বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে হাসপাতালে ৭ জন ডাক্তার সহ ৪৮ পদ শুন্য, সেবা কার্যক্রম ব্যহত

মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ বীরগঞ্জে হাসপাতালে ৭ জন ডাক্তারসহ ৪৮ পদ শুন্য সেবা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্স সুত্রে জানা গেছে, ৩১ শর্য্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্স একজন আবাসিক চিকিৎসক, এনেসথেসিয়া, জুনিয়র কনসালটেন্ট, গাইনি, মেডিসিন ও সার্জারী চিকিৎসকদের ৯টি, পাল্টাপুর ও নওপাড়া উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ২টি ও ইউনিয়ন উপ-কেন্দ্রে ৮টিসহ মোট ১৯টি ডাক্তারের পদ রয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্সে বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মোঃ নুরুল আজিজ জানান কর্মরত, ডাঃ নাঈমা আহামেদ (৭ নভেম্বর/১৯৯৮ইং), ডাঃ দিল আফরোজ নাজনীন হোসেন (৫ সেপ্টম্বর/২০১১ইং), ডাঃ ফয়সাল আহম্মেদ (৯ অক্টোম্বর/২০১৩ইং) ৩জন ডাক্তার দীর্ঘদিন ধরে মেডিকেল অফিসারের পদ দখল রেখেই নিখোঁজ রয়েছেন। জুনিয়র কনসালটেন্ট গাইনী, জুনিয়র কনসালটেন্ট মেডিসিন, ২মেডিকেল অফিসার সহ ৭জন ডাক্তার অনুপস্থিত থাকার কারনে সাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

এ ছাড়াও নার্সিং সুপার ভাইজার, সিনিয়র ষ্টাফ নাসের্র ৩টি পদ, ৩য় শ্রেণী স্বাস্থ্য সহকারী ১৯টি পদ ওয়ার্ড বয়, প্যাথলজী, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও সুইপারসহ ৩১ শর্য্যা হিসেবে প্রায় ৪১টি পদ শশু রয়েছে। ৩৩টি ইউনিয়ন কমিউনিটি সেন্টার স্বাস্থ্য সহকারী ও এফ ডাবলু এফ দ্বারা শুরু থেকে চিকিৎসা সেবা পরিচালনার পর সম্প্রতি একজন কর্মকর্তা সরকার নিয়োগ ও প্রশিক্ষন দিয়ে পাঠিয়েছে।

এছাড়াও এ্যামবুলেন্সটি বিকল হয়ে পড়ে থাকার কারনে মুমূর্ষ রেগী পরিবহন করা মারাত্বক সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে। এ্যাক্স-রে মেশিনটি যখন তখন নষ্ট হয়ে যাওয়ায় রোগিদের সমস্যা বেড়ে যায়। ডায়াবেটিক যন্তের ব্যাটারী নষ্ট হয়ে বিকল হওয়ার কারনে সেবার কাজ বন্ধ রয়েছে। এলাকাবাসী অত্যাধুনিক এক্স-রে মেশিন ও এ্যামবুলেন্স দাবি জানিয়ে আসলেও তা পুরন হয়নি।

ছোট-খাটো অস্ত্র প্রাচারের জন্য স্থানীয় ক্লিনিকে অথবা দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ সহ অন্যান্য ক্লিনিক বা হাসপাতালে যেতে হচ্ছে। গর্ভবতী সিজার করার সুন্দর অপারেশন থিয়েটার থাকার পরও সিজারের ব্যাবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়ে রোগীদের দিনাজপুর জেলা সদরে নিয়ে যেতে হচ্ছে।

জনপ্রতিনিধিরা জানান হাসপাতালে ভাল চিকিৎসা মিলছে না। কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন আমি সেবা দেওয়ার জন্য নাওয়া খাওয়া ভুলে গিয়ে পরিবারের লোকজনদের কথা ভেবে সেবা দিতেই এখানে চলে এসেছি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মোঃ নুরুল আজিজ বলেন, আমি প্রশাসনিক দায়িত্ব পেয়ে এখানে এসে সেবারমান উন্নত করার প্রতিজ্ঞা করেছি কিন্তু যোগদানের পর হতে চিকিৎসক কর্মচারী অভাবে রাত-দিন কাজ করেও ভাল করতে পারছিনা। কারন হিসেবে তিনি জানান দরিদ্র মানুষের সংখ্যা খুবই বেশী, রোগীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। শতভাগ লোকবল প্রদান করলে উপজেলাবাসী উন্নত চিকিৎসার সেবা পাবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email