শনিবার ১৮ অগাস্ট ২০১৮ ৩রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘ভারত আগ্রহ দেখালে নির্বাচন নিয়ে মোদির সঙ্গে শেখ হাসিনার আলোচনা হতে পারে’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, ভারত আগ্রহ দেখালে বাংলাদেশের রাজনীতি এবং আসন্ন নির্বাচন নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আলোচনা হতে পারে।

বুধবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২৫ ও ২৬ মে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে পশ্চিমবঙ্গ সফর করবেন। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরতেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেন।

তিনি বলেন, ‘দুই দেশের অবিচ্ছেদ্য সম্পর্কের ধারবাহিকতায় গত ২০০৯ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্ব ও দিকনির্দেশনায় বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্ব, পারস্পরিক বিশ্বাস, আস্থা ও বোঝাপড়া এখন অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বলিষ্ঠ। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর দুই দেশের সুসম্পর্ককে আরো দৃঢ় এবং পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় ও বিদ্যমান গতিশীল সম্পর্ককে আরো সুসংহত করবে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিফিংয়ে জানান, প্রধানমন্ত্রী আগামী ২৫ মে সকালে পশ্চিমবঙ্গের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, সংস্কৃতিমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, আন্তর্জাতিক এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টাসহ সংশ্লিষ্টরা তার সফরসঙ্গী থাকবেন। সফর শেষ ২৬ মে বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ২৫ মে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশ ভবন’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি উপস্থিত থাকবেন। ওই দিনই বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী।

আগামী ২৫ মে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্বববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষে দুই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং নরেন্দ্র মোদী দুই দেশের বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে আলোচনায় বসবেন।

সফরের দ্বিতীয় ও শেষ দিন ২৬ মে পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত বিশেষ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অংশ নেবেন। এ সময় শেখ হাসিনাকে ওই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টর অব লিটারেচার (ডি.লিট) উপাধিতে ভূষিত করা হবে। এই অনুষ্ঠানেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি উপস্থিত থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রীর সফর সূচি সম্পর্কে আবুল হাসান মাহমুদ আলী আরো জানান, সফরে আগামী ২৫ মে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি বিজড়িত জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া সফরের শেষদিনে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের কিংবদন্তী বাঙালি নেতা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর স্মৃতিবিজড়িত কলকাতার নেতাজি জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। এ ছাড়া সফরে শেখ হাসিনা পশ্চিমবঙ্গের একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সঙ্গে কলকাতায় সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন।

‘বাংলাদেশ ভবন’ সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর ২০১০ সালের ভারত সফরের সময় পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশ ভবন’ নির্মাণের ব্যাপারে প্রাথমিক আলোচনা হয়। পরে ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের ওই সময়ের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিংয়ের বাংলাদেশ সফরের সময়ে ঘোষিত যৌথ ইশতেহারে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে ‘বাংলাদেশ ভবন’ নির্মাণের ঘোষণা দেওয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ‘বাংলাদেশ ভবন’ নির্মাণ শেষ হয়েছে। এই ভবন নির্মাণে প্রায় ২৫ কোটি ভারতীয় রুপি খরচ হয়েছে।

‘বাংলাদেশ ভবনে’র রক্ষণাবেক্ষণ ও সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ১০ কোটি রুপির সমমান মুদ্রার একটি স্থায়ী তহবিল গঠন করা হবে, যার অর্থায়ন করবে বাংলাদেশ সরকার। এর লভ্যাংশ থেকে প্রতিবছর ১০ জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের জন্য ফেলোশিপ দেওয়া হবে। সফরে এই বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সাথে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘বাংলাদেশ ভবন নির্মাণ পরবর্তী পরিচালনা কার্যক্রম’ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হবে।