বৃহস্পতিবার ২১ জুন ২০১৮ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘ভিন দেশী পতাকা যত্রতত্র উড়ানো যাইবেনা

পতাকা লইয়া দু’কলম লিখিবার বাসনা কয়েকদিন হইতেই মনের ভিতরে জমাট বাঁধিয়া আছে। ইহাকে তরল করিয়া কলমের ডগা দিয়া বাহির করিয়া দিবো সে অবসরও মিলিতেছিলো না। আজ যখন মনোস্হির করিয়া বসিয়াছি তখন আরেক যন্ত্রণা। আমার কলম আর চলেনা। নিজের দিকে চাহিয়া জিজ্ঞাসিলাম, ‘আমি কোনপক্ষে! পতাকা উড়িবে নাকি উড়িবেনা!’ আমার বিভ্রান্ত মনোজগৎ হইতে কোনই জবাব পাইলাম না। অনলাইনের অলিগলি ঘুরিয়া বেড়াইলাম সমাধানের আশায়। পাড়া মহল্লার গলিপথের মত অনলাইন জুড়িয়াও সেই একই ‘নীল-সাদা’ না হয় ‘সবুজ-হলুদ।’ আমি কি পতাকার পক্ষে থাকিয়া উহাকে পতপত করিয়া উড়িতে দিবো নাকি শোয়াইয়া দিবো ধরার ধুলায়!

দেশের সংবিধান সেই বায়াত্তর সাল হইতেই চিৎকার করিতেছে-‘ভিন দেশী পতাকা যত্রতত্র উড়ানো যাইবেনা। ডিপ্লোমেটিক জোনে উড়িবে, ডিপ্লোমেটদের প্রয়োজনে অন্য কোথাও উড়িবে কিন্তু কোন অবস্হাতেই আমজনতার সে এক্তিয়ার নাই।’ কে শোনে কার কথা! বাংলাদেশের আকাশ জুড়িয়া চার বছর অন্তর অন্তর ঠিকই বাঁশের মাথায় লটকিয়া রহে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, জার্মানি, ইতালি। দেশে আইন আছে তবে অন্য দেশের পতাকার পতপতানি থামাইতে তাহার যথাযথ প্রয়োগ নাই। আইন মানিবার স্বতপ্রণোদিত ইচ্ছা বা সংবিধানের সকল ধারা উপধারা মুখস্ত রাখিবার দায়ই বা কার থাকে! এ কারনেই পতাকাও নির্দিধায় উড়িতে থাকে মৃদু মন্দ বাতাসের দোলায়। তাহাতে শরীর শিহরিত হয়, চিত্তে পুলক জাগে, আবেগ বাঁধভাঙ্গা জলরাশির মত উথলিয়া উঠে। এই আবেগের জোয়াড় ঠেকাইতে মামলার বাঁধ বসানো হইয়াছে সম্প্রতি। রিটকারীর আর্জিতে উত্তোলিত সকল ভিনদেশী পতাকা নামাইয়া ফেলার নির্দেশ দানের অনুমতি চাওয়া হইয়াছে। ইহাও কি আবেগতাড়িত অভিপ্রায় নহে! প্রচলিত আইনে মামলা না করিয়া রিট করিবার প্রয়োজন পড়িলো কেন? খবরের শিরোনাম হইবার অভিলাষে!

অনেক ভাবিয়া দেখিলাম পতাকা উড়ানোর বিরোধিতার পক্ষে অনেক যুক্তি আছে। এইক্ষেত্রে প্রথমেই দেশপ্রেম বিষয়টি প্রবলভাবে সামনে আসিয়া দাঁড়ায়। রাষ্ট্রীয় পতাকা ব্যাপারটি রাজনৈতিক হইলেও নি:সন্দেহে ইহার সহিত আবেগ জড়ানো থাকে। বিশেষ করিয়া আমাদের পতাকার রাজনৈতিক ইতিহাস এতটাই বেদনা বিধুর যে তাহার সহিত আবেগের মাখামাখি প্রবল। লাল সবুজের প্রতিপক্ষ হইয়া মাসাধিককাল অন্য কেহ আমাদের আকাশে রাজ কায়েম করিবে ইহা সংগত কারনেই আমরা মানিয়া নিতে পারিনা। তাছাড়া পতাকার আকার বড় করিবার বিকার, ইহাকে উপযুক্ত জায়গায় ঝুলাইবার পাগলামি ইত্যাদি কি পরিমান বিড়ম্বনা তৈরী করিতে পারে তাহাতো নারায়নগঞ্জের সাম্প্রতিক ঘটনা হইতেই আমরা জানি।

