শুক্রবার ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে শসার কেজি ২ টাকা

বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : করোনাভাইরাসের কারণে কৃষিতে বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। প্রান্তিক কৃষকরা ফসলের মাঠ থেকে শশাসহ মৌসুমী কৃষিজ পণ্য বাজার পর্যন্ত পৌঁছাতে যেমন অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন, তেমনি ভালো দাম পাচ্ছেন না তারা। ফড়িয়ারা লাভ করলেও কৃষকরা লোকসানে পড়েছেন। মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের কারণে শসার ভালো মূল্য পাচ্ছেন না বলে জানান কৃষকরা। 

দিনাজপুরের বীরগঞ্জের প্রান্তিক কৃষকরা কেজি প্রতি ১০ টাকার শসা ২ টাকাতেও বিক্রি করতে পারছেন না। শসার বাম্পার ফলন হলেও খরচ তোলা নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন কৃষকরা।  বীরগঞ্জ উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের বাজিতপুর গ্রামে চলতি মৌসুমে ১২ একর জমিতে শসার চাষ হয়েছে। শসা নিয়ে প্রান্তিক চাষীদের এই দুরবস্থা তৈরি হয়েছে। শসা চাষ করে লোকসানের বোঝা বহন করছে। সব শসা চাষীর একই অবস্থা। 

এ ব্যাপারে কৃষক মোকছেদ আলীর ছেলে তানভির আহম্মেদ জানান, তিনি ২ একর জমিতে শসা চাষ করেন এবং বাজারে দাম না থাকায় ১০০ টাকায় বস্তা বিক্রি করেন। ফলে সার, বীজ, সেচের খরচের টাকা তোলা তো দূরে থাক, লোকসানের ভার সামলানো মুশকিল হয়ে যাচ্ছে তার। ২ টাকা কেজি ধরে বিক্রি করতেও পাইকার পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু আমার জমির শসা ২ দিন পর পর তুলতে হবে। এখন বিক্রি করতে না পারলে আরও ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে। 

ওই গ্রামের কৃষক অফিজ উদ্দীনের ছেলে আকালু, জিয়ারুল ইসলাম, রেজাউল করিম জানান, আমরা তিন ভাই এবার ধানের বদলে শসা চাষে উদ্ভুদ্ধ হয়ে নিজের ও লিজকৃত ৫ একর জমিতে এর আবাদ করেছি। ফলন খুব ভালো হয়েছে। কিন্তু দাম না পাইলে?

মহিদুল ইসলাম স্বল্প পরিসরে ১ একর শসা চাষ করেন এবং বাড়তি বাজার না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন। তিনি বলছেন, এবার বুঝি সব কিছুই হারাবো, যদি শসার দাম না পাই। 

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email