শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজকে সরকারী করণের প্রজ্ঞাপন জারি।আনন্দের জোয়ারে ভাসছে বীরগঞ্জবাসী

ফজিবর রহমান বাবু ঃ দিনাজপুর ঐতিহ্যবাহী বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজকে সরকারী করণের প্রজ্ঞাপন জারি করায় ওই এলাকার মানুষ আনন্দের জোয়ারে ভাসছে। খুশীর ঢেউ ছড়িয়ে পড়েছে ক্যাম্পাসসহ পুরো বীরগঞ্জ উপজেলাজুড়ে। তবে আগষ্ট শোকের মাস হওয়ায় আনন্দ র‌্যালীসহ সকল কর্মসূচী থেকে বিরত থাকে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। গতকাল রোববার বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজসহ দেশের ২১৭টি কলেজ সরকারী করণের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের বেসরকারী কলেজ-৬ অধিশাখার ওয়েব সাইটে প্রকাশ করা হয়। যার স্মারক-৩৭০০.০০০০.০৭০.০০২.০০৪.২০১৮-৮৩। গত ৮ আগষ্ট দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজসহ দেশের ২১৭টি কলেজ সরকারী করণের চুড়ান্ত অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কলেজটি সরকারী হবার পেছনে যার ভূমিকা অগ্রগণ্য এবং কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল মহান ¯্রষ্ট্রার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমার চিন্তা, চেতনায় এলাকার উন্নয়ন। এখানকার ছেলে-মেয়েদের উন্নয়ন, এ এলাকার শিক্ষার প্রসার। সে কারনে আমি সব সময় শয়নে, স্বপনে, নিদ্রায়, জাগরনে শুধু এখানকার উন্নয়নের কথাই ভাবি। আমি বীরগঞ্জ ও কাহারোলের উন্নয়নে নিজেকে সর্বদা উৎসর্গ করে রেখেছি। তিনি বলেন, কলেজটি সরকারী করাটা খুবই জরুরী ছিল। সেজন্য আমি প্রধানমন্ত্রী জাতির জনক কন্যা শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদের নিকট বিষয়টি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে তুলে ধরি। অবশেষে তারা আমাদের এ কলেজ সরকারী করে কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ করেছেন। তাদের প্রতি এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আমি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

একইভাবে কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ খয়রুল ইসলাম চৌধুরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালকে কলেজ পরিচালনা কমিটির, শিক্ষক মন্ডলী, কর্মচারী, শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেছেন, বর্তমান শিক্ষা বান্ধব এ সরকারের একান্ত আন্তরিকতায় কলেজটি সরকারী করণ সম্ভব হয়েছে। এ মধ্য দিয়ে অবহেলিত এ জনপদের জীবন মান উন্নয়নসহ শিক্ষা সংস্কৃতিতে আমূল পরিবর্তন সম্ভব হবে।

বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের গভর্ণিং বডির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম বলেন, বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ সরকারী করণ বীরগঞ্জের অব্যাহত উন্নয়নের সারিতে একটি নতুন সংযোজন। এ এলাকার কৃতি সন্তান মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এটি সম্ভব হয়েছে। বীরগঞ্জের মাটি-মানুষের প্রিয় এ নেতার অব্যাহত উন্নয়নের জন্য, সকলেই এখন কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। তিনি বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাতির জনক কন্যা শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে যে মানুষ কিছু না কিছু পায়, এটি তার জ্বলন্ত প্রমাণ। আমরা বীরগঞ্জবাসী তাঁর কাছেও কৃতজ্ঞ। একই সাথে শিক্ষামন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে মামুন, রিহা, রিপা, শরিফুল, টুম্পা রায়, সাদ্দামসহ অনেকে জানান, এটি বীরগঞ্জ-কাহারোলসহ এ এলাকার জন্য অনন্য উপহার। এজন্য এলাকার শিক্ষার্থীরা এমপি গোপালের নাম আজীবন স্মরণ রাখবে।

উল্লেখ্য, ঐতিহ্যবাহী বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজটি ১৯৭২সালে বীরগঞ্জ উপজেলার শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিদের উদ্যোগে এবং জেলার বীরগঞ্জ, কাহারোল এবং খানসামা এলাকাবাসীর সহযোগীতার প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই সময়ে কলেজটি প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন মরহুম আলহাজ্ব বজির উদ্দিন আহমেদ,  মরহুম আলহাজ্ব হবিবার রহমান, মরহুম খেরাজ উদ্দিন শাহ, মরহুম মোঃ আব্দুল বাসেদ, মরহুম আব্দুল খালেক, মরহুম এটিএম আমিনুল ইসলাম, মরহুম নজরুল ইসলাম চৌধুরী, মরহুম আজমল হক চৌধুরী, মরহুম তফির উদ্দিন চৌধুরী, মরহুম কাবিরুল ইসলাম চৌধুরী, স্বগীয় ললিত মোহন রায় এবং স্বগীয় প্রতাপ চন্দ্র রায় প্রমুখ। কলেজটি প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এ্যাড. আজিম উদ্দিন আহমেদ।

১৯৭২ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে মানবিক, বিজ্ঞান ও ব্যবসা শিক্ষা শাখা নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে ১৯৮১সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিএ/বিএসসি/বিকম কোর্স  স্নাতক পর্যায়ে অধিভূক্ত হয়। ২০০৮সালে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) নির্বাচনী এলাকার জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল কলেজটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। সংসদ সদস্যের নিরবিছিন্ন পরিশ্রম ও আন্তরিকতায় এই প্রতিষ্ঠানে বাংলাদেশ কারিগরি বোর্ডের অধীনে উচ্চ মাধ্যমিক ও বিএম শাখা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে স্নাতক পর্যায়ে বিএ/বিএসএস প্রোগ্রাম ও জাতীয়  বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলা, সমাজ বিজ্ঞান,রাষ্ট বিজ্ঞান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু করা হয়।