বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে শিক্ষক-ছাত্রের কারাদন্ড

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ মিথ্যা তথ্য দিয়ে অসৎ উপায় অবলম্বন করে জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জে এবিএম রহমত আলী (৫৫)নামে এক শিক্ষককে ১বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং শ্রী উত্তম কুমার রায় (২৩) নামে এক ছাত্রকে ১৫দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

এবিএম রহমত আলী ঠাকুরগাঁও জেলা সদরের চোংগাখাতা গ্রামের মৃত কচির উদ্দিনের ছেলে ও দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার কালীর মেলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এবং শ্রী উত্তম কুমার রায় একই এলাকার গড়েয়া গ্রামের শ্রী বীরেন বর্মন বোদাড়–র ছেলে ও একই বিদ্যালয়ের ছাত্র।

বুধবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ ইয়ামিন হোসেন ভ্রাম্যমান আদালতে এ রায় প্রদান করেন।

বীরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ দুলাল হক জানান, এইচএসসি পাশ করেও তথ্য গোপন করে ঠাকুরগাঁও জেলা সদরের গড়েয়া গ্রামের শ্রী বীরেন বর্মন বোদাড়–র ছেলে উত্তম কুমার রায় দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার দেউলি আরাজী লক্করা উচ্চ বিদ্যালয় হতে চলতি জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। বুধবার সকালে পলাশবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে হিন্দু ধর্ম পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কক্ষে দায়িত্বরত একজন শিক্ষিকা তাকে চিনে ফেলে। পরে বিষয়টি তাৎক্ষণিক ভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেনকে অবহিত করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন বিদ্যালয়ে গিয়ে তাকে আটক করে এবং জিজ্ঞাসাবাদের জানতে পারে ২০১৬সালে গড়েয়া কলেজ হতে এইচএসসি পরীক্ষায় পাশ করেছে। পরে তার দেওয় তথ্য তদন্ত করে তাকে সহযোগতি করার জন্য কালীর মেলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এবিএম রহমত আলীকে আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে আটক উত্তম কুমার রায় জানান, পুর্ব আরাজী চন্ডীপুর উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি পাশ করার পর ঠাকুরগাঁও জেলার গড়েয়া কলেজ হতে ২০১৬সালে এইচএসসি পাশ করি। পুলিশে চাকুরী নেওয়ার জন্য গড়েয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন অবসরপ্রাপ্ত পিয়নের মাধ্যমে ৩০০শত টাকার বিনিময়ে দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার কালীর মেলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর একটি ছাড়পত্র সংগ্রহ করে একই উপজেলার দেউলি দেউলি আরাজী লক্করা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণীতে ভর্তি হই। পরে সেই বিদ্যালয় হতে চলতি জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করি। আজ হিন্দু ধর্ম পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে আমার আমাকে আটক করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অসৎ উপায় অবলম্বন করার অভিযোগে শ্রী উত্তম কুমার রায় নামে এক ছাত্রকে ১৫দিন এবং অবেধ ভাবে ছাড়পত্র দিয়ে অসৎ উপায় অবলম্বনে সহায়তা করার জন্য কালীর মেলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এবিএম রহমত আলীকে পাবলিক পরীক্ষা সমূহ অপরাধ আইনে উক্ত দন্ডাদেশ প্রদান করা হয়েছে।

বীরগঞ্জ থানার ওসি সাকিলা পারভিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দন্ডপ্রাপ্ত শ্রী উত্তম কুমার রায় এবং এবিএম রহমত আলীকে রাতে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।