মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বড় দু’দলের একাধিক প্রার্থী দিনাজপুরে নির্বাচনী সম্ভাব্য সব প্রার্থীই প্রচারনায় নির্বাচনী ব্যস্ত

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের ৬টি আসনে সম্ভাব্য সব প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দিনাজপুরে সৃষ্টি হয়েছে নির্বাচনী আবহ। জাতীয় রাজনীতিতে নানা সঙ্কট দেখা দিলেও দিনাজপুরের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৎপর হয়ে উঠেছেন। নিজেদের অবস্থান ঠিক রাখতে দলের নেতাকর্মী ও ভোটারদের মন জয় করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। রং-বেরংয়ের পোস্টার-ব্যানার সাঁটিয়ে নির্বাচনের প্রার্থিতা জানান দিচ্ছেন তারা। তবে প্রতিটি আসনেই বড় দু’দল অওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক প্রার্থী মনোনয়ন প্রাপ্তির চেষ্টা করছেন।
দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসন
বীরগঞ্জ এবং কাহারোল উপজেলা নিয়ে গঠিত দিনাজপুর-১ আসনে মহাজোটের সম্বাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে ৪ জনের। তাঁরা হলেন বর্তমান আওয়ামীলীগের এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আলহাজ্ব হামিদুল ইসলাম, সিপিবির জেলা সভাপতি আলতাফ হোসেন এবং আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল মালেক।
বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয়জোটের সম্ভাব্য প্রার্থী বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক আলহাজ্ব মনজুরুল ইসলাম মঞ্জু, বীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও বীরগঞ্জ উপজেলা জামায়াতের আমীর মাওঃ মোহাম্মদ হানিফ, জাপার প্রার্থী বীরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহিনুর ইসলাম।
্এলাকাবাসির ধারনা, মহাজোটের প্রার্থী হবার সম্ভাবনা উজ্জল মনোরঞ্জন শীল গোপালের। ২০ দলীয়জোটের মনোয়ন প্রাপ্তির সম্ভাবনা বেশী মাওঃ হানিফের। এই দু’জন প্রার্থী হলে তুমুলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। কারণ এমপি গোপাল অত্রাঞ্চলে খুবই জনপ্রিয় ব্যক্তি। তিনি নিজে হিন্দু ধর্মাবলম্বী এবং এই আসনে হিন্দু ভোটারের সংখ্যাও বেশী।
অপরদিকে মাওঃ হানিফও কম জনপ্রিয় নন। পৌর নির্বাচনে অনেকের বিরোধিতা সত্বেও মাওঃ হানিফ বিপুল ভোটের ব্যবধানে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।
তবে এ আসন থেকে বিএনপি’র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মনজুরুল ইসলাম মনজু। তিনি অনেক আগ থেকেই এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ, সভা-সমাবেশ ও মতবিনিময় সভা শুরু করেছেন। তাঁর সমাজসেবামূলক কার্যকলাপের কারণে ইতিমধ্যেই তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। এ আসন থেকে তাকে মনোনয়ন দিলে তিনি বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন বলে এলাকাবাসি অভিমত ব্যক্ত করেছেন।
এছাড়া এ আসন থেকে জেলা আওয়ামীলীগের আইন বিষযক সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব এ্যাড. হামিদুল ইসলাম, জেলা কমিউনিস্ট পাটির সভাপতি আলতাফ হোসেন, বীরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মো. শাহিনুর ইসলাম, এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর ডা. মোফাখ্খারুল ইসলাম প্রার্থী হবেন বলে জানা গেছে।
আসনটিতে বর্তমান ভোটার ————-। ২০১৪ সালে ৩ লাখ ৭ হাজার ২৮৬ জন এবং ২০০৮ সালে ২ লাখ ৭১ হাজার ৯২৮ জন।
দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ) আসন
বিরল ও বোচাগঞ্জ এ দু’টি উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে মহাজোটের সম্ভাব্য প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী বাবু সতীশ চন্দ্র রায়। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক এমপি ও সাবেক সেনা প্রধান লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান (যিনি দিনাজপুর-৩ আসনে মনোনয়ন প্রাপ্তির চেষ্টা চালাচ্ছেন) এবং বিরল-বোচাগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা বারের সাবেক সভাপতি বর্ষিয়ান জননেতা মরহুম এ এফ এম রিয়াজুল হক চৌধুরীর জৈষ্ঠ্য পুত্র বিশিষ্ট সমাজসেবক ও বোচাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির নবনির্বাচিত সভাপতি আলহাজ্ব মো. সাদিক রিয়াজ চৌধুরী পিনাক। বোচাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মঞ্জুরুল ইসলাম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এম এ জলিল, জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ড. আনোয়ার চৌধুরী জীবন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর হাফেজ তাজুল ইসলামের নামে শোনা যাচ্ছে।
এ আসনে ত্রিমূখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল। মহাজোটের প্রার্থি বর্তমান এমপি খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বা সতীশ চন্দ্র রায় যিনিই পান না কেন তিনি মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকবেন। বিএনপির একই অবস্থা, যিনিই মনোনয়ন পাবেন তিনিই থাকবেন প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। তবে আলহাজ্ব মো. সাদিক রিয়াজ চৌধুরী পিনাক প্রার্থী হলে তার বিজয়ী হবার সম্ভাবনা উজ্জল। এলাকায় নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়। তার পিতা মরহুম এ এফ এম রিয়াজুল হক চৌধুরীও ছিলেন দারুন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব। এছাড়া বিবিধ কারণে এ আসনে আওয়ামী লীগের গ্রহনযোগ্যতায় ধ্বস নেমেছে। তবে এ আসনে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন বোচাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ রংপুর বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট শিক্ষক নেতা অধ্যাপক মঞ্জুরুল ইসলাম। তিনি ইতোমধ্যে এলাকায় গনসংযোগ ও সভা-সমাবেশ করে তার পক্ষে সমর্থন আদায়ে সচেষ্ট হয়েছেন।
এ আসনে জাতীয় পার্টির সম্ভাবনা প্রবল ড. আনোয়ার চৌধুরী জীবন’র। তার গ্রহনযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা বিতর্কের উর্ধ্বে। তিনি মনোনয়ন পেলে এ আসনের নির্বাচনী ফলাফল পাল্টে যেতে পারে বলে কারো কারো ধারনা।
অন্যদিকে এ আসনের সাবেক এমপি বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনা প্রধান লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান দিনাজপুর-৩ আসন হতে মনোনয়ন প্রাপ্তির চেষ্টা করছেন। সেটি না পেলে তিনি বিরল-বোচাগঞ্জ আসন হতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। তবে বিবিধ কারণে বিরল-বোচাগঞ্জে তার জনপ্রিয়তা খানিকটা হৃাস পেয়েছে।
এছাড়া এ আসন থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এম এ জলিল, জেলা আইনজীবী সমিতির বর্তমান সভাপতি এ্যাড. খতিবুদ্দীন আহম্মেদ, বিরল উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক মিজানুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর হাফেজ তাজুল ইসলাম প্রার্থী হতে পারেন।
এ আসনে বর্তমান ভোটার সংখ্যা ————-। ২০১৪ সালে ভোটার ছিল ২ লাখ ৭৮ হাজার ৬০৬ এবং ২০০৮ সালে ২ লাখ ৪৬ হাজার ১৪৩ জন।
দিনাজপুর-৩ (সদর) আসন
দিনাজপুর-৩ আসনটি কেবলমাত্র সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত। এ আসনে বর্তমান ভোটার সংখ্যা ————-। ২০১৪ সালে ৩ লাখ ১৮ হাজার ৮৭১ জন।
দিনাজপুর জেলার প্রেস্টিজ ইস্যু বলে পরিচিত এ আসনে মহাজোটের সম্ভাব্য প্রার্থী জাতীয় সংসদের হুইপ এমপি ইকবালুর রহিম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মির্জা আশফাক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুকুজ্জামান চৌধুরী মাইকেল। এ আসনের বর্তমান এমপির কার্যকলাপ আওয়ামী লীগের গ্রহণযোগ্যতা অনেকটাই খাটো করে এনেছে। এর কারণে এই আসনে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মির্জা আশফাক হোসেনকে মনোয়ন দিলে তিনি বিজয়ী হবেন বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগসহ মহাজোটের নেতাকর্মীরা। এ অবস্থায় বিএনপি অন্তর্দ্বন্ধ ভূলে প্রার্থী দিলে আসনটি পুনরুদ্ধার করা সম্ভব বলে মনে করছেন বিএনপি সমর্থক নেতাকর্মীরা। কিন্তু কে হবেন এ আসনে বিএনপির প্রার্থী- এ নিয়ে দলটিতে চলছে তীব্র অন্তর্দ্বন্ধ। এ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও দিনাজপুর পৌরসভার পরপর দুইবারের নির্বাচিত মেয়র সাবেক ছাত্রনেতা সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এ্যাড. মো. মোফাজ্জল হোসেন দুলাল, সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী মরহুম খুরশিদ জাহান হক’র জৈষ্ঠ্য পুত্র শাহরিয়ার আকতার হক ডন।
বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, স্বেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি দিনাজপুর পৌরসভার পরপর দুইবারের নির্বাচিত মেয়র সাবেক ছাত্রনেতা সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমকে মনোনয়ন দিলে তার জেতার সম্ভাবনা অনেকটাই নিশ্চিত।
জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ শফি রুবেল এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মাওঃ জামাল উদ্দিন মনোনয়ন প্রত্যাশী।
অপরদিকে বর্তমান দিনাজপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান জেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মোফাজ্জল হোসেন দুলালও এ আসন থেকে মনোনয়ন পেতে তদবির করছেন বলে জানা গেছে। তার সমর্থক বিএনপি’র নেতাকর্মীরা জানান, যেহেতু তিনি বিপুল ভোটে নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সেহেতু তাকে এ আসনে মনোনয়ন দিলে তিনি বিজয়ী হতে পারেন। এছাড়া সদর আসনে ১০টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়র বিএনপি’র। সেদিক থেকে বিবেচনা করলে তার অবস্থান ভাল।
দিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর-খানসামা) আসন
চিরিরবন্দর ও খানসামা উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি, সাবেক হুইপ মিজানুর রহমান মানু এবং জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মোঃ সাইফুল ইসলাম। ১৮ দলীয়জোটের সম্ভাব্য প্রার্থী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান সরকার, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাবেক এমপি আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিয়া, চিরিরবন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ্ব আফতাব উদ্দীন মোল্লা, জেলা আইনজীবী ফোরামের সভাপতি সাবেক এমপি এ্যাড. আব্দুল হালিম। জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আলহাজ্ব সেকেন্দার আলী এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মোঃ নবীউল ইসলাম।
এ আসনে বিগত নির্বাচনে (সাবেক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রানমন্ত্রী, বর্তমানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী) আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি বিজয়ী হবার পর থেকে বেশীরভাগ সময় ঢাকাতে অবস্থান করায় এই অঞ্চলে রাজত্ব করেন তার ভাই শামীম। এ কারণে মাহমুদ আলী জনপ্রিয়তা হতে ছিটকে পড়েছেন। বর্তমানে তার জনপ্রিয়তা ও নেতাকর্মীর সমর্থন শূন্যের কোটায়। তাকে আগামী নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন দেয়া হলে আওয়ামী লীগের বিজয় লাভের সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে পড়বে। এ কারণে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মনে করছেন এ আসনে সাবেক হুইপ মিজানুর রহমানকে মনোনয়ন দিলে আসনটি ধরে রাখা সম্ভব হবে।
এ অবস্থায় বিএনপি’র সাবেক এমপি ও কেন্দ্রীয় বিএনপি’র নির্বাহী সদস্য আখতারুজ্জামান মিয়াকে যদি ১৮ দলের একক প্রার্থী দেয়া যায়, তাহলে ১৮ দলের প্রার্থীর বিজয় লাভের সম্ভাবনা উজ্জ্বল। তার যথেষ্ট সমর্থন ও জনপ্রিয়তা রয়েছে। তিনি সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের নিয়ে গ্রামে-গঞ্জে সভা-সমাবেশ, গনসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। এলাকাবাসির অভিমত আখতারজ্জামান মিয়া নির্বাচিত হলে এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন হবে। তবে এ আসনে বিএনপির অপর প্রার্থী জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব হাফিজুর রহমানের জনপ্রিয়তাও কম নয়। তিনি এলাকায় ব্যাপক সমাজসেবামূলক কাজ করেছেন। তিনিই উত্তরাঞ্চলে সর্ব প্রথম শিল্পপ্রতিষ্ঠান সি কে সোয়েটার নামে একটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠা করে অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। এ কারনে ইতোমধ্যে তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। এ অবস্থায় তাকে ১৮ দলের একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিলে তিনি বিজয়ী হবেন বলে তার সমর্থক নেতাকর্মীসহ এলাকাবাসির অনেকেই মনে করেন।
এ আসনে বর্তমান ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৩ হাজার ৫৯১ জন। ২০০৮ সালে ছিল ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৫।
দিনাজপুর-৫ (পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী) আসন
ফুলবাড়ি এবং পার্বতীপুর এই দু’টি উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হবার উজ্জল সম্ভাবনা এ্যাড. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপির। এ আসন হতে তিনি পরপর ৫ বার নির্বাচিত হয়েছেন। জনপ্রিয় এই ব্যক্তিত্ব আরেক দফা নির্বাচনে জয়লাভ করবেন বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল এমনটিই মনে করছেন।
