সোমবার ২১ মে ২০১৮ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও দিনাজপুর নাট্য সমিতির সভাপতি মির্জা আনোয়ারুল ইসলাম তানু’র প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

রফিক প্লাবন, দিনাজপুর ॥- দিনাজপুর নাগরিক সমাজের অন্যতম অভিভাবক মির্জা আনোয়ারুল ইসলাম তানু’র প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালন। তাঁর মৃত্যুবার্ষিকীতে দিনাজপুর নাট্য সমিতির পক্ষ হতে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকাল ১১ টায় ছানাপীর গোরস্থানে তার কবর জিয়ারত, বিকেল ৫ টায় নাট্য সমিতিতে তাঁর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পন, সাড়ে ৫ টায় জীবনভিত্তিক তথ্যচিত্র প্রদর্শনী এবং স্মরণসভা।
স্মরণসভায় দিনাজপুর নাট্য সমিতি গৃহে অনুষ্ঠিত হবে। এরপর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হবে।
উল্লেখ্য, দিনাজপুর নাট্য সমিতির সভাপতি ও নাগরিক সমাজের অন্যতম অভিভাবক মির্জা আনোয়ারুল ইসলাম তানু ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারী দুপুর ১২টায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর।
বীর মুক্তিযোদ্ধা, ভাষা সৈনিক, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও দিনাজপুর নাট্য সমিতির সভাপতি সিপিবি দিনাজপুর জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি মির্জা আনোয়ারুল ইসলাম তানু পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর গ্রামে ১৯৩৫ সালের ১০ মে তারিখে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৪ সালে দিনাজপুর জিলা স্কুল থেকে মেট্রিক পাশ করেন। স্কুলে অধ্যয়নকালে তাঁর বন্ধু সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রয়াত সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোহাম্মদ ফরহাদসহ ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।
তৎকালীন ছাত্র ইউনিয়নের নেতা হিসেবে ১৯৬২’র ছাত্র আন্দোলন, ’৬৯ এর গণ-অভ্যুত্থানে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ন্যাপ -কমিউিনিস্ট- ছাত্র ইউনিয়ন যৌথ গেরিলা বাহিনীর সংগঠক হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে দিনাজপুরে সর্বদলীয় নেতা হিসেবে নেতৃত্ব দেন। ১৯৮৫ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট দিনাজপুরের আহবায়ক এবং পরবর্তীতে সভাপতি এবং দিনাজপুর উদীচীর সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি ১৯৯৪ সাল হতে সাপ্তাহিক দেশবার্তা ও ২০০১ সাল হতে প্রকাশিত দৈনিক আজকের দেশবার্তার প্রধান সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি ” সংবাদ পাঠক ফোরাম” দিনাজপুরের সভাপতি ছিলেন।
যুদ্ধ শেষে দেশ পূণর্গঠনে দিনাজপুরে আত্মনিয়োগ করেন। ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি এবং দলটির কন্ট্রোল কমিশনের সদস্য ছিলেন। ১৯৬৩ সালে নাট্য সমিতির সদস্য এবং ১৯৯৪ সালে নাট্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং ২০১৪ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি নাট্য সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।