মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমেও ৪০টি পরিবার অর্ধাহারে-অনাহারে স্বপ্নদ্রষ্ঠার সন্ধানে মৃৎশিল্পীরা

Mrigk Shilpo 2মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকেঃ হিমালয়ের পাদদেশে অবহেলিত উত্তর বাংলাদেশের একটি উপজেলার নাম বীরগঞ্জ। এই উপজেলার মৃৎশিপ্লের সুনাম ছিল উত্তরাঅঞ্চল জুড়ে, মৃৎশিপ্লীদের কারুকার্যময় মাটির জিনিসে মুগ্ধ হতো যে কোন মানুষ, এদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে উঠতো অনেকে। কিমত্ম আজ  মৃৎশিল্পীরা কে কোথায় আছে, কিভাবে আছে, এমনকি বেঁচে আছে না মরে গেছে তা নিয়ে কারো মাথা ব্যাথা নেই। অথচ সামান্য সহযোগীতা পেলে বিলুপ্ত প্রায় মৃৎশিল্পকে বাঁচিয়ে রাখার পাশাপাশি নিজেদের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে সক্ষম হতো মৃৎশিল্পীরা। আগের দিনে মাটির পাতিলে যে মাংস পাক হোতো তা ছিলো মান সম্মত এবং খেতে সুস্বাধু । এ শিল্প সুধুই যে ঐতির্য্যবাহী তা নয় সাস্থ্যকরও বটে, মাটির সানকে ভাত খাওয়ার সময়, সানকের পোড়া মাটির মিষ্টি গন্ধ আমাদের দেশের কথা, মায়ের কথা, স্মরন করিয়ে দিত। নিজের ভিতর একটা দেশপ্রেম দেশপ্রেম ভাব চলে আসতো।

মৃৎ শিল্পের সাথে সাথে আমাদের দেশ প্রেমও উঠে যাচেছ । বাজারে যেই হারে অসাস্থ্যকর-  এ্যালুমেনিয়াম, স্টীল, চিনামাটি ও প্লাষ্টিকের তৈজসপত্রের ছড়াছড়ি সেখানে মাটির তৈরী হাড়ি-পাতিল, সড়া, গ্লাস, কলসী ইত্যাদির ব্যবহার যৎ সামান্য। তাই নিঃসন্দেহে বলা যায়, এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী এই পেশাজীবি মৃৎশিল্পীরা মোটেই ভালো নেই। আজ তারা হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম, এবং এক সময় সত্যি সত্যি হারিয়ে যাবে, কিন্তু ইতিহাস, ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির মাঝে তারা চিরদিন বেঁচে থাকবে।      প্রয়োজনীয় উপকরণ, পুঁজি ও সরকারী সাহায্য ,সহযোগিতা না থাকায় এ শিল্পের সাথে জড়িত অনেকেই এখন পূর্ব পুরুষদের এ ঐতিহ্যবাহী পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় জড়িয়ে পড়েছেন।

সরেজমিন পরিদর্শনে জানা গেছে, এক সময় উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের চৌপুকুরিয়া মৌজার পালপাড়া যা এখন (গোয়াল পাড়া নামে পরিচিতি পাচ্ছে) ৪০টি পরিবার মৃৎশিল্পের সঙ্গে জড়িত ছিল। বর্তমানে প্রতিযোগীতার এই বাজারে অ্যালুমিনিয়াম, প্লাস্টিক ও স্টীলের তৈরী তৈজসপত্রের সাথে প্রতিযোগিতা করে মাটির তৈরী তৈজসপত্র টিকতে পারছে না বলে এসব পরিবারের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে এবং সেই সাথে তাদের সংসারে নেমে এসেছে অভাব অনটন। হিন্দু ধর্মাবলম্বী পাল সম্প্রদায়ের একটি বিরাট অংশ মৃৎশিল্পের সাথে জড়িত। স্থানীয় ভাবে তারা কুমার বা পাল নামে পরিচিত। এদের কারো কারো বসবাসের জন্য সামান্য ভিটে থাকলেও অধিকাংশই বর্তমানে ভূমিহীন। তারা অন্যের জায়গায় ঘর করে কোনমতে দিন পার করছেন। কয়েকজন মৃৎশিল্পী ক্ষোভের সাথে জানান, কেউ তাদের খোঁজ নেয় না, কেউ জানতে চায় না তাদের জীবনের চলমান সুখ-দুঃখ ও সমস্যার কথা।

পালপাড়া গ্রামের রেখা রানী পাল জানান, বছরের বার মাস হাড়ি-পাতিল, সরা, লোটা, কলস, ঝাঁঝর, ফুলের টব সহ বিভিন্ন ধরনের মাটির সামগ্রী তৈরী করি। বর্তমানে জ্বালানি কাঠের দাম বেশি হওয়ায় ১ ভাটা মাল পোঁড়াতে ১২ থেকে ১৫’শ টাকা খরচ হলেও তা বিক্রি করে ২-৩’শত টাকার বেশী লাভ হয় না, অনেক সময় লাভ থাকে না সমানে-সমান হয়। অনেক সময় এসব সামগ্রী ভেঙ্গে যায় ও অবিক্রিত থাকায় লাভের অংশ সেখানেই থেকে যায়। এমনি এক মৃৎশিল্পী স্বপন পালের সাথে কথা হলে তিনি জানান, মাটির জিনিসপত্র এখন আর কেউ নিতে চায় না, অনেক দূর-দূরান্ত ঘুরে যা বিক্রি করি তা দিয়ে কোনো রকমে খাওয়া খরচ চললেও কাপড়-চোপড়, ঔষধ-পথ্যসহ অন্যান্য অনেক চাহিদাই থেকে যায় ধরা ছোয়ার বাইরে। মাটির তৈরী এ কাজে হাড়ভাঙা পরিশ্রম অথচ আয় বলে কিছু নেই। পূর্বপুরুষের ঐতিহ্য রক্ষায় এ পেশা ধরে আছি মাত্র। এহেন অভাব আর নিদারুন কষ্টের মাঝেও এই পাল সম্প্রদায়ের একটি বড় অংশ এখনো পূর্ব পুরুষের রেখে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী এ পেশাকে আকড়ে ধরে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন।

মৃৎশিল্পী অতুল পাল জানান, এক সময় ছিল যখন আমাদের কোনো কিছুই কিনে খেতে হয়নি, গ্রামে ধানের বিনিময়ে মাটির তৈরী জিনিসপত্র বিক্রি করে যে ধান পেতাম তা দিয়ে সারা বছর চলত, এখন আর কেউ ধান/চাউল দিয়ে কিনে না, তাই সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে। তিনি দুঃখ করে বলেন ‘‘আমাদের মূল্য নেই, কিমত্ম আমাদের ভোটের মূল্য আছে’’ তাই নির্বাচন এলে আমাদের কিছুটা মূল্যায়ন হয়। বিভিন্ন দলের নেতা কর্মিরা এসে বিভিন্ন ধরনের আশ্বাস দেন, স্বপ্ন দেখান, তখন আশায় বুক বাধি এবারের সরকার আমাদের জন্য, কোন পদক্ষেপ নিবেন, কিন্তু আমাদের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কোন সরকার এখন পযমত্ম বাসত্মব কোন পদক্ষেপ নেন নাই। ভবিশ্যতে কোন সরকার নিবেন বলেও আশা করতে ইচেছ করেনা। তবুও মানুষ স্বপ্ন দেখে,আমরাও দেখছি।

এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে পরিবার ভিত্তিক সুদ বিহিন ব্যাংক ঋণ, মৃৎশিল্পের উপর আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগ সম্পর্কে প্রশিক্ষণ সহ কারিগরি উপকরণ সরবরাহের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারী-বেসরকারী ও এনজিও সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগীতা কামনা করছি। সেই সাথে সরকার সহ সকল মহলকে মনে করিয়ে দিতে চাই, সহযোগীতা পেলে এই শিল্পকেই একমাত্র অবলম্বন করে এখনো সুন্দর ভাবে এই পরিবার গুলোর বেঁচে থাকা সম্ভব এবং ভবিষৎ এর জন্য এই শিল্পকেও বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব। আজকে আমাদের প্রয়োজনে দেশের সংস্কৃতি ও ঐতিয্য রক্ষার প্রয়োজনে এ শিল্পকে বাচিয়ে রাখা আমাদের সকলের নৈতিক দ্বায়িত্ব।  এ ব্যাপারে সরকারের উচিৎ বানিজ্যি মন্ত্রনালয় অর্মতভূক্ত করে যে সব ঐতিহ্যবাহী শিল্প হারিয়ে যেতে বসেছে যা কিনা আমাদের দেশের জন্য গর্বের। তার সংরক্ষনের ব্যবস্থা গ্রহন করা।