বুধবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ভালো থেকো প্রিয় মানুষ

তার সঙ্গে প্রথম পরিচয় সেই ১৯৯৯ সালে। তখন আমরা ঠাকুরগাঁও শহরের হাজীপাড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়তাম। আর প্রাইভেট পড়তাম ওই স্কুলেরই শিক্ষক রশিদ স্যারের কাছে। উনার বাসায়।

প্রাইভেটে একদিন পরীক্ষা চলছিল। গণিত পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষে আমার স্কেলটি খুঁজে পাচ্ছিলাম না। কিন্তু আমার সামনে একই রকম একটি স্কেল ছিল। সেটি নিজের মনে করে তাড়াতাড়ি জ্যামিতি বক্সে রাখলাম। সে বলল, ওটা আমার। আমি বললাম না, এটা আমার। সে আবারো বলল, ওটাতো আমার, তোমারটা ভালোভাবে খুঁজে দেখ। বললাম খোঁজার দরকার নেই তো, কারণ এটাই আমার। পরে সে বলল, আচ্ছা ঠিক আছে ওটাই তোমার।

এ কথা বলার পরপরই দেখি আমার খাতার নিচ থেকে বের হলো আরেকটি স্কেল। সে বলল, বললাম না, ওটা আমার। এখন যেটা বের হলো এটা তোমার।

এ ঘটনায় অনেক লজ্জা পেয়েছিলাম সেদিন। আর অবাক হয়েছিলাম তার বিচক্ষণতা দেখে। কারণ, কোনো তোড়জোড় না করেই স্কেলটি নিজের জেনেও, সে ওটা আমাকে দিয়ে দিল। তার এই গুণটিই সেদিন আমার হৃদয়ে নাড়া দিয়েছিল।

এরপর আস্তে আস্তে আমাদের বন্ধুত্ব শুরু হয়। ক্লাস নাইন থেকে এক সঙ্গে আবারো প্রাইভেট পড়া শুরু করি। দিন যত যায় তার ভালোভালো গুণগুলো প্রকাশ পেতে থাকে। আর ওইসব গুণে আমি ততই মুগ্ধ হতে থাকি। দিন দিন সে আমার খুব ভালো বন্ধুতে পরিণত হয়। এরপর ক্লাস টেন। এটাও কেটে গেল মুগ্ধতায়।

এসএসসি পরীক্ষার মাধ্যমে শেষ হয়ে যায় আমাদের স্কুল জীবন। এরপর শুরু হলো কলেজ জীবন। সেখানে অবশ্য একটা ট্রাজেডি আছে। সেটিকে বিজ্ঞাপন বিরতির নাম করে আড়াল করেই রাখলাম।

সে ভর্তি হলো সরকারি মহিলা কলেজে। আমি ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজে। তখন আস্তে আস্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হতে শুরু করলো। কথা হতো। তবে নিয়মিত না। দেখাও হতো না তেমন। এইচএসসি শেষ করে সে ওই কলেজেই ডিগ্রিতে ভর্তি হলো। বলে রাখা ভালো এর মধ্যে অবশ্য সে বেশ কয়েকটি কলেজে ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছিল। এতে আমার খুব মন খারাপ হয়েছিল। কারণ সে আরো দূরে সরে ‍যাচ্ছে এই ভেবে। বেশি কিছু আর না বলি। সন্দেহ জাগতে পারে।

যাহোক আমি অনার্সে সরকারিতেই ভর্তি হলাম। দুইজন দুই কলেজে। দেখা হতো না। তবে মাঝে মধ্যে ফোনে কথা হতো। অনার্স প্রথম বর্ষের কিছুদিনের মাথায় ঢাকায় চলে এলাম। চাকরি হয়ে গেলো ঢাকায়। সে ঠাকুরগাঁওতেই থেকে গেল। এরপর ডিগ্রি শেষ করে সেও ঢাকায় চলে এলো। তখনও আমাদের যোগাযোগ ছিল। তবে অনিয়মিত। দেখা হতো অনেকদিন পর পর। বলা যেতে পারে বছরে দুইবার।

ঢাকায় এসে সে ইডেনে ভর্তি হলো মাস্টার্সে। আমি মিরপুর বাংলা কলেজে। মাস্টার্স পরীক্ষা দিলাম দুজনেই। এরই মাঝে জীবনের মোড় বদলে দেয়ার মতো একটি ঘটনা ঘটে গেল। কি চমকে গেলেন? চমকান নি, তাহলে শুনুন।

২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর পারিবারিক সিদ্ধান্ত মতে তার বিয়ে হয়ে গেলো। কি অবাক হয়ে গেলেন? কার সঙ্গে বিয়ে হলো তাই ভাবছেন তো। অবশ্য অবাক হওয়ারই কথা। একটু ঠান্ডা হন বল‌ছি। আমার সঙ্গেই তার বিয়ে হয়েছে। এবার দম ছেড়ে বলুন, ও আচ্ছা। বিয়ের পরই আমরা মাস্টার্স পাস করেছি।

এতক্ষণ যার বর্ণনা দিচ্ছিলাম সে আর অন্য কেউ নয়, আমার স্ত্রী শাহরিনা নাজনীন। সে আমার সবচেয়ে ভালো বন্ধু। আমাকে সবচেয়ে বেশি বুঝে নেয়ার মানুষ এবং খুব আপনজন। যার অনুপ্রেরণা আমাকে একটি অবস্থান দিয়েছে। যাকে বউমা হিসেবে পেয়ে মেয়ের ঘাটতি পূরণ হয়েছে আমার বাবা-মায়ের। আমার সেই প্রিয় মানুষটির আজ জন্মদিন। শুভ জন্মদিন প্রিয় মানুষ। এর পাশাপাশি আর একটি খুশীর খবর হলো, গত ১৫ জুন আমার এই প্রিয় মানুষটি কন্যা সন্তানের মা হয়েছে। আর আমি হয়েছি বাবা। অতএব আমার প্রিয় এবং আস্থার মানুষ এখন দুইজন। আমার মেয়ে সোহা ও তার আম্মু। তাদের জন্য অনেক অনেক দোয়া করবেন। ভালো থেকো প্রিয় মানুষ। শেষ দিন পর্যন্ত আজকের মতোই থেকো, কথা দিচ্ছি আমিও থাকবো তোমার মতো।

লেখক-মো. মাহাবুর আলম সোহাগ।

সাংবাদিক।