বুধবার ২৪ অক্টোবর ২০১৮ ৯ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বোদায় মরিচের ভালো ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

মোঃ লিহাজ উদ্দীন মানিক : পঞ্চগড়ের বোদায় মরিচের ভালো ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। বর্তমানে মরিচ চাষিরা গাছ থেকে মরিচ তুলে শুকানো কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কৃষকসহ কৃষি বিভাগের দাবী মরিচ চাষের জন্য এ উপজেলার মাটি খুবই উপযোগী।

উপজেলার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষিরা ধারদেনা করে মরিচ চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। কারণ বিগত বছরগুলোতে মরিচ চাষ করে অনেকে ভালো মুনাফা করেছে। চলতি বছরে মরিচের পচন রোগের কারণে ফলন কিছুটা বিপর্যয় হয়েছে।

মরিচ চাষিরা জানান, কৃষি বিভাগের সঠিক সহায়তা পেলে মরিচ চাষ করে আরো ভালো ফলন পাওয়া যেত। কৃষি বিভাগের লোকজন বিশেষ করে মাঠ পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তাই মরিচের রোগ প্রতিরোধে কি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এসব বিষয়ে কোনো পরামর্শ প্রদান করেনি।

ঝলইশালশিরি ইউনিয়নের মরিচ চাষি দেলোয়ার হোসেন জানান, এ বছর তিনি ২ বিঘা জমিতে মরিচের চাষ করেছেন। বিঘাপ্রতি উৎপাদন খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। আবহাওয়া ভালো থাকলে এবং মরিচ ঘরজাত (শুকনা মরিচ) করা সম্ভব হলে বিঘাপ্রতি ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকার মরিচ বিক্রি করতে পারবেন তিনি।

বেংহারী বনগ্রাম ইউনিয়নের মরিচ চাষি ওসমান গণি বলেন, এ বছর পচন রোগে তার প্রায় ১ বিঘা জমির মরিচে ক্ষতি হয়েছে। তবে বাজারে এ বছর প্রতিমণ শুকনা মরিচ সাড়ে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে, সে হিসেবে লাভই হবে বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ আল মামুন অর রশিদ জানান, এ বছর বৃষ্টিপাতের পরিমাণ তুলনামূলক বেশি হওয়ায় মরিচে অ্যানথ্রাক্সনোস (পচন) রোগের কিছুটা প্রভাব পড়েছে। মাঠ পর্যায়ের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিকভাবে কৃষকের পাশে রয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে ২৫৬০ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমার্ত্রা নিধারণ করা হয়েছে। কিন্তু লক্ষমাত্রার চেয়ে বেশি মরিচের আবাদ হয়েছে। চাষিরা স্থানীয় ও হাইব্রিড জাতের মরিচের চাষের দিকে ঝুকে পড়েছে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে কৃষক মরিচ ঘরজাত করে ভালো দাম পাবে বলে কৃষি বিভাগ ও কৃষকরা আশা করছেন।