রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ২৮হাজার ২শত ০৯টি ভোট বাতিল

Upjala-02

গত ২৭ ফেব্রুয়ারী বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে । নির্বাচনে এবার আশংকাজনক ভাবে বেড়েছে বাতিল ভোটের সংখ্যা। বাতিল হয়েছে ২৮ হাজার ২ শত ০৯টি ভোট।

নির্বাচন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৫জন প্রার্থী। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৪ জন প্রার্থী।

উপজেলায় মোট ভোটার ২লক্ষ ০২হাজার ৩শত ২২জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লক্ষ ০১হাজার ৫শত ১৬জন। মহিলা ভোটার ১লক্ষ ৮শত ০৬জন। মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ছিল ৮০টি। বুথ ৫শত ০২টি। ভোট প্রদান করেছেন ১লক্ষ ৩৩হাজার ২শত ০২জন ভোটার। ভোট পড়েছে করেন শতকরা ৬৪.৭৭ ভাগ।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক সংসদ সদস্য মো: আমিনুল ইসলাম ঘোড়া প্রতিক নিয়ে ৫১ হাজার ৩৫ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি দোয়াত কলম প্রতিক নিয়ে ডা. কে এম কুতুব উদ্দিন  পেয়েছেন ৩২হাজার ৫শত ৩০ ভোট। বিএনপি মনোনিত প্রার্থী কাপ পিরিচ প্রতিক নিয়ে আলহাজ্ব এ্যাড. মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ চৌধুরী পেয়েছেন ৩১ হাজার শত ৮৬ভোট, বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আকতারুল ইসলাম চৌধুরী বাবুল আনারস প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ১১হাজার ১শত ভোট, মোঃ রেজওয়ালনুল ইসলাম রিজু মটর সাইকেল প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৭হাজার ১শত ৭৫হাজার

এখানে ভাইস চেয়ারম্যান পদে টিউবওয়েল প্রতিক নিয়ে একেএম কাওসার পেয়েছেন ৫৭হাজার ৫শত ৮৫ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান গোপাল দেব শর্মা চশমা প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৩৯হাজার ২শত ৫২ ভোট, লিমন সরকার তালা প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ২০হাজার ৩শত ভোটদবির উদ্দিন উড়োজাহাজ প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ১০হাজার ৬শত ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত পৌর কাউন্সিলর সেলিনা আক্তার কলস প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৬২হাজার ৯শত ৮৪ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেননিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি অনিতা রায় হাস প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৫১হাজার ৪শত ৬২ভোট। বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা: শাহানাজ পারভীন পেয়েছেন ৭হাজার ৬শত ৬০ভোট। লীলা রাণী দাস পদ্ম ফুল মার্কা নিয়ে পেয়েছেন ১হাজার ৮শত ৮৩ভোট।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের ভোগনগর ইউনিয়নের পল্লী শ্রী এলাইগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোহনপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পলাশবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং মাটিয়াকুড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় পুরুষ কেন্দ্রে কোন ভোট বাতিল হয়নি।

চেয়ারম্যান পদে সবচেয়ে বেশি বাতিল হয়েছে পাল্টাপুর ইউনিয়নের সনকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৭৯টি ভোট। ভোগনগর ইউনিয়নের রহিম বখস উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১৭৫টি। মরিচা ইউনিয়নের মরিচা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৭৩টি ভোট।

পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে সবচেয়ে বেশী বাতিল হয়েছে শতগ্রাম ইউনিয়নের ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মহিলা কেন্দ্রে ২০৩টি। মরিচা ইউনিয়নের মরিচা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৯৯টি। ভোগনগর ইউনিয়নের গান্ডারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ১৮৮টি।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সবচেয়ে বেশী বাতিল  ভোগনগর ইউনিয়নের নন্দগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ৩৪৩টি। মরিচা ইউনিয়নের মরিচা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩২৩টি এবং নাগরী-সাগরী সরকারী প্রাথমিক কেন্দ্রে ২৯০টি ভোট।  

নির্বাচনে উপজেলা বীরগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে ভোট বাতিল হয় হাজার ৬শত ৬০টি ভোট।  নিকটতম পরাজিত প্রার্থী ১৮ হাজার ৫০৫ ভোট কম পান।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে বাতিলের সংখ্যা হাজার ৪শত ১৫ এবং ব্যবধান ১৪ হাজার ২শত ১২ভোট। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বাতিল ১২ হাজার ৮শত ২৭ ভোট এবং ব্যবধান ১৫ হাজার ৩শত ২৪

উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো: শামসুল আজম জানান,ব্যালটের নির্ধারিত ছকের বাইরে সিল দেয়া এবং একই পদে একাধিক প্রার্থীকে ভোট দেয়াসহ বিভিন্ন ত্রুটির কারণে এসব ভোট বাতিল করা হয়েছে অতি প্রবীণ ভোটার এবং একবারেই অশিক্ষিত ভোটারদের ভোট বেশি বাতিল হয়েছে। ভোটারদের প্রশিক্ষণ দিয়ে সচেতন করা হলে এসব ভোট নষ্ট হতো না বলে তিনি জানান।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email