বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০১৮ ১২ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বেলা অবেলার আহ্বান

“There is nothing ‘Again’. Because I know that time is time and place is always and only place and what is actual is actual only for one time and only for one place, I rejoice that things are as they are and I renounce the blessed faces and renounce the voice because I cannot hope to turn again.” – T.S Eliot

যা হারিয়ে যায় তা আর ফিরে পাওয়া যায়না। তবুও আমরা বার বার ফিরে যেতে চাই সেই পুরোন দিনে ফিরে পেতে চাই আমাদের শৈশবকে।হারিয়ে যাওয়া দিন গুলো প্রায়শ ডাকে ‘”আয় তোরা আয়, ফিরে আয় আমার কোলে”।

তাইত সেই হারিয়ে যাওয়া দিনের ডাকে আমরা সমাবর্তন/ পুনরমিলনী/রিইউনিওন/এলামনাই বিভিন্ন নামে পুনরায় একত্রিত হই, স্মৃতি বিধুর পুরানা দিনের গল্পে মেতে উঠি কিছুক্ষনের জন্যে।

অন্য দশজনের মত আমারও স্মৃতি ঘিরে রয়েছে আমার শৈশব, আমার খেলার মাঠ, খেলার সাথী, স্কুলের বন্ধু, আমার শিক্ষক। তাদের একসাথে ফিরে পেতে আমিও স্মৃতি কাতর হয়ে পরি। এখনও সেইরকম সুযোগ হয়ে উঠেনি। প্রায়শ শুনি একের পর এক কালে অকালে অনেকেই আমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছে।ভাবি সেই সুযোগটি হওয়ার আগেই আমিও চলে জাবনাত।

আমরা কি পারিনা সমাবর্তন/ পুনরমিলনী/রিইউনিওন/এলামনাই নাম করে অনেকে মিলে সেই শৈশবে ফিরে যেতে। পারিনা আমাদের ঐতিহ্যবাহী স্কুলের অর্ধ সেঞ্চুরী বর্ষ পুনরমিলনী নাম করে সব দল, ধর্ম, আঞ্চলিকতা বিভেদ ভুলে আবার কিছুক্ষনের জন্যে এক হতে।

আমার বড়, ছোট, সমবয়েসীরা তাদের নিজস্ব কর্ম পরিসীমার বাইরেও সামাজিক রাজনৈতিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে রয়েছে। তারা এখনও এলাকার বিভিন্ন দুর্যোগকালীন সময়ে ছুটে জায় নাড়ির টানে বিপদ্গ্রস্থ মানুষের পাশে। কেনইবা কুন্ঠা বোধ করব তাদের কাছে বেলা অবেলার এ আহ্বান করতে। আমাদের বীরগঞ্জে রয়েছে জাকারিয়া জাকা, রয়েছে এরশাদুল ভাই, রয়েছে বন্ধু নমিরুল ইসলাম সেনা, রয়েছে সুভাস দা, রয়েছে বাহার ভাই, রয়েছে কাজ প্রেমীক মিন্টু সহ আরও অনেকে। যারা প্রিয় জন্মভুমির টানে আঁকড়িয়ে রয়েছে সেখানে।তাদের পাশে রয়েছে বীরগঞ্জ সমিতি, এস এ বিডি, অপরুপ বীরগঞ্জের এক ঝাঁক ভলিন্টিয়ার। আমি এখনও বিশ্বাস করি ব্যাক্তি সুবিধার উরধে উঠে এনারা একত্রিত হলে সব কিছুই করা সম্ভব। তবে এ কর্ম যজ্ঞত আমার মত নামজানাহীন ব্যাক্তির ডাকে হবার নয়। তাই আমার মতে সময়ের বিবেচনায় একটু সুবিধাজনক অবস্থানে থাকা জাকারিয়া জাকা তার পরীক্ষিত নির্ভেজাল সমাজসেবা, পারিবারিক ঐতিহ্য, সাংগঠনিক সক্ষমতা, অর্থনৈতিক বিষয়ে পরিচ্ছন্ন ইমেজ কাজে লাগিয়ে রাজনৈতিক স্বার্থের উরধে উঠে দল মত নির্বিশেষে সবাইকে সাথে নিয়ে একটু অগ্রনীভুমিকা নিলে এবার মনে হয় এটা হয়ে উঠা সম্ভব।

আমরা অতীতের সেই শৈশব দিনগুলোকে ফিরে পাবোনা জানি, তবুও সেই দিনের কিছু শিক্ষককেত পাব। তাদের চরন পাশে বসে আমাদের ক্ষয়ে যাওয়া আত্না শুদ্ধির জন্যে একটু নিবেদনত পেশ করতে পারব । হারিয়ে যাওয়া বন্ধুদের জড়িয়ে বলতেত পারব,” বন্ধুরে কেমন আসিস, তোকেত কখনও ভুলার নয়”।

আমি বিশ্বাস করি এবার এটি ঢাকার কোন রেস্টুরেন্টে নামীদামী গুনী ব্যাক্তিদের সাথে আলোচনা কিংবা ডিনারের মধ্যে সীমাবদ্ধ্য থাকবে না। থেমে থাকবেনা আমার এ লেখার উপর শুধুই লাইক কিংবা কমেন্ট এর মাঝে। এটি অপেক্ষা করবেনা আর একটি শীত কিংবা বর্ষার জন্যে। বরং এটি বাস্তব রুপ পাবে সার্বজনীনদের অনেকদিনের আকুতির পূর্ণতার মধ্য দিয়ে বেলা অবেলায় যে কোন সময়ে। !!! “ বীরগঞ্জবাসী তোমরা সবায় আছেনত বাহে”।

Disclaimer: My humble effort is not intended to elevate/relegate any individual reputation. It is neither a directive nor a resolution.

 

লেখক-এটিএমএ মতিন

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা