বুধবার ৫ অগাস্ট ২০২০ ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ উপজেলায় এবারও শ্রেষ্ঠ গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর থেকে বিকাশ ঘোষ॥  জ্ঞানই শক্তি। আর জ্ঞান অর্জনের উৎকৃষ্ট স্থান হলো একটি আদর্শ শিক্ষার স্কুল। শিশু শিক্ষিত হলে জাতি শিক্ষিত হবে এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ১৯১৭ সালে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে দিন দিন সাফল্য অর্জন করে আসছে। এবার গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়  শ্রেয়শী সরকার ৫৯৬ পেয়ে প্রথম বীরগঞ্জ উপজেলায় স্থান লাভ করে আরো একধাপ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বীরগঞ্জ উপজেলায় ২৩০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে  প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষায় ৭৯ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে ৭৯ জনের মধ্যে ৪১জন গ্রেট এবং ৩৮ জন ৪ পয়েন্টের মধ্যে উত্তমর্ণ হয়েছে। যাহার মধ্যে ৫৯৬  পেয়ে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন মনোজ কুমার সরকারের কন্যা শ্রেয়শী সরকার। অত্র বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা ২০১০ সালে পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন ৫১জনের মধ্যে সকলেই ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে সারাদেশে ১৯ তম স্থান পেয়েছিল। এর সাফল্যতায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্রীদাম চন্দ্র দাস বিদেশে শিক্ষা সফরে যাওয়ার সুযোগ পায়। ২০১০ সালে বীরগঞ্জ উপজেলার প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে আশরাফুল ইসলাম ২য় স্থান অর্জন করেছেন ।  ২০১৯ সালের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি প্রতিযোগিতায় এই বিদ্যালয়ের ৯জন  শিক্ষার্থী ঢাকাসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছেন। বিদ্যালয়টি থেকে দুইজন ডাক্তার, ১জন প্রকৌশলী হয়েছেন। বর্তমানে গোলাপগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ৫০০ জনের মতো শিক্ষার্থীরা তাদের পাঠদান করছেন কোনো মতো গাদাগাদি করে । বিদ্যালয়টির ১টি ভবন জরুরি ভিত্তিতে স্থানপনের প্রযোজন। সবচেয়ে দৃষ্টিনন্দন বিদ্যালয়টি গোলাপগঞ্জ হাটের সড়কের আদলে অনেক সময়ে ছাত্র-ছাত্রীরা ছোট-বড় দুর্ঘটনা শিকার হচ্ছে। বিদ্যালয়টির জন্য বাউন্ডারি ওয়ালের ও একটি গেটের প্রয়োজন। বিদ্যালয়ের সুশিক্ষিত দক্ষ শিক্ষক-শিক্ষিকার দ্বারা কড়া শাসন ও স্নেহ মায়া – মমতায় দিয়ে  বিদ্যালয়টিতে ১০০ ভাগ পাসের মাধ্যমে গড়ে  তোলা হচ্ছে একজন আদর্শ সুশিক্ষিত শিক্ষার্থী হিসেবে। রোববার সরেজমিনে গেলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্রীদাম চন্দ্র দাস  সাংবাদিকদের জানান, শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। আর সেই শিক্ষার মূল্যভিত্তি প্রাথমিক শিক্ষা। কিন্তু সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে পাঠ্যদানের ব্যাপারে কেবল পাঠপুস্তকেই সীমাবদ্ধ। এছাড়া সুদক্ষ শিক্ষকের অভাব সহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জড়িত রয়েছে ফলে শিক্ষার মুল উদ্দেশ্য ব্যাহত হওয়ায় হতাশাগ্রস্ত অভিভাবকগণের কথা চিন্তা করে এবং শিশুদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের লক্ষ্যে আমাদের এই প্রচেষ্টা।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email