সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বোচাগঞ্জের টাঙ্গন নদীতে অবৈধ ভাবে চলছে বালু উত্তোলন প্রশাসনের দৃষ্টি কোথায়?

মোঃ শামসুল আলম বোচাগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি॥ দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ উপজেলার ৫নং ছাতইল ইউনিয়নের সুকদেবপুর মৌজার পারঘাটা ব্রীজ সংলগ্ন টাঙ্গন নদীতে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবৈধভাবে ড্রেজার ও বোমা মেশিন দিয়ে দিনের পর দিন বালু উত্তোলনের মহোৎসব চললেও অজ্ঞাত কারণে প্রশাসনের দৃষ্টি যেন সেখানে পড়ছে না। এলাকার কৃষকসহ সচেতন মানুষ অবিলম্বে পারঘাটা ব্রীজ সহ চলাচলের পাকা রাস্তাটি রক্ষায় উপরোক্ত স্থান থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ সহ আইন অমান্যকারী চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের তরিৎ হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। জানা গেছে, জেলা প্রশাসনের কার্যালয়, দিনাজপুর এস,এ শাখা কর্তৃক বাংলা ১৪২৬ সনের জন্য বোচাগঞ্জ উপজেলাধীন টাঙ্গন নদীর পারঘাটা বালুমহলটি ১৫% ভ্যাট ও ৫% আয়কর সহ সর্বমোট ৫ লাখ ৫২ হাজার টাকায় বিরল উপজেলার পাইক পাড়া গ্রামের মোঃ আলাউদ্দীন পিতা-মত হুসেন আলীকে বাংলা ১৪২৬ এক বছরের জন্য শর্ত সাপেক্ষে ইজারা প্রদান করা হয়। জেলা প্রশাসন দিনাজপুর এস, এ শাখার ২৩/০৫/২০১৯ তারিখের স্বারক নং-০৫.৫৫.২৭০০.০১১.০৫.০৪০.১৯-১০৮১ (৫) এর  চুক্তিনামায় ১৩টি শর্তাবলীর মাধ্যমে বোচাগঞ্জ উপজেলার কুকুড়াডাঙ্গী, কোদালকাঠী ও সাদামহল মৌজার কয়েকটি অংশ থেকে বালু উত্তোলন করার কার্যাদেশ দেওয়া হলে উক্ত ঠিকাদার আলাউদ্দীন তার নিকটাত্বীয় মোঃ হযরত আলীকে সাব লিজ প্রদান করেন। বর্তমানে সাব ঠিকাদার হযরত আলী সরকারি সকল শর্ত অমান্য করে সুকদেবপুর মৌজার পারঘাটা ব্রীজ সংলগ্ন স্থান থেকে ৩টি ড্রেজার মেশিন ও ১টি বোমা মেশিনের মাধ্যমে বালু উত্তোলন করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। হেভি ওয়েট ১০ চাকার ট্রাক, ট্রাক্টর ও পাওয়ার ট্রলি দিয়ে প্রতি দিন অসংখ্য বার বিভিন্ন জায়গায় বালু নিয়ে যাওয়ার কারণে নদী সংলগ্ন মানুষ চলাচলের মাটির রাস্তাটি প্রায় ধ্বংস। পাকা রাস্তাটিরও বেহাল দশা। অবৈধভাবে বোমা ও ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করার ফলে নদীর ভূগভ্যর্¯’ দেবে যাওয়ায় এলাকার কৃষকরা হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্থ। এছাড়াও জেলা প্রশাসকের কার্যাদেশে ৩টি মৌজা থেকে বালু উত্তোলন করার কথা উল্লেখ থাকা সত্ত্বেও ঠিকাদার  শুধুমাত্র সুকদেবপুর মৌজার পারঘাটা থেকে বালু উত্তোলন করায় এলাকাবাসীর মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। বালু উত্তোলনের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফকরুল হাসানকে জানানো হলে তিনি বলেন, আমি এ বিষয়ে গোপনে তদন্ত চালাবো যদি ঠিকাদার আইন অমান্য করে বালু উত্তোলন করে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।