আমাদেরকে বাসায় বেড়ীকেট দিয়ে আটকে রেখে ইটের তৈরী সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে দেয় এবং বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিয়ে অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করে মুক্তিযোদ্ধার নাম ধরে গালিগালাজ করে। তারা আমার অনুমানিক ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা র ক্ষয়ক্ষতি করে চলে যায়। সন্ত্রাসীরা এতই দাপটশালী ও ভয়ংকর প্রকৃতির মানুষ, যারা নাকী প্রশাসন ও আইনের তোয়াক্কা করে না। বীরমুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক প্রশ্ন রেখে বলেন, এই সন্ত্রাসীদের খুঁটির জোর কোথায়, কারা তাদের গডফাদার তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিতে তিনি প্রধানমন্ত্রী’র হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
মানববন্ধন চলাকালীন বক্তব্য রাখেন বীরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার অধ্যাপক কালিপদ রায়, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার এস এম এ খালেক, বীর মুক্তিযোদ্ধা বশির আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শামীম ফিরোজ আলম, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী বীরগঞ্জ উপজেলা সংসদের সভাপতি প্রশান্ত সেন প্রমুখ।
বক্তারা উজ্জল ও তার দোসর কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীর সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে জমি জবর দখল, মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা ও শারীরিক নির্যাতনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী জানান।
মানববন্ধনে অন্যান্য বক্তাগণ মুক্তিযোদ্ধার উপর নির্যাতনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে সমাজের সকলের প্রতি আহবান জানান। বৈরী আবহাওয়া সত্বেও মানববন্ধনে বিপুল সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধা ও বিভিন্ন শ্রেনিপেশার মানুষ অংশ নেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email