মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ব্যবসায় মন্দা, কুলিরা কর্মহীন পেটেরক্ষুধা,সংসারের নিত্যদিনের ব্যয় মেটাতে সুতোর জাল বুনছেন কুলিরা

মাহাবুর রহমান,বিরামপুর(দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ এমনিতেই ব্যবসায় মন্দার প্রভার তার উপর অবিরাম টানা দুই দিন গুড়িগুড়ি বৃষ্টি হওয়ায় সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার গ্রামাঞ্চলের হাট বাজারের লোড-আনলোডের কাজে নিয়েজিত পরিবহন কুলি শ্রমিকদের মাঝে। কুলি শ্রমিকের নেতারা বলছেন, বর্তমানে কাজের অভাবে তাদের মধ্যে অনেকেই এই পেশাটি বদলাতে বাধ্য হচ্ছেন। কারন হিসেবে তারা বলছেন, রাজধানী ও দূরের বিভাগগুলো থেকে বড় ব্যবসায়ীরা  ট্রাক নিয়ে আসছেন না মফস্বলের আড়তগুলোতে।

সকাল হলেই খেটে খাওয়া মানুষগুলো যখন জীবিকার সন্ধানে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে ছুটে চলছে, ঠিক তখনই টিপটিপ বৃষ্টিতে দিনের স্বপ্ন ভেঙে গেছে সেই পরিশ্রমি মানুষগুলোর। থেমে গেছে দিনের কাজ। সময়ের আবর্তে ব্যবসায় নেমে এসেছে মন্দাভাব। কর্মহীন হয়ে পড়েছেন লোড-আনলোড কুলিরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার কাটলা বাজারের ধানহাটি এলাকায় দেখা হয় লোড-আনলোডের কাজে নিয়েজিত পরিবহন কুলি শ্রমিক আবুল কালামসহ বেশ কয়েক শ্রমিকের সঙ্গে। তারা আপন মনে হাতে সূতো ভরা মাকু ও অন্যহাতে ফাতির কারিকুটিতে একটি একটি জালের ফাঁস তৈরি হলেও জালের গিঁট থেকে মাঝেমাঝে দৃষ্টি সরে সেই দৃষ্টি চলে যাচ্ছে রাস্তার দূর সীমানায়, যে দৃষ্টি হয়তো বা শহর থেকে আসছে এমন ট্রাককেই খুঁজছে!

আবুল কালাম বলেন, আমাদের এই এলাকাটি ধানে চাষ বেশি। বর্তমানে ধান, চাল কেনা-বেচা অনেকটাই কম হওয়ায় তারা সুতোর জাল বুননে ব্যস্ত সময় পার করছে।

তিনি বলেন, দিনে বাজারে দুই থেকে তিনটি ট্রাক আসে। সেই ট্রাক লোড অথবা অন-লোড করে যে পনিমাণ আয় হয় এতে সংসার চালানো দায় হয়ে পড়েছে। তাই কাজ কম হওয়ার সুতোর জাল বেঁচে জীবিকা নির্বাহ করতে হচ্ছে।

আরেক শ্রমিক বলেন, প্রতিটি সুতোর জাল বুনতে খরচ হয় ১হাজার টাকা আর সেই জাল  বর্তমান বাজারে ২ হাজার থেকে ২৫০০ টাকায় বিক্রি হয়। একটি জাল বুনতে প্রায় ১ মাস সময় লাগে।

প্রতিদিন ট্রাক লোড-আনলোডের বিষয়ে তারা বলেন, ব্যবসায়ী নেই, ট্রাক নেই, জীবিকার পথ অনেকটাই বন্ধ। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে থেমে নেই পেটের ক্ষুধা, থেমে নেই সংসারের নিত্যদিনের ব্যয়। দিনের শেষে বাড়িতে দু‘মুঠো ভাতের অপেক্ষায় বসে থাকা স্ত্রী-সন্তানের জন্য চাল কিনে বাড়ি ফিরতে হবে এই চিন্তা মাথায় রেখেই শ্রমিকদের কেউ কেউ বেছে নিয়েছেন জীবিকার বিকল্প পথ।

জাল বুনার কাজে ব্যস্ত এমনই একজন পরিবহন কুলি বিরামপুর পৌর এলাকার ভবানীপুরের বাসিন্দা আবুল কালাম (৫৫)। তাঁর সাথে আলাপ হলে তিনি বলেন, ‘বৃষ্টি হলে বড় ব্যবসায়ীরা মালামাল নিতে আসেননা, আসলেও দিনে দু-একটি করে ট্রাক আসে। সারাদিনে প্রায় ১৫ জন কুলি মিলে ওই ট্রাকে লোড-আনলোড করে দেড় থেকে দুইশ টাকা টাকা ভাগে পান। আর সেই টাকা দিয়ে সংসার চলা অনেক কষ্টের।’              

লোড আন-লোড কাটলা ইউনিয়ন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ. সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বলেন, ‘প্রতিবছর এই সময়ে ব্যবসা মন্দা থাকায় কুলিরা অনেকটাই কর্মহীন হয়ে পড়ে। সেই সাথে অনেক শ্রমিকের মাথার উপর বিভিন্ন এনজিও থেকে নেয়া ঋণের  কিস্তি পরিশোধের বাড়তি চিন্তা। ফলে কিস্তির টাকা যোগাড় করতে আমাদের অনেকেই জাল বুনছি।’

আব্দুর রহিম আরো বলেন, চার-পাঁচজন মিলে কাজের ফাঁকে জাল বুনলে সপ্তাহে একটি করে জাল তৈরি করি।