তবে ১৮ দলীয়জোটের পক্ষ থেকে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাবেক এমপি এজেডএম রেজওয়ানুল হক মনোনয়ন পেলে মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের বিজয়ী হওয়াটা কষ্টসাধ্য হয়ে দাড়াবে। তার চেয়েও আরেক জনপ্রিয় প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা পার্বতীপুর উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সদস্য এসএম জাকারিয়া বাচ্চু। যিনি ইতোমধ্যে জনসেবামূলক কার্যকলাপের জন্য ফুলবাড়ী-পার্বতীপুর এলাকায় ঈর্ষনীয় জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। এলাকার অনেকের ধারণা তাকে ১৮দলীয়জোটের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিলে তিনি বিজয়ের মালা ছিনিয়ে আনতে পারবেন। ২০০৯ সালে পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সামান্য ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। এ কারণে তাকে এ আসনে একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিলে তার নির্বাচিত হওয়া অনেকটাই নিশ্চিত বলে মনে করেন ওই এলাকার ভোটাররা।
এ দু’জন ছাড়াও ১৮ দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন জেলা বিএনপির সদস্য সাবেক শিক্ষামন্ত্রী আলহাজ্ব মনসুর আলী সরকার, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও ফুলবাড়ী উপজেলা সভাপতি অধ্যক্ষ খুরশেদ আলম মতি, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড. নূরুল ইসলাম, পার্বতীপুর উপজেলা জাপা’র সভাপতি আব্দুল গফুর এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র হাজী মোঃ আবু সায়েম।
এ আসনে বর্তমান ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৪০৬। যা ২০০৮ সালে ছিল ৩ লাখ ২০ হাজার ৯৯৭ জন।
দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর-নবাবগঞ্জ-ঘোড়াঘাট ও হাকিমপুর) আসন
বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, ঘোড়াঘাট এবং হাকিমপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে ২০ দলীয়জোটের বিজয় লাভের সম্ভাবনা উজ্জল যদি প্রার্থী নির্বাচন সঠিক হয়।
এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য মো. শিবলি সাদিক। এবারও তিনি মহাজোটের মনোনয়ন প্রাপ্তির চেষ্টা করছেন। তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয় ব্যক্তি। এককভাবে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলে তার বিজয় লাভের সম্ভাবনা যথেষ্ট প্রবল। তবে এ আসনে তার বিরুদ্ধে লড়ছেন আওয়ামী লীগেরই অনেকেই। তাদের একজন হলেন সাবেক সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ফিজুর পুত্র উপজেলা চেয়ারম্যান শিবলী সাদিক।
তবে তিনি যদি আওয়ামী লীগের মনোননয়ন না পান তাহলে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের অন্যান্য প্রার্থীর জন্য এ আসনে বিজয়ী হবার সম্ভাবনা দুর্বল হয়ে পড়বে। বর্তমান এমপি ড.আজিজুল হক চৌধুরীর বর্তমান কর্মকান্ডে এলাকায় আওয়ামীলীগের জনসমর্থন ব্যাপকভাবে হৃাস পেয়েছে। সে ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগের কোন প্রার্থীরই বিজয়ের সম্ভাবনা নেই বলে এলাকাবাসির অভিমত।
তাছাড়া দিনাজপুর জেলা জামায়াতের আমীর আনোয়ারুল ইসলাম ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও পর্যটন কেন্দ্র স্ব্প্নপুরী স্বত্বাধিকারী আলহাজ্ব মোঃ দেলওয়ার হোসেন এই দু’জন তার বিরুদ্ধে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এরা প্রত্যকেই প্রার্থী হিসাবে অত্যন্ত শক্তিশালী। ২০০৮ সালের নির্বাচনে ৪ দলীয়জোটের প্রার্থী জামায়াত নেতা আনোয়ারুল ইসলাম মাত্র ৮৮৫ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামীলীগের প্রার্থী ড.আজিজুল হক চৌধুরীর কাছে পরাজিত হন। এ কারণে এবারে জামায়াতের এই নেতা যদি ২০ দলীয়জোটের একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পান তাহলে তার বিজয় লাভ করাটা অনেকটাই নিশ্চিত। ফলে এ আসনটি ২০ দলীয়জোটের অনুকূলে যেতে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অভিমত।
এছাড়া এ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা, জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ লুৎফর রহমান মিন্টু, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নেতা অধ্যক্ষ মাওঃ মোজাহার আলী সরকার এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী এ্যাড. নুরুন্নবী এ আসন থেকে মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন।
বর্তমানে এ আসনে ভোটার আছেন ৪ লাখ ১৭ হাজার ৮১০ জন। ২০০৮ সালে এ আসনে ভোটার ছিল ৩ লাখ ৭৪ হাজার ১০৭ জন।