বুধবার ২১ অগাস্ট ২০১৯ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে মেয়াদোত্তীর্ণ ও সরকারী ওষুধ উদ্ধার।স্বামী -স্ত্রীর জেল-জরিমানা

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর থেকে বিকাশ ঘোষ : দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মোছা.ফাইমা খাতুন নামে এক সরকারি হাসপাতালের নার্সের বাড়ি এবং তার স্বামী মো: নুর আলম নুরের মালিকানাধীন ক্লিনিক থেকে মেয়াদ উত্তীর্ণ ও সরকারী বিভিন্ন ধরনের ওষুধ উদ্ধার করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মোছা: ফাইমা খাতুন বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স।

অভিযানের পর উদ্ধারকৃত ওষুধসহ স্বামী – স্ত্রীকে গ্রেফতার করে বীরগঞ্জ থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে ঘটনার দিন রোববার রাতেই তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে উপস্থিত করলে আদালতের বিচারক বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো : ইয়ামিন হোসেন মোছা: ফাইমার স্বামী মো: নুর আলম নুরকে ১ বছরের কারাদণ্ড এবং নার্স ফাইমাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

বীরগঞ্জ এলাকাবাসী জানান, নার্স ফাইমা দীর্ঘদিন ধরে তার স্বামী মো: নুর আলমের বীরগঞ্জ পৌর শহরের নুর ল্যাব অ্যান্ড সিটি (ক্লিনিক) নার্সিং হোম নামে একটি ক্লিনিক পরিচালনা করে আসছে। ক্লিনিকটি স্বামীর নামে থাকলে এটি পরিচালনা করে নার্স ফাইমা খাতুন। ক্লিনিকে সিজারের নামে কয়েকজন নারী ও নবজাতক হত্যার অভিযোগ উঠলেও তার ক্ষমতার দাপটের কাছে হার মানতে হয়েছে সবাইকে। মামলা করলেও ক্ষমতার প্রভাবে সে মামলায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিতে পারেনি পুলিশ। সরকারি ওষুধসহ ধরা পড়লেও দ্রুত সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জেল -জরিমানার বিষয়টি সাধারণ মানুষ হতবাক হয়েছে।

জানা গেছে, ঘটনার দিন রোববার ভোরে পৌর শহরের মাকড়াই গ্রামের রাজা মিয়ার স্ত্রী ফরিদা বেগমের প্রসব ব্যথা উঠলে নুর ল্যাব অ্যান্ড সিটি( ক্লিনিক) নার্সিং হোম নিয়ে গিয়ে ভর্তি করে। এসময় সেখানে কর্মরত নার্স মোছা: শাহানাজ পারভিন একাই নবজাতক শিশু প্রসবের চেষ্টা করলে শিশুর মৃত্যু হয়।

এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ সাকিলা পারভিন এবং ওসি (তদন্ত) বিশ্বনাথ দাশ গুপ্ত ক্লিনিকে উপস্থিত হলে ক্লিনিকে মেয়াদ উত্তীর্ণ এবং সরকারি হাপাতালের ওষুধ ব্যবহারের বিষয়টি নজরে আসলে তাৎক্ষণিকভাবে অভিযান চালিয়ে আরও বিপুল পরিমাণের সরকারী ওষুধ উদ্ধার করেন।