বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ভূমিহীনদের দারিদ্র দুরীকরণে অগ্রনী নদীর চরে পেঁয়াজসহ বিভিন্ন চাষ

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর থেকে ॥ আত্রাই নদীতে জেগে ওঠা বিশাল চর এলাকায় পেঁয়াজসহ বিভিন্ন চাষাবাদ স্থানীয় ভূমিহীদের দারিদ্রতা দুরীকরণের ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা রাখছে ভূমিহীন দরিদ্র কৃষকেরা।

আর এ নদীর চরে পেঁয়াজ চাষেই ভাগ্যবদল হয়েছে অনেক ভূমিহীন কৃষকের। তবে গত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থরা চরে চাষাবাদ করে আবার ঘুরে দাড়ানোর চেষ্ঠা করছে।

আত্রই ছাড়াও গর্ভেশ্বরী, পুনর্ভবা, ছোট যমুনাসহ বিভিন্ন নদীর মাঝে পিয়াজ, আলুসহ বিভিন্ন চাষাবাদ করছে ভূমিহীন কৃষকরা।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জের শতগ্রাম ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া আত্রাই নদীর উৎসমুখ শুকনো মৌসুমে নদীতে চর পড়ে যায়। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে নদী তীরবর্তী ভূমিহীনরা এ চরকেই চাষাবাদের মাধ্যম হিসেবে বেছে নেয়। চর এলাকাকে চাষের যোগ্য করে তুলতে পরিবারের সবাই এক সংগে কাজ করে। আর নদীর চরে পেঁয়াজ চাষ করে অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতাও এনে দিয়েছে অনেকের।

প্রতিবারের মতো এবারেও আত্রাই নদীর চরে পেঁয়াজ চাষ করেছেন স্থানীয় কৃষককেরা। পেঁয়াজ গাছের সবুজ রঙে বদলে গেছে নদীর চিত্র। অধিকাংশ চাষী গত ৩/৫ বছর থেকে জেগে ওঠা চরে পেঁয়াজ চাষ করছেন। নভেম্বর মাস থেকে নদীতে পানি কমে গেলে বালু চরে পেঁয়াজ চাষের উপযোগী করে তোলার জন্য নেমে পড়েন চাষীরা।

পেঁয়াজ চাষীরা জানায়, নিজস্ব জমি না থাকায় তারা নদীর জেগে উঠা চরে চাষাবাদ করে থাকেন। বর্ষার সময় পানির সাথে যে পলি পড়ে তা ক্ষেতের সার হিসেবে কাজে লাগে। তাই অতিরিক্ত সার দিতে হয় না এবং সেচের প্রয়োজন হয় না বললেই চলে। এ কারণে নদীর চরে পেঁয়াজ চাষ লাভ জনক।

 

ভূমিহীন আনোয়ারুল ইসলাম জানান, নদীতে পেঁয়াজ চাষে বিঘা প্রতি খরচ হয় প্রায় ১০হাজার টাকা। বিপরীতে এক বিঘা জমিতে পেঁয়াজ আসে ৩৫থেকে ৪০ মণ। তা দিয়েই আমাদের কয়েক মাসের খাবারের জোগান হয়।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা কালা ইসলাম ও তার স্ত্রী সফিলা জানান, বসবাস করছেন কাশিমনগর আশ্রয়ণে। নিজের জমি না থাকায় বাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীতে গত কয়েক বছর থেকে পেঁয়াজ চাষ করছি। আমরা নিজেরাই টেনে মই চাষ দিয়ে চাষ যোগ্য করে তুলি। তারপর পেয়াজ রোপন করি। পেঁয়াজ আবাদের আয় থেকে পরিবারে স্বচ্ছলতা এসেছে। তবে গত বন্যায় আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। আবার ঘুরে দাড়াতে চেষ্ঠা করছি। তাই স্বামী-স্ত্রীসহ পরিবারের সবাই এক সংগে কাজ করছি।