মঙ্গলবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের বাঁধের ৩০০মিটার নদীগর্ভে

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১ মাসে কয়েক দফায় ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের বাঁধের ৩০০ মিটার নদীগর্ভে বিলিন হয় গোটা উপজেলা ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কর্তৃক ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙন থেকে চিলমারী উপজেলাকে রক্ষার ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে নিম্নমানের কাজ করায় প্রকল্প কর্তৃপক্ষের নিকট হস্তান্তরের আগেই তা ধসে গিয়ে ঐ এলাকার শতাধিক ঘরবাড়িসহ নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। প্রকল্পের বাঁধের ধসে যাওয়া এলাকা গুলো সংস্কারের মাধ্যমে উপজেলাকে রক্ষার জন্য কর্তৃপক্ষের কার্যকর কোন পদক্ষেপ না থাকায় উপজেলাবাসী আতংকিত হয়ে পড়েছে। কাঁচকোল উত্তর ওয়ারী এলাকায় মাসুদ এন্ড কোং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ১৮০৫৬ নম্বর সাইডের পাউবো বাঁধে ৩৫ মিটার জায়গা, কাচকোল দঃ ওয়ারী মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজরুল ইসলামের বাড়ী সংলগ্ন সুশেন চন্দ্রের (রুপান্তর জেভি) ঠিকাদারের ড৪-২/২ নম্বর সাইডের ৪৫ মিটার এলাকা, ওই এলাকার খন্দকার শাহিন আহমেদের ১৮০৪৯ নম্বর সাইডের বাঁধের প্রায় ৪০ মিটার এলাকা ধসে নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যায়। কাচকোল দঃ খামার এলাকায় সুশেন চন্দ্রের (রুপান্তর জেভি) ঠিকাদারের ড৪-২/২ নম্বর (আইডি-১৮০৪১) সাইডের ৮০ মিটার এলাকা, কাঁচকোল দক্ষিণ খামার মাঝিপাড়া এলাকায় ফরহাদ হোসেন ঠিকাদারের ড৪-১/২ নম্বর সাইডের প্রায় ১০০ মিটার বাঁধের ব্লক ধসে নদীতে বিলিন যায়। এ নিয়ে গত ০২ মাসের ব্যবধানে ওই এলাকার প্রায় ৩০০ মিটার ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের বাঁধের ব্লক ধসে নদীতে বিলিন যায়। এতে উপজেলা রক্ষার গোটা বাঁধটি হুমকির মুখে পড়ায় প্রকল্পের উদ্দেশ্য ভেস্তে যেতে বসেছে। একের পর এক জায়গায় ধসের সৃষ্টি হওয়ায় নিম্নমানের কাজকে দায়ী করছেন এলাকাবাসী। শনিবার বিকেলে ধসে যাওয়া কাঁচকোল দক্ষিণ খামার মাঝিপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা মেলে খোসাল চন্দ্রের স্ত্রী জোসনা রানীর। তিনি সদ্য ভেঙ্গে যাওয়া ঠাকুর ঘরের ঠাকুরদের মূর্তি সামনে নিয়ে শেষ সম্বল ভিটে মাটি টুকুর শোকে কাঁদছেন। এসময় ওই এলাকার রাকিবুল ইসলাম, রঘুনাথ, ফিরোজ, নুর আমিন, কার্তিক চন্দ্র, মোঃ এন বাবু, সুভাস চন্দ্রসহ উপস্থিত অনেকে জানান, চিলমারী রক্ষার বাঁধ নির্মানে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে সিসি ব্লক তৈরি এবং জিও টেক্সটাইল ফিল্টার ও ব্লক স্থাপনে কোন প্রকার নীতিমালা অনুসরন করা হয়নি। ব্লক ডাম্পিং এবং গাইড ওয়ালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ব্লক না থাকায় কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন জায়গায় ধসের সৃষ্টি হচ্ছে। স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্র ছায়ায় থেকে ওই সাইডের ঠিকাদারের লোকজন কাজে অনিয়ম দুর্নীতি করেছে বলেও অভিযোগ করছে স্থানীয়রা । কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন জায়গায় ব্লক ও পিচিং ধসে যাওয়ার ঘটনায় চরমভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বার বার নদী ভাঙ্গনের শিকার হওয়া নদীতীরবর্তি মানুষ।