বিশ্বকাপ উন্মাদনায় পতাকা আমিও উড়াইয়াছি। ব্রাজিলের পতাকার মাঝখানের বল আঁকিতে গিয়া গলদঘর্ম হইয়াছি, দর্জির দোকানের বাকী পরিশোধের তাগাদায় সন্মানহাণীর আশংকায় পড়িয়াছি, রাতের নির্জনতায় আর্জেন্টিনা সরাইয়া ব্রাজিল উড়াইবার ঝুঁকি নিয়াছি-থামিয়া যাই নাই। কিন্তু এখন এসব অতীত ভাবিয়া শরীরের লোম খাড়া হইয়া উঠিতেছে। আমার তখনকার এইসব উন্মাদনা তো ছিলো রাষ্ট্রদ্রোহীতার সামিল। দেশপ্রেমের এইধরনের মাতামাতি তখন থাকিলে নির্ঘাত কাঠিখানায় আশ্রয় নিতে হইতো। তাছাড়া পতাকারও তো একটা হিসাব নিকাশ আছে। যার যেই রকম খুশি দৈর্ঘ্য প্রস্হ দিয়া পতাকা বানাইতেছি। না জানি কোনদিন সংশ্লিষ্ট দেশগুলি তাহাদের পতাকা অবমাননার অভিযোগে বাঙালিরে হাইকোর্ট পর্যন্ত লইয়া যায়।

বাঁশের আগায় বিভিন্ন দেশের পতাকা বাঁধিয়া যাহারা ফেরি করিয়া বেচিতেছে, আইন আর খাঁটি দেশপ্রেমের ধাক্কা সেইসব দিন আনা দিন খাওয়ারা সামলাক। আমার কি! আমি বরং একটা জানা গল্প আরেকবার শুনাইতে শুনাইতে বিদায় লই-

ঊনিশ’শ পঞ্চাশের বিশ্বকাপ ফুটবল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারনে আগের দুই বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হইতে পারে নাই। ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত সেই বিশ্বকাপটি ছিলো সবার জন্য উন্মুক্ত। নানা ঝক্কি ঝামেলার কারনে সে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণে অনেক দেশেরই আগ্রহ ছিলোনা। মাত্র তেরটি দেশ আসিয়াছিলো সেইবার। বিশ্বকাপ ফুটবলের ধারা বজায় রাখিবার কারনে টুর্ণামেন্ট আয়োজনে ফিফাও ছিলো বদ্ধপরিকর। ইতিহাসে প্রথম এবং এখন পর্যন্ত শেষবারের মত আমাদের উপমহাদেশের একটি দল সে বিশ্বকাপে অংশ নেয়ার জন্য ব্রাজিল পর্যন্ত পৌঁছিয়াছিলো। ভারত উপমহাদেশের ফুটবল অবশ্য গুণেমানে তখন বিশ্ব পরিসরে খুব ফেলনা কিছুনা। বর্তমানের উন্মাদনা না থাকিলেও উভয় প্রান্তের বাঙালি মানসে ফুটবলই ছিলো অন্যতম বিনোদন। দুর্ভাগ্য ভারত সেবার বিশ্বকাপ খেলিতে পারে নাই। অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন তাহাদের খেলোয়াড়দের খালি পায়ে খেলার সুযোগ দানের যে অদ্ভুত আব্দারটি করিয়াছিলো সংগত কারনে ফিফা সে আব্দার গ্রাহ্য করে নাই। ইতিহাস সৃষ্টি করিবার সে সুযোগ হেলায় হারাইয়া টুর্ণামেন্ট বয়কট করিয়া দেশে ফিরিয়াছিলো ভারত।

পতাকা প্রেমিদের বলি- ভারত যদি বিশ্বকাপ হেলায় ছাড়িয়া দিতে পারে, আপনারা পতাকা ছাড়িতে পারিবেন না!

